শীর্ষ খবর

নির্বাচন কমিশন সুষ্ঠু নির্বাচন দাবি করলেই যে তা সুষ্ঠু হয়ে যাবে এমন কোনো কথা নেই: মাহবুব তালুকদার

নির্বাচন কমিশন সুষ্ঠু নির্বাচন দাবি করলেই যে তা সুষ্ঠু হয়ে যাবে এমন কোনো কথা নেই বলে মন্তব্য করেছেন নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার।
mahbub talukder
নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার। ছবি: সংগৃহীত

নির্বাচন কমিশন সুষ্ঠু নির্বাচন দাবি করলেই যে তা সুষ্ঠু হয়ে যাবে এমন কোনো কথা নেই বলে মন্তব্য করেছেন নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার।

আজ (৩১ জানুয়ারি) রাজধানীতে উত্তর ও দক্ষিণ ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তাদের ব্রিফিংকালে তিনি এই মন্তব্য করেন।

এসময় তিনি বলেন, “নির্বাচন গ্রহণযোগ্য ও বিশ্বাসযোগ্য করার বিষয়ে আমি সবসময় গুরুত্বারোপ করেছি। এই গ্রহণযোগ্যতা ও বিশ্বাসযোগ্যতা অবশ্যই দৃশ্যমান হতে হবে। নির্বাচন কমিশন সুষ্ঠু নির্বাচন দাবি করলেই যে তা সুষ্ঠু হয়ে যাবে এমন কোনো কথা নেই। জনতার চোখ বলে একটা কথা আছে। আমাদের ও আপনাদের সকল কর্মকাণ্ড জনতার চোখে পরীক্ষিত হবে। সুতরাং যথার্থ একটি গ্রহণযোগ্য ও বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন করার জন্য আপনাদের সবাইকে অঙ্গীকারাবদ্ধ হতে হবে।”

“আমার বক্তৃতায় আমি নাতিশীতোষ্ণ শব্দটির ওপর গুরুত্বারোপ করতে চাই। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের যে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে তাকে আমি নাতিশীতোষ্ণ নির্বাচন বলি। এই নির্বাচনে মেয়র পদে যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হওয়ার কথা ছিলো, যে উত্তাপ ও উষ্ণতা থাকার কথা ছিলো এখন পর্যন্ত অবস্থাদৃষ্টে মনে হয় তা হবে না। কেবল কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় কিছুটা উষ্ণতা আশা করা যায়। আসন্ন নির্বাচনের শৈত্যপ্রবাহ তাতে কেটে যাবে বলে আশা করা যায়,” যোগ করেন তিনি।

মাহবুব তালুকদার আরও বলেন, “গত উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের সময় প্রধান বিরোধী প্রার্থী নির্বাচনে সমান সুযোগ না থাকার কথা বলে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেন। যদিও সত্যিকার অর্থে এবারের নির্বাচনে মেয়র পদে প্রধান বিরোধী দলের কোনো প্রার্থী নেই। তবুও নির্বাচনে অনিয়মের কথা বলে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের ঘটনা যে ঘটবে না তা বলা যায় না। এক্ষেত্রে আমাদের উচিত হবে একটি সুদ্ধ আইনানুগ নির্বাচন করা, যাতে নির্বাচনকে কেউ প্রশ্নবিদ্ধ করার সুযোগ না পান।”

তার সাম্প্রতিক ভারত সফরের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, “কয়েকদিন পূর্বে আমি ভারতে ছিলাম। সেখানে একটি পত্রিকায় নির্বাচনী ব্যবস্থাপনা নিয়ে লেখা একটি আর্টিকেল পড়ি। তাতে দু’একটি ঘটনার উল্লেখ করা হয়েছিলো। এতে লক্ষ্য করা যায়, নির্বাচনী দায়িত্বে যারা নিয়োজিত সেই নির্বাচনী কর্মকর্তাগণ নির্বাচন সুষ্ঠু করার বিষয়ে অনড়, কোনো কোনো ক্ষেত্রে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের অনিয়ম সম্পর্কে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করতে তারা পেছপা হননি। আমাদের প্রতিবেশী ভারত যে অনেক বৈপরীত্য সত্ত্বেও গণতন্ত্রের অভিযাত্রা সমুন্নত রেখেছে, তার পেছনে ভারতীয় নির্বাচন কমিশনের অবদান কম নয়।”

“বিগত একাদশ জাতীয় নির্বাচনের তথ্য উপাত্ত নিয়ে আমি কিছুটা পড়াশোনার চেষ্টা করছি। এর অভিজ্ঞতা কিঞ্চিৎ আপনাদের সঙ্গে শেয়ার করতে পারি, যা আপনাদের সহায়ক হতে পারে। আমাদের নির্বাচনী ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব মূলত দুই প্রধান শক্তির ওপর নির্ভরশীল। একদিকে নির্বাচন কর্মকর্তা বা নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও অন্যদিকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। আমি এখন পর্যন্ত যেসব কাগজপত্র দেখছি, তাতে রিটার্নিং অফিসার থেকে শুরু করে পর্যবেক্ষক পর্যন্ত সকলের প্রতিবেদনে দুটি শব্দ অতিমাত্রায় ব্যবহৃত হয়েছে। একটি শব্দ ‘সন্তোষজনক’ এবং অন্য শব্দটি ‘স্বাভাবিক’। তার মানে কি আপনাদের নির্বাচন খুবই সন্তোষজনক হয়েছে? এ ক্ষেত্রে পাবলিক পারসেপশন কী, তা নিজেদেরকেই জিজ্ঞাসা করতে হবে।”

“নির্বাচন কমিশনে আমার গত দুই বছরের অভিজ্ঞতা বলে বিভিন্ন প্রতিবেদনে, বিশেষত নিজস্ব পর্যবেক্ষকদের প্রতিবেদনে সাধারণত কোনো নেতিবাচক বিষয় লিপিবদ্ধ করতে আমরা যেনো দ্বিধান্বিত। সবাই যেনো কাগজপত্রে গা বাঁচিয়ে চলতে চান। কেউ যদি তথ্য উপাত্ত দিয়ে আমার কথার বিরোধিতা করেন তাহলে আমি খুশি হবো। আমি মনে করি, নির্বাচনের প্রকৃত চিত্রটিই সকল প্রতিবেদনে উঠে আসা উচিত।”

নির্বাচন কমিশন একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান- সে কথা উল্লেখ করে নির্বাচন কমিশনার আরও বলেন, “সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানের সম্মান ও মর্যাদা এর কার্যক্রমের ওপর নির্ভর করবে। এর সম্মান ও মর্যাদা সমুন্নত রাখতে শুধু নির্বাচন কমিশন নয়, নির্বাচন কমিশন সচিবালয়সহ মাঠ পর্যায়ের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দায়িত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। সকল প্রার্থীর প্রতি সম আচরণের মধ্য দিয়ে প্রতিষ্ঠানের সম্মান মর্যাদা ও পবিত্রতা অক্ষুণ্ণ রাখতে আমরা বদ্ধ পরিকর।”

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র পদপ্রার্থীদের এবং দুই সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর পদপ্রার্থীদের আসন্ন নির্বাচনের বিশেষ তাৎপর্য রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, “জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানের পর ঢাকার এই নির্বাচনের দিকে দেশবাসী, এমনকি উন্নয়ন সহযোগীরাও তাকিয়ে আছে। আমরা কী ধরণের নির্বাচন উপহার দেই তা দেখার জন্য। নির্বাচনকালে আমরা কোনো চাপ, কোনো ভয়-ভীতি, প্রলোভনের কাছে নতি স্বীকার করবো না। রবীন্দ্রনাথ বলেছেন, ‘অন্যায় যে করে আর অন্যায় যে সহে, তব ঘৃণা তারে যেন তৃণসম দহে।’ এই আপ্তবাক্যটি মনে করে আগামী উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে অবশ্যই সর্বাঙ্গ সুন্দর ও সুষ্ঠুভাবে রাজধানীবাসীকে উপহার দিতে হবে।”

Comments

The Daily Star  | English

Dhaka denounces US 2023 human rights report

Criticising the recently released US State Department's 2023 Human Rights Report, the foreign ministry today said it is apparent that the report mostly relies on assumptions and unsubstantiated allegations

16m ago