সাভারে আ লীগ নেতা হত্যা: পিস্তল-গুলিসহ আরো ১ গ্রেপ্তার

সাভারের বক্তারপুর এলাকায় আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল মজিদ (৩৬) হত্যার ঘটনায় ব্যবহৃত অস্ত্রসহ মানিক মইন উদ্দিন (২৮) নামে আরো এক আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এনিয়ে মামলায় মোট চারজনকে গ্রেপ্তার করা হলো।
Savar arrest
৩ অক্টোবর ২০১৯, সাভারে আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল মজিদ (৩৬) হত্যার ঘটনায় ব্যবহৃত অস্ত্রসহ মানিক মইন উদ্দিন (২৮) নামে আরো এক আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ছবি: স্টার

সাভারের বক্তারপুর এলাকায় আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল মজিদ (৩৬) হত্যার ঘটনায় ব্যবহৃত অস্ত্রসহ মানিক মইন উদ্দিন (২৮) নামে আরো এক আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এনিয়ে মামলায় মোট চারজনকে গ্রেপ্তার করা হলো।

পুলিশের দাবি, মানিক সরাসরি কিলিং মিশনে অংশ নিয়েছিলো।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ঢাকা উত্তর (অপরাধ) মোহাম্মদ সাইদুর রহমান আজ (৩ অক্টোবর) সাভার মডেল থানায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

সাইদুর রহমান বলেন, গতকাল রাত পৌনে ১১টার দিকে সাভারের দক্ষিণ বক্তারপুর এলাকা থেকে মানিককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সেসময় তার কাছ থেকে হত্যায় ব্যবহৃত পিস্তলসহ চার রাউন্ড গুলি ও একটি ম্যাগাজিন উদ্ধার করা হয়।

তিনি বলেন, “আমরা যতোটুকু জানতে পেরেছি মামলার প্রধান আসামি মিকাইল মোল্লার সঙ্গে এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে মজিদের বিরোধ ছিলো। বিরোধকে কেন্দ্র করে উভয় পক্ষের মধ্যে হাতাহাতিও হয়েছিলো। গত ১৪ সেপ্টেম্বর রাত ৯টার দিকে স্থানীয় মিকাইল মেম্বরের বাড়িতে আসামিরা মজিদকে হত্যার উদ্দেশ্যে একত্রিত হয় এবং মজিদ কখন বাড়িতে ফিরে তা লক্ষ্য করতে থাকে।

সাইদুর রহমান বলেন, মজিদ বাড়ি ফেরার পথে রাত সাড়ে ১০টার দিকে গ্রেপ্তারকৃত মানিক ও মামলার পলাতক আসামি বাবু পেছন থেকে মজিদকে লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়ে। ওই ঘটনায় মজিদ ও মজিদের সঙ্গে থাকা স্বপন নামে একজন গুলিবিদ্ধ হন। তাদেরকে স্থানীয় এনাম মেডিকেলে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মজিদকে মৃত ঘোষণা করেন।

মজিদ হত্যার ঘটনায় এখন পর্যন্ত চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকিদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান তিনি।

উল্লেখ্য, মজিদ হত্যার পরদিন মজিদের বাবা আবুল কাশেম বাদি হয়ে স্থানীয় মিকাইল মোল্লাকে প্রধান আসামি করে নয়জনের নাম উল্লেখ করে এবং ৮/৯ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে সাভার মডেল থানায় মামলা করেন।

মিকাইল মোল্লার স্ত্রী আফরোজা আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন বলে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়।

Comments

The Daily Star  | English

Through the lens of Rafiqul Islam

National Professor Rafiqul Islam’s profound contribution to documenting the Language Movement in Bangladesh was the culmination of a lifelong passion for photography.

18h ago