ট্রাম্পের উচ্চ-প্রশংসায় কিম

আবারও একে অপরের প্রশংসার মজেছেন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং-উন। চলতি মাসের প্রথমার্ধে ট্রাম্প প্রশংসা করেছিলেন কিমের আর শেষার্ধে ট্রাম্পের প্রশংসা এলো কিমের মুখ থেকে।
Kim Jong-un
২২ জুন ২০১৯, কোরিয়ান সেন্ট্রাল নিউজ এজেন্সির ছবিতে দেখা যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্পের চিঠি পড়ছেন উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং-উন। ছবি: রয়টার্স

আবারও একে অপরের প্রশংসার মজেছেন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং-উন। চলতি মাসের প্রথমার্ধে ট্রাম্প প্রশংসা করেছিলেন কিমের আর শেষার্ধে ট্রাম্পের প্রশংসা এলো কিমের মুখ থেকে।

পিয়ংইয়ংয়ের সরকারি মুখপত্র কোরিয়ান সেন্ট্রাল নিউজ এজেন্সির (কেসিএনএ) বরাত দিয়ে দ্য কোরিয়ান হেরাল্ড আজ (২৪ জুন) এ কথা জানায়। বলা হয়, ট্রাম্পের চিঠি পড়ে কিম বেশ সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন।

কেসিএনএ’র তিন বাক্যের এক সংক্ষিপ্ত প্রতিবেদনে জানানো হয়, রাষ্ট্রপতি ট্রাম্পের অতুলনীয় সাহস এবং রাজনৈতিক প্রজ্ঞার উচ্চ-প্রশংসা করেছেন কিম।

এর মাধ্যমে আরো জানা যায় যে ট্রাম্প উত্তর কোরিয়ার কিমের কাছে যে চিঠি লিখেছেন সেই চিঠির ‘চমকপ্রদ’ অংশগুলোকে গুরুত্ব দিতে চান ‘ছোট্ট রকেট ম্যান’।

ধারণা করা হচ্ছে, গত ১১ জুন ট্রাম্পের কাছে লেখা কিমের ‘সুন্দর’ ও ‘আন্তরিক’ চিঠির উত্তর হিসেবে নতুন চিঠিটি পাঠিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি।

কিমের চিঠি হাতে পাওয়ার পর ট্রাম্প সেসময় মন্তব্য করেছিলেন যে ‘খুব ইতিবাচক কিছু একটি হতে যাচ্ছে।’

দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রপতির কার্যালয় ‘চেওং ওয়া দাই’ থেকে আজ বলা হয়, দুই দেশের মধ্যে চিঠি চালাচালির ঘটনাটি উত্তর কোরিয়ার পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ আলোচনা চালিয়ে যাওয়ার জন্যে একটি ইতিবাচক পদক্ষেপ।

রাষ্ট্রপতির মুখপাত্র কোহ মিন-জুং সাংবাদিকদের এক লিখিত বার্তায় জানান, “যুক্তরাষ্ট্র এবং উত্তর কোরিয়ার নেতাদের মধ্যে চিঠি দেওয়া-নেওয়ার ঘটনাটিকে দক্ষিণ কোরিয়ার সরকার ইতিবাচকভাবে দেখছে এবং আশা করা হচ্ছে এর ফলে দেশ দুটির মধ্যে আলোচনার পরিবেশ সৃষ্টি হবে।”

ট্রাম্প প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যমে দক্ষিণ কোরিয়া কিমের কাছে ট্রাম্পের চিঠি পাঠানোর খবরটি জেনেছে বলেও জানান সেই মুখপাত্র।

আরো পড়ুন:

ট্রাম্পকে ‘চমৎকার’ চিঠি লিখেছেন কিম

Comments

The Daily Star  | English

International Mother Language Day: Languages we may lose soon

Mang Pru Marma, 78, from Kranchipara of Bandarban’s Alikadam upazila, is among the last seven speakers, all of whom are elderly, of Rengmitcha language.

8h ago