ব্রুনাইয়ের পথে প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ব্রুনাই দারুসসালামের সুলতান হাজী হাসানাল বলকিয়ার আমন্ত্রণে তিনদিনের সরকারি সফরে আজ (২১ এপ্রিল) সকালে ব্রুনাইয়ের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেছেন।
২১ এপ্রিল ২০১৯, ব্রুনাইয়ে যাওয়ার প্রাক্কালে ঢাকায় হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: বাসস

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ব্রুনাই দারুসসালামের সুলতান হাজী হাসানাল বলকিয়ার আমন্ত্রণে তিনদিনের সরকারি সফরে আজ (২১ এপ্রিল) সকালে ব্রুনাইয়ের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেছেন।

প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর সফর সঙ্গীদের নিয়ে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি বিশেষ ফ্লাইট সকালে ৮টা ২৫ মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ব্রুনাইর উদ্দেশে যাত্রা করে।

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী একেএম মোজাম্মেল হক, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান, বেসামরিক বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী, মন্ত্রীপরিষদ সচিব মোহাম্মদ সফিউল আলম, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান, বিমান বাহিনী প্রধান, ভারপ্রাপ্ত সেনাবাহিনী প্রধান এবং নৌবাহিনী প্রধান বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানান।

বিমানটি ব্রুনাইয়ের স্থানীয় সময় দুপুর পৌনে ৩টায় দেশটির রাজধানী শহর বন্দর সেরি বেগাওয়ানে পৌঁছবে। ব্রুনাইয়ের যুবরাজ হাজী আল-মংহতাদী বিল্লাহ বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানাবেন।

বিমানবন্দরে আনুষ্ঠানিকতা শেষে প্রধানমন্ত্রীকে মোটর শোভাযাত্রা সহকারে এম্পায়ার হোটেল এন্ড কান্ট্রি ক্লাবে নেওয়া হবে। সফরকালে তিনি এই হোটেলে অবস্থান করবেন।

সফরকালে বাংলাদেশ বিভিন্ন খাতে ব্রুনাইয়ের সঙ্গে সাতটি সমঝোতা স্মারকে সাক্ষর করবে।

এর আগে গত ১৮ এপ্রিল পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন এক প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, “আমরা ইতোমধ্যেই বিভিন্ন খাতে ছয়টি এমওইউ চূড়ান্ত করেছি। একটি এমওইউ বিবেচনাধীন রয়েছে। আমরা বাংলাদেশে ব্রুনাইয়ের বিনিয়োগ আশ্বাস পাওয়ার বিষয়ে আশাবাদী।”

চূড়ান্ত এমওইউগুলো হচ্ছে: কৃষি, মৎস্য, পশু সম্পদ, যুব ও ক্রীড়া, সংস্কৃতি ও জ্বালানি খাতে সহায়তা ও সহযোগিতা।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন বলেন, আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার ব্রুনাই। দেশটি ওআইসি এবং আসিয়ানের সদস্য। এ সফরকালে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীদের নিরাপদে প্রত্যাবাসনের বিষয়টি নিয়ে ব্রুনাইয়ের সঙ্গে আলোচনা হবে।

Comments