যুক্তরাষ্ট্রের জিএসপি সুবিধা প্রত্যাহার করাকে ‘দুর্ভাগ্যজনক’ বলল ভারত

ভারতকে দেওয়া জিএসপি সুবিধা প্রত্যাহার করে নিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। ট্রাম্প প্রশাসনের এই সিদ্ধান্তের প্রতিক্রিয়ায় নয়াদিল্লি বলেছে, ভারত সব সময় তার জাতীয় স্বার্থ রক্ষা করবে। আমাদের দেশের মানুষ সব সময় আরও ভালোভাবে বাঁচতে চায়। সেটিকে মাথায় রেখেই ভারত সরকারের নীতি নির্ধারিত হবে।
রয়টার্স ফাইল ছবি

ভারতকে দেওয়া জিএসপি সুবিধা প্রত্যাহার করে নিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। ট্রাম্প প্রশাসনের এই সিদ্ধান্তের প্রতিক্রিয়ায় নয়াদিল্লি বলেছে, ভারত সব সময় তার জাতীয় স্বার্থ রক্ষা করবে। আমাদের দেশের মানুষ সব সময় আরও ভালোভাবে বাঁচতে চায়। সেটিকে মাথায় রেখেই ভারত সরকারের নীতি নির্ধারিত হবে।

মার্কিন সরকারের এই পদক্ষেপকে ‘দুর্ভাগ্যজনক’ বলেও উল্লেখ করেছে ভারতীয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। শনিবার নয়াদিল্লি থেকে বিবৃতিতে বলা হয়,  দুই পক্ষই যাতে সমান সুযোগসুবিধা পায়, সে জন্য সমাধানও বের করেছিল ভারত। কিন্তু দুর্ভাগ্যের বিষয় মার্কিন সরকার তা গ্রহণ করেনি।

মার্কিন রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, আমেরিকা ভারতকে যে ধরনের সাহায্য দেয় তার পাল্টা কোনো কিছু দেওয়ার কথা ভাবেনি নয়াদিল্লি।

হুয়াওয়েওর সঙ্গে ব্যবসা গুটিয়ে নিতে গুগলকে বাধ্য করা নিয়ে চীনের সঙ্গে ‘বাণিজ্যযুদ্ধ’ তিক্ত হয়ে ওঠার মধ্যেই ভারতের জিএসপি সুবিধা প্রত্যাহারের ঘোষণা দিলেন ট্রাম্প।

জেনারালাইজড সিস্টেম অফ প্রেফেরেন্স বা জিএসপি সুবিধার মাধ্যমে আমেরিকায় পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে নানা ধরনের সুযোগ পেত ভারত। এখন মার্কিন প্রশাসনের বলছে এতদিন বাণিজ্য সুবিধা দিয়ে গেলেও ভারতের দিক থেকে তাদের প্রাপ্তি ছিল শূন্য। তাই এই প্রক্রিয়াটি সমাপ্ত করার পথেই এখন তারা হাঁটছে।

অন্যদিকে ভারতের সংবাদ সংস্থা পিটিআই বলছে, ভারতকে জিএসপি ব্যবস্থাপনার বাইরে রাখায় আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে আমেরিকা। পরিমাণটা বছরে প্রায় ৩০০ মিলিয়ন ডলার।

জিএসপি সুবিধা ব্যবহার করে ২০১৭ সালে মোট ৫ দশমিক ৭ বিলিয়ন ডলারের পণ্য যুক্তরাষ্ট্রে রপ্তানি করেছে ভারত। এতে বছরে প্রায় ১৯০ মিলিয়ন ডলার শুল্ক ছাড় পেয়েছে তারা। ১৯৭৬ সাল থেকে যুক্তরাষ্ট্র এই সুবিধা দিয়ে এসেছে ভারতকে। এবার সেই পথ বন্ধ হচ্ছে।

 

Comments

The Daily Star  | English

No train operations until 'situation improves'

Bangladesh Railway (BR) will not resume operation of passenger trains until the “situation improves,” Railways Minister Zillur Hakim told The Daily Star today

13m ago