বাংলাদেশ

বিএসএফ’র গুলিতে ২ বাংলাদেশি যুবক নিহত

লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলায় ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বিএসএফ’র গুলিতে ২ বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন।
স্টার অনলাইন গ্রাফিক্স

লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলায় ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বিএসএফ'র গুলিতে ২ বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন।

আজ বুধবার ভোর সাড়ে ৪টার দিকে উপজেলার ভেলাবাড়ী ইউনিয়নের মহিষতুলি গ্রামে আন্তর্জাতিক সীমান্ত পিলার ৯২১ ও ৯২২ এর মাঝে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত দুজন হলেন, মহিষতুলি গ্রামের মৃত সানোয়ার মিয়ার ছেলে ওয়াজকরনি মিয়া (৩৬) ও ঝারিরঝার গ্রামের সাদেক আলীর ছেলে আয়নাল হক (৩৫)।

লালমনিরহাট ১৫ বিজিবি ব্যাটালিয়নের লোহাকুচি ক্যাম্পের কমান্ডার শরিফুল ইসলাম শরিফ দ্য ডেইলি স্টারকে তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

বিএসএফ’র গুলিতে নিহত আয়নাল হকের স্বজন। ছবি: এস দিলীপ রায়/স্টার

বিজিবি জানায়, নিহত দুজন গরু ব্যবসায়ী। প্রায় ১০ থেকে ১২ জনের একটি দল গিয়েছিল ভারত থেকে গরু আনতে। ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কোচবিহার জেলার সিতাই থানার বাবুরহাট ক্যাম্পের টহলরত বিএসএফ কৈমারী সীমান্তে তাদের ওপর গুলি চালায়। ওয়াজকরনি মিয়ার মাথায় ও আয়নাল হকে পিঠে গুলি লাগে। তাদের সঙ্গীরা মরদেহ বাংলাদেশ ভূ-খণ্ডে নিয়ে আসে।

ওয়াজকরনির মা শফিরন বেওয়া ডেইলি স্টারকে বলেন, আমি ছেলেকে অনেকবার নিষেধ করেছি যেন ভারতে না যায়। এখন আমার দুই নাতনির কী হবে! পরিবারে আমার ছেলেই একমাত্র আয় করতো।

আয়নালে স্ত্রী শরিফা বেগম ডেইলি স্টারকে বলেন, ভারত থেকে একটি গরু আনার জন্য তিনি ১০-১২ হাজার করে টাকা পেতেন। অনেকবার নিষেধ করেছি, এখন আমি ছেলেকে নিয়ে কীভাবে বাঁচবো!

ভেলাবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী ডেইলি স্টারকে বলেন, সীমান্ত এলাকায় সচেতনতামূলক প্রচারণার পরও কিছু মানুষ ভারতে যায় অবৈধভাবে গরু আনতে। নিহত দুজনের মরদেহ স্বজনের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। পুলিশকে জানানো হয়েছে।

কমান্ডার শরিফুল ইসলাম আরও বলেন, গুলি করে বাংলাদেশি হত্যার প্রতিবাদ জানিয়ে বিএসএফকে চিঠি দেওয়া হয়েছে।

Comments