শেখ জামালের জয়ে নাসিরের সেঞ্চুরি

সময়টা ভালো যাচ্ছিল না নাসির হোসেনের। উইকেটে সেট হলেও ইনিংস বড় করতে পারছিলেন না। গ্রুপ পর্বে প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাবের বিপক্ষে চলতি আসরের সর্বোচ্চ ৭৬ রানের ইনিংসটা খেলেছিলেন। এদিন আবার সেই প্রাইম ব্যাংককে পেয়েই জ্বলে উঠলেন তিনি। করলেন দারুণ এক সেঞ্চুরি। তাতেই ৬ উইকেটের জয় নিয়ে সুপার লিগে শুভ সূচনা করেছে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব।
ছবি: ফিরোজ আহমেদ

সময়টা ভালো যাচ্ছিল না নাসির হোসেনের। উইকেটে সেট হলেও ইনিংস বড় করতে পারছিলেন না। গ্রুপ পর্বে প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাবের বিপক্ষে চলতি আসরের সর্বোচ্চ ৭৬ রানের ইনিংসটা খেলেছিলেন। এদিন আবার সেই প্রাইম ব্যাংককে পেয়েই জ্বলে উঠলেন তিনি। করলেন দারুণ এক সেঞ্চুরি। তাতেই ৬ উইকেটের জয় নিয়ে সুপার লিগে শুভ সূচনা করেছে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব।

অবশ্য জয়ের ভিতটা তাদের গড়ে দিয়েছিলেন বোলাররাই। দারুণ বোলিং করে তাদের গুটিয়ে দিয়েছেন ২৩৬ রানে। সে লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ইমতিয়াজ হোসেনের সঙ্গে ওপেন করতে নামেন ইলিয়াস সানি। গড়েন ৪৫ রানের জুটি। তৃতীয় উইকেটে নাসিরের সঙ্গেও গড়েন ৯৩ রানের দারুণ এক জুটি। এরপর ইলিয়াস আউট হলে দায়িত্ব নেন নাসির। ৮ বল বাকী থাকতে দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দিয়ে মাঠ ছাড়েন তিনি।

লিস্ট এ ক্যারিয়ারের ষষ্ঠ সেঞ্চুরি তুলে ১১২ রানে অপরাজিত থাকেন নাসির। ১১০ বলে ১২টি চার ও ৩টি ছক্কার সাহায্যে এ রান করেন তিনি। এছাড়া ৬৭ রান করেন ইলিয়াস। ১০৪ বলে ৪টি চার ও ১টি ছক্কায় এ রান করেন এ অলরাউন্ডার। শেখ জামালের পক্ষে নাহিদুল ইসলাম ও আব্দুর রাজ্জাক ২টি করে উইকেট পান।

এর আগে ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ইনফর্ম ব্যাটসম্যান এনামুল হক বিজয়কে হারায় প্রাইম ব্যাংক। তবে দ্বিতীয় উইকেটে আরেক ওপেনার রুবেল মিয়াকে নিয়ে দলের হাল ধরেন ভারতীয় রিক্রুট নামান ওঝা। গড়েন ১২০ রানের দারুণ এক জুটি। কিন্তু এ জুটি ভাঙতেই তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে প্রাইম ব্যাংকের লাইনআপ। আট নম্বরে নেমে আরিফুল হক ছাড়া আর কোন ব্যাটসম্যানই হাল ধরতে পারেননি। ফলে ৪৮.৩ ওভারে ২৩৬ রান করে গুটিয়ে যায় দলটি।

দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৭৪ রানের ইনিংস খেলেন আরিফুল। ৫১ বলের ইনিংসে চারের চেয়ে ছক্কা মারার দিকেই মনযোগী ছিলেন এ অলরাউন্ডার। ২টি চারের সঙ্গে ছক্কা মেরেছেন ৭টি। এছাড়া ৯৫ বলে ৬টি চার ও ১টি ছক্কায় ৯৫ রান করেন রুবেল মিয়া। ওঝার ব্যাট থেকে আসে ৪৬ রান। শেখ জামালের পক্ষে ৩টি করে উইকেট নিয়েছেন ইলিয়াস সানি ও তানবির হায়দার। ২টি উইকেট পান সালাউদ্দিন শাকিল। 

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব: ৪৮.৩ ওভারে ২৩৬ (বিজয় ০, রুবেল ৬৬, ওঝা ৪৬, আল-আমিন ৬, নাহিদুল ০, নাঈম ১, আরিফুল ৭৪, মনির ১৪, রাজ্জাক ১৪, আল-আমিন হোসেন ০*; খালেদ ১/৩১, শাকিল ২/৩৭, তাইজুল ০/২৭, নাসির ০/৩৫, ইলিয়াস ৩/৩৫, তানবির ৩/৪৩, এনামুল ১/২৯)।

শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব: ৪৮.৪ ওভারে ২৩৯/৪ (ইমতিয়াজ ২৬, ইলিয়াস ৬৭, মুনাবিরা ১২, নাসির ১১২*, সোহান ৫, তানবির ১২*; আল-আমিন হোসেন ০/২৪, মনির ০/৬১, নাহিদুল ২/৩০, রাজ্জাক ২/৫২, নাঈম ০/৩১, কাপালী ০/৩১, আল-আমিন ০/১০)।

ফলাফল: শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব ৬ উইকেটে জয়ী।

ম্যান অব দ্য ম্যাচ: ইলিয়াস সানি (শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব)।

Comments

The Daily Star  | English

Shanir Akhra turns into warzone

Panic as locals join protesters in clash with cops; Hanif Flyover toll plaza, police box set on fire; dozens feared hurt

1h ago