জনস্বার্থে হাজার বার মাফ চাইব: আইভী

নারায়ণগঞ্জ বাসীর সেবায় বিভিন্ন কাজের উদাহরণ দিয়ে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছেন, “জনস্বার্থে আমি ১০ বার না হাজার বার মাফ চাইতে পারব। তবু কাজ করে যাব।”
selina hayat ivy
সেলিনা হায়াৎ আইভী। স্টার ফাইল ছবি

নারায়ণগঞ্জ বাসীর সেবায় বিভিন্ন কাজের উদাহরণ দিয়ে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছেন, “জনস্বার্থে আমি ১০ বার না হাজার বার মাফ চাইতে পারব। তবু কাজ করে যাব। পৌরসভার সময় একটি ক্লাবকে সুইমিং, সবুজায়নসহ বিভিন্ন চুক্তির ভিত্তিতে জায়গা বরাদ্দ দেওয়া হয়। কিন্তু ৬০ বছর পর দেখা যায় তারা চুক্তি অনুযায়ী কিছুই পূরণ করেনি। তাই সিটি করপোরেশনের জায়গা বুঝে নেওয়া হয়েছে। এজন্য মামলা করলেও সিটি করপোরেশন মালিকানায় পক্ষে রায় আসে। পরে বাধ্য হয়ে ভবনটি ভেঙে দেওয়া হয়। যার জন্য আবার আদালতে আমার নামে মামলা দেয়। আমি মামলাকে ভয় পাই না।”

বৃহস্পতিবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নগর ভবনের সম্মেলন কক্ষে এক প্রারম্ভিক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের সার্বিক সহযোগিতায় ও জাতীয় গৃহায়ন ও পল্লী কর্মসহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) এর বাস্তবায়নে “স্বল্প আয়ের মানুষের জন্য উন্নত জীবন ব্যবস্থা” শীর্ষক প্রকল্প এর ওই প্রারম্ভিক সভা অনুষ্ঠিত হয়।

মেয়র আইভী বলেন, ২০০৩ থেকে এখনও পর্যন্ত ১৭ বছর ধরে পৌরসভা ও সিটি করপোরেশনের মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। এখনও পর্যন্ত যেসব পাইলট প্রকল্প আমাদের সিটি করপোরেশন থেকে শুরু হয়েছে সবই এখানে সফল হয়েছে। যার অনেক উদাহরণ আছে। এর ধারাবাহিকতায় অন্যান্য সিটি করপোরেশন এলাকায় হয়েছে। আশা করছি এ প্রকল্পটিও সফল হবে। এর জন্য আমরা সার্বিক ভাবে সহযোগিতা করব।

প্রকল্প পরিচালক এসএএম ফজলুল কবীরের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এএফএম এহতেশামূল হক, পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশনের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার ড. একেএম নূরুজ্জামান, বিশ্ব ব্যাংক প্রতিনিধি মিজ সোনিয়া এম সুলতানা সহ সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তারা।

Comments

The Daily Star  | English

US supports a prosperous, democratic Bangladesh

Says US embassy in Dhaka after its delegation holds a series of meetings with govt officials, opposition and civil groups

4h ago