কারওয়ান বাজারে হঠাৎ ক্রেতার ভিড়

পবিত্র রমজান মাসের চাঁদ দেখা যাওয়ার খবর পাওয়ার পর পরই ক্রেতাদের ভিড় দেখা গেছে রাজধানীর সবচেয়ে বড় পাইকারি বাজার কারওয়ান বাজারে। ছোলা, মুড়ির মতো ইফতারির প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দোকানগুলোতে যেন উপচে পড়ছিলেন ক্রেতারা।
কারওয়ান বাজারে উপচে পড়া ক্রেতার ভিড়। ছবি: শাহীন মোল্লা

পবিত্র রমজান মাসের চাঁদ দেখা যাওয়ার খবর পাওয়ার পর পরই ক্রেতাদের ভিড় দেখা গেছে রাজধানীর সবচেয়ে বড় পাইকারি বাজার কারওয়ান বাজারে। ছোলা, মুড়ির মতো ইফতারির প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দোকানগুলোতে যেন উপচে পড়ছিলেন ক্রেতারা।

সরেজমিনে দেখা যায়, দিনের আলো ফুরিয়ে আসতেই কারওয়ান বাজারের রাস্তার দুই ধারেই প্রচুর গাড়ি পার্ক করা। রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে এদিন লোকজন এসেছিলেন বাজার করতে। বিশেষ করে ইফতার পণ্য ছোলা, মুড়ি, মসলার দোকান ও কাঁচা বাজারের ভিড় ছল লক্ষণীয়। অনেককেই ব্যাগ ভরে পুরো সপ্তাহের বাজার করে নিয়ে গেছেন এক দিনেই।

কারওয়ান বাজার কিচেন মার্কেটে ঢোকার পাঁচটি প্রবেশ পথ রয়েছে। কিন্তু হঠাৎ করে প্রচুর মানুষ বাজারে ঢুকে পড়ায় এক পর্যায়ে চলাচল করাই কঠিন হয়ে পড়ে। সেই সঙ্গে তীব্র গরম ভোগান্তি বাড়িয়েছে ক্রেতাদের। 

কাঠালবাগানের বাসিন্দা সালাউদ্দিন বলেন, আগামীকাল থেকে রোজা শুরু হবে এটা আগে থেকেই ধারণা ছিল। কিন্তু আসবো আসবো করেও অলসতা করেই বাজার করা হয়নি। কাঠালবাগানে বাজার থাকলেও এখানে আসার কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে বললেন, স্থানীয় দোকানগুলোতে শাক, সবজি, মাংসের দাম কেজি প্রতি ২০টা পর্যন্ত বেশি। রমজান উপলক্ষে পুরো সপ্তাহের বাজার করার ইচ্ছা থাকায় এখানে এসেছিলেন। তবে সে আশায় গুড়ে বালি। এখানেও এবার মাছ মাংসের দাম তুলনামূলকভাবে বেশি বলে অভিযোগ করেন তিনি।

কারওয়ান বাজারে মূলত পাইকারি বিকিকিনি হয় বেশি। কিন্তু এদিন পাইকারি বাজারটি ছিল মূলত খুচরা ক্রেতাদের দখলে। রমজানের প্রথম দিন প্রতিবেশী ও আত্মীয় স্বজনদের ইফতারের দাওয়াত দেওয়ার রেওয়াজ থাকায় এধরনের ক্রেতাদেরও দেখা মেলে এদিন কারওয়ান বাজারে। দেখা গেল প্রকাণ্ড দুই বস্তা মুড়ি কিনে পিক আপ ভ্যানে তুলছেন এক ব্যক্তি।

তবে এই ভিড়কে অস্বাভাবিক মানতে রাজি নন ইউসুফ জেনারেল স্টোরের স্বত্বাধিকারী মো. ইউসুফ। এই মুদি দোকানদার বললেন, প্রতি বছরই রোজার আগের দিন এমনই হয়। ঈদের দু-একদিন আগেও প্রচুর ক্রেতা সমাগম হয় কারওয়ান বাজারে। তবে আজ যা বিক্রি বাট্টা হয়েছে সেটাকেই বছরের সেরা মানছেন ইউসুফ।

Comments

The Daily Star  | English

Medium of education should be mother language: PM

Prime Minister Sheikh Hasina today said that the medium for education in educational institutions should be everyone's mother tongue.

2h ago