তাসকিনকে সাবধানে ব্যবহার করতে বললেন সুজন

লাল বলের ক্রিকেট থেকে সাময়িকভাবে নিজেকে সরিয়ে নিতে চাইছেন তাসকিন

সব সংস্করণেই গত কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশের পেস আক্রমণে অন্যতম প্রধান ভরসা তাসকিন আহমেদ। তবে সম্প্রতি লাল বলের ক্রিকেট থেকে সাময়িকভাবে নিজেকে সরিয়ে নিতে চাইছেন এই পেসার। তাই নিয়েই নানা আলোচনায় সরব দেশের ক্রিকেট মহল। তাসকিনের সঙ্গে কিছুটা সূর মিলিয়ে তাকে সাবধানে ব্যবহার করার কথা বললেন সাবেক অধিনায়ক ও বিসিবি পরিচালক খালেদ মাহমুদ সুজন।

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে বর্তমানে দুর্দান্ত ঢাকার হয়ে খেলছেন তাসকিন। স্বাভাবিকভাবেই বর্তমানে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটেই মনোযোগী এই পেসার। সামনে আবার এই সংস্করণে বিশ্বকাপও রয়েছে। তাই এখনও টেস্ট ক্রিকেট থেকে সাময়িক সময়ের জন্য বিরতির জন্য বিসিবি বরাবর আবেদন করেছেন তিনি। তার ইচ্ছাকে প্রাধান্য দেওয়ায় ব্যাপারেই ইঙ্গিত দিয়েছেন দুর্দান্ত ঢাকার কোচ সুজন।

এছাড়া চোটও নিত্যসঙ্গী তাসকিনের। ক্যারিয়ারের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত প্রায় নিয়মিত বিরতিতেই চোট আঘাত হেনেছে তাকে। গত ওয়ানডে বিশ্বকাপে পাওয়া কাঁধের চোট মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে আবার। চোট সারিয়ে বিপিএল দিয়ে ফিরেছেন। এই চোট প্রবণতার জন্যই টেস্ট থেকে আপাতত সরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।

মিরপুরে অনুশীলন শেষে সংবাদমাধ্যমে তাসকিনের প্রসঙ্গে সুজন বলেন, 'এটা তাসকিনের ব্যক্তিগত ব্যাপার। ও সিদ্ধান্ত নেবে। ওর তো বয়সও হচ্ছে। এখন তো ২৫-২৬ বছর বয়স না। কতটুকু পারবে চিন্তা করতে হবে। এ বছর অনেক টেস্ট আছে। আমি মনে করি ওকে সাবধানে ব্যবহার করাই ভালো হবে।'

তাসকিনকে গুরুত্বপূর্ণ সিরিজে রাখার কথা জানিয়ে আরও বলেন, 'যেখানে প্রয়োজন নেই বা নতুন একটা ছেলেকে পরীক্ষা করতে পারি, সেখানে তাসকিনকে না খেলানোই ভালো। আমরা যাতে ফিট তাসকিনকে পাই, তাহলে বাংলাদেশের জন্য অনেক ম্যাচ জেতা সহজ হবে।'

তাসকিনের বর্তমান ফিটনেস নিয়েও কথা বলেছেন এই কোচ, 'তাসকিন ব্রিলিয়ান্ট। আস্তে আস্তে উন্নতি করছে। যথেষ্ট কাজ করেছে, আমিও ওর সাথে কাজ করেছি। বোলিংয়ে এখনও শতভাগ ছন্দ পায়নি। প্রতিটি ম্যাচেই ভালো বল করছে তবে এখনও কাজ করার জায়গা আছে। এটা সে-ও জানে এবং অনেক কঠোর পরিশ্রম করছে। বলব না ও ফিট না। তবে ও যতটা করছে খারাপ না। আমি জানি তাসকিন দারুণভাবে প্রত্যাবর্তন করবে।'

Comments

The Daily Star  | English

The ones who stayed for some extra cash

Workers who came to the capital or stayed back to earn some extra cash during the Eid-ul-Azha thronged Gabtoli and nearby areas for buses

3h ago