বিদেশি ঋণ

ঋণ নিয়ে ঋণ পরিশোধ করছে সরকার: সিপিডি

সিপিডি জানিয়েছে, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বৈদেশিক ঋণ এবং ঋণ পরিশোধের বাধ্যবাধকতার হার বেড়েছে।

বিদেশি ঋণ প্রথমবার ১০০ বিলিয়ন ডলার ছাড়াল

বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, ২০২৩ সাল শেষে সামগ্রিক বিদেশি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১০০ দশমিক ৬ বিলিয়ন ডলার, যা এক বছর আগে ছিল ৯৬ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার।

সরকারের অব্যবহৃত বিদেশি ঋণ বেড়ে ৪৮.৪৪ বিলিয়ন ডলার

এই অব্যবহৃত ঋণ বিদ্যমান প্রকল্পগুলোর জন্য অর্থ বরাদ্দ থাকার পরও তা ব্যবহারের সক্ষমতা না থাকার ইঙ্গিত, যা দেশের জন্য কোনো ভালো লক্ষণ নয়।

নতুন উদ্বেগ হয়ে উঠতে পারে বিদেশি ঋণের সুদ পরিশোধের খরচ বৃদ্ধি

তহবিলের মূল অর্থ পরিশোধ ঋণের মেয়াদ শেষ হওয়ার পর শুরু হয়। এর মেয়াদ সাধারণত ২০ বছর থেকে ৩০ বছর পর্যন্ত থাকে। তবে ঋণ বিতরণের পর সুদ পরিশোধ শুরু হয়ে যায়। তাই, বাংলাদেশের জন্য সুদের খরচ বাড়ছে।

বেসরকারি খাতে বিদেশি ঋণ কমছেই, রিজার্ভে বাড়তি চাপ

কিন্তু ডলারের কম মজুদ, টাকার অবমূল্যায়ন ও বৈশ্বিক সুদের উচ্চহারের কারণে উদ্যোক্তারা এই ধরনের ঋণ এড়িয়ে চলছেন।

আরও বিদেশি ঋণ চায় বাংলাদেশ রেলওয়ে

উন্নত পরিষেবা দিতে রেললাইন সম্প্রসারণসহ কিছু কাজের জন্য ইউরোপীয় বিনিয়োগ ব্যাংকের (ইআইবি) কাছে আরও ঋণ চেয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ে।