খেলা

টেইলর-ভিসের নৈপুণ্যে জিতল খুলনা

ব্র্যান্ডন টেইলর, ডেভিড ভিসে এনে দিয়েছিলেন চ্যালেঞ্জিং পূঁজি। নিকোলাস পুরান আর মোহাম্মদ নাওয়াজের রুদ্রমূর্তিতে সেই রান টপকানোর আশা দেখেছিল সিলেট সিক্সার্স। তাদের থামিয়ে বল হাতেও ঝলক দেখিয়েছেন ভিসে। তলানির দুই দলের লড়াইয়ে তাই হেসেছে মাহমুদউল্লাহর খুলনা টাইটান্স।
ছবি: ফিরোজ আহমেদ

ব্র্যান্ডন টেইলর, ডেভিড ভিসে এনে দিয়েছিলেন চ্যালেঞ্জিং পূঁজি। নিকোলাস পুরান আর মোহাম্মদ নাওয়াজের রুদ্রমূর্তিতে সেই রান টপকানোর আশা দেখেছিল সিলেট সিক্সার্স। তাদের থামিয়ে বল হাতেও ঝলক দেখিয়েছেন ভিসে। তলানির দুই দলের লড়াইয়ে তাই হেসেছে মাহমুদউল্লাহর খুলনা টাইটান্স।

বুধবার মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে চট্টগ্রাম পর্বের আগে শেষ ম্যাচে মানুষের আগ্রহ ছিল কম। তলানির দুদলের লড়াইয়ে খুলনা টাইটান্সের ১৭০ রানের জবাবে সিলেট সিক্সার্স পুরো ২০ ওভার খেলে থামে ১৪৯ রানে।

এই নিয়ে নবম ম্যাচে এসে দ্বিতীয় জয়ের দেখা পেল খুলনা। আট ম্যাচে সমান জয় সিলেটেরও।

বড় রান তাড়ায় শুরুতেই বিপর্যয়ে পড়ে সিলেট। শুভাশিস রায়ের করা ইনিংসের প্রথম বলেই ইনসাইড এজে বোল্ড হয়ে যান লিটন দাস। তার সঙ্গে নামা সাব্বির রহমানও পারেননি। নিউজিল্যান্ড সফরের দলে ফেরা এই ব্যাটসম্যান ১২ বলে ১৩ করেই থামান দৌঁড়।

বোলিংয়ে ঝলক দেখানো অলক কাপালী নেমেছিলেন চারে। তাইজুল ইসলামের স্পিনে ক্যাচ তুলে দিয়ে ১১ রান করে বিদায় নেন তিনি। ওয়ানডাউনে নেমে থিতু হয়ে গিয়েছিলেন আফিফ হোসেন। ইনিংস বড় করতে না পেরেও তিনি থামেন তাইজুলের বলে।

নবম ওভারে ৫৬ রান তুলতেই চার উইকেট হারানো সিক্সার্সের তখন ম্যাচ থেকে ছিটকে যাওয়ার দশা। সেখান থেকে পালটা আক্রমণে পরিস্থিতি অনুকূলে নিয়ে আসেন মোহাম্মদ নাওয়াজ ও নিকোলাস পুরান।

পঞ্চম উইকেটে দুজনে মিলে উজ্জ্বল করে ফেলেছিলেন সিক্সার্সের আশা। দুজনের ৫১ বলে ৮৫ রানের জুটিতে ম্যাচ চলে এসেছিল মুঠোয়। পুরান ২১ বলে ২৮ রান আর নাওয়াজ ৩৪ বলে ৫৪ করে আউট হয়ে গেলে আর কোন আশা থাকেনি সিলেটের। 

টস জিতে খুলনা টাইটান্সকে ব্যাট করতে পাঠিয়ে যেন আফসোস করার অবস্থা সিলেট সিক্সার্সের। নেমেই পাওয়ার প্লেতে ঝড় তুলেন খুলনার দুই ওপেনার ব্র্যান্ডন টেইলর আর জুনায়েদ সিদ্দিক। পাওয়ার প্লেতেই স্কোর পেরিয়ে যায় ৭০।

তখন মনে হচ্ছিল খুলনা আজ ছাড়িয়ে যাবে দুশো। কিন্তু এরপরই হোঁচট খায় তারা। অলক কাপালী এসে বদলে দেন ম্যাচের চেহারা। ঝড় তোলা জুনায়েদকে তোলে নেওয়ার পর মোহাম্মদ নাওয়াজ এসে পর পর আউট করে দেন আল-আমিন আর নাজমুল হোসেন শান্তকে।

এক পাশে তখনো আগ্রসী খেলে যাচ্ছিলেন টেইলর। তাকেও থামান অলক। অলকের লেগ স্পিনে পরে কাবু হয়ে ফেরেন মাহমুদউল্লাহ আর আরিফুল হকও।

হুট পথ হারিয়ে তখন আবার উলটোরথে খুলনা। সেখান থেকে আবার দলকে পথে ফেরানোর চেষ্টা করেন ডেভিড ভিসে।

মূলত তার ২৫ বলে ৩৮ রানের ইনিংসে ১৭০ পর্যন্ত যেতে পারে খুলনা।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

খুলনা টাইটান্স:  ২০ ওভারে ১৭০/৯ (টেইলর ৪৮, জুনায়েদ ৩৩, আল-আমিন ২, শান্ত ১৭, মাহমুদউল্লাহ ৩, আরিফুল ০, ভিসে ৩৮ , ইয়াসির ৮, তাইজুল ৯*, জুনায়েদ ০ ; তানভীর ০/২৮, তাসকিন ২/৩৫, ইরফান ০/৩৭, নাওয়াজ ২/২৬, নাসির ০/১৯, অলক ৪/২২)

সিলেট সিক্সার্স: ২০ ওভারে ১৪৯/৭ (লিটন ০, সাব্বির ১৩, আফিফ , অলক ১১, নাওয়াজ ৫৪, পুরান ২৮, তানভীর ৫, জাকের ২* , নাসির  ০* ; শুভাশিস ১/৪০, জুনায়েদ ১/২৮, ইয়াসির ১/১৪, তাইজুল ৩/৩২, ভিসে ১/২৪, মাহমুদউল্লাহ ০/৯ )   

ফল: খুলনা টাইটান্স  ২১ রানে জয়ী।

Comments

The Daily Star  | English

The taste of Royal Tehari House: A Nilkhet heritage

Nestled among the busy bookshops of Nilkhet, Royal Tehari House is a shop that offers students a delectable treat without burning a hole in their pockets.

2h ago