মুশফিকের ফিফটি, মিঠুনের আক্ষেপের পর জিতল বাংলাদেশ

বল হাতে রুবেল হোসেনের দুর্ধর্ষ শুরুর ঝাঁজ দাসুন শানাকার ঝড়ে শেষে গিয়ে আর রাখা যায়নি। তবে বড় লক্ষ্য পেয়ে ব্যাট হাতে জ্বলে উঠলেন মুশফিকুর রহিম আর মোহাম্মদ মিঠুন। দ্রুত ফিফটি তোলে মুশফিক প্রস্তুতি সারার পর সেঞ্চুরির সুযোগ হাতছাড়া করেছেন মিঠুন। তবে ওয়ানডে সিরিজের আগে একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচে বাংলাদেশ পেয়েছে স্বস্তির জয়।
ছবি: এএফপি

বল হাতে রুবেল হোসেনের দুর্ধর্ষ শুরুর ঝাঁজ দাসুন শানাকার ঝড়ে শেষে গিয়ে আর রাখা যায়নি। তবে বড় লক্ষ্য পেয়ে ব্যাট হাতে জ্বলে উঠলেন মুশফিকুর রহিম আর মোহাম্মদ মিঠুন। দ্রুত ফিফটি তোলে মুশফিক প্রস্তুতি সারার পর সেঞ্চুরির সুযোগ হাতছাড়া করেছেন মিঠুন। তবে ওয়ানডে সিরিজের আগে একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচে বাংলাদেশ পেয়েছে স্বস্তির জয়।

মঙ্গলবার কলম্বোর পি সারা ওভালে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড প্রেসিডেন্ট একাদশের দেওয়া ২৮৩ রানের লক্ষ্য তামিম ইকবালের দল পেরিয়েছে  ১১ বল হাতে রেখে, জিতেছে ৫ উইকেটে। দলের হয়ে মিঠুন করেন ৯১, মুশফিক ৫০।

লক্ষ্যটা ২৮৩ রানের। উইকেট বিচারে খুব আহামরি কিছু নয়। কিন্তু তার জন্য চাই ভালো শুরু। সেই পথে শুরুটা মন্দ হয়নি বাংলাদেশের। দুই ওপেনার তামিম ইকবাল আর সৌম্য সরকার দেখেশুনেই ব্যাট করছিলেন।

দশম ওভারে গিয়ে ভাঙে তাদের জুটি। দলের ৪৫ রানে কিছুটা খোলসবন্দী হয়ে খেলা সৌম্য ফেরেন ১৩ রান করে। অধিনায়ক তামিম থিতু হয়ে সাবলীল ব্যাট চালাচ্ছিলেন। কিন্তু আরও একবার ইনিংস ডানা মেলতে পারেননি। ৪৭ বলে ৬ চারে ৩৭ রানেই থেমে যান তিনি।

এরপর ওয়ানডাউনে নামা মোহাম্মদ মিঠুনের সঙ্গে মুশফিকুর রহিমের গড়ে উঠে ৭৩ রানের জুটি। জুটিতে আগ্রাসী ব্যাট চালিয়ে অধিকাংশ রানই করেন মুশফিক। ৪৬ বলে ঠিক ৫০ করার পর ওয়াইন্দু হাসারাঙার বলে থামে মুশফিকের ইনিংস।

বিশ্বকাপে একাদশে জায়গা হারানো মিঠুন এরপর জ্বলে উঠে নেন ব্যাটল। সাকিব আল হাসান আর লিটন দাসের বিশ্রামে সুযোগ পেয়ে নিজেদের দাবিটা জানিয়ে রাখেন দারুণভাবে।

মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের সঙ্গে ৯৬ রানের জুটির পর সাব্বির রহমানকে নিয়ে গড়েন ৩৫ রানের আরও এক জুটি। তার ব্যাটে ম্যাচ জেতা হয়ে যায় অনেক সহজ। কিন্তু একটুর জন্য নিজে স্পর্শ করতে পারেননি তিন অঙ্ক। সেঞ্চুরি থেকে মাত্র ৯ রান আগে কাসুন রাজিতার বলে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন মিঠুন। ১০০ বলে ৯১ রানের ইনিংসে এই ডানহাতি মেরেছেন ১১ চার আর ১ ছক্কা।

শেষটাতে আঁচড় টেনে সাব্বিরও তার প্রস্তুতি সেরেছেন জুতসইভাবে। ২৬ বলে ৩১ করে অপরাজিত ছিলেন তিনি। সঙ্গী মোসাদ্দেক ১০ বলে করেন ১৫ রান।

আরও পড়ুন- রুবেলের ঝাঁজ, সৌম্যের ‘গোল্ডেন আর্মের’ পর দাসুনের ঝড়

এর আগে শ্রীলঙ্কা বোর্ড প্রেসিডেন্ট একাদশকে ব্যাট করতে পাঠিয়ে চেপে ধরেছিলেন রুবেল হোসেন। মোস্তাফিজুর রহমান, সৌম্য সরকাররাও জ্বলে উঠায় অল্প রানে গুটিয়ে যাওয়ার শঙ্কায় পড়েছিল স্বাগতিকরা। কিন্তু সাতে নেমে বাংলাদেশের বোলারদের উপর তাণ্ডব চালান দাসুন শানাকা। মাত্র ৬৩ বলে খেলেন ৮৬ রানের ইনিংস। তার ব্যাটেই লড়াইয়ের পূঁজি পেয়েছিল লঙ্কান বোর্ড প্রেসিডেন্ট একাদশ। তবে সেই পূঁজি যে বাংলাদেশের বেশ নাগালেই জুতসই প্রস্তুতিতে তা বুঝিয়ে দিয়েছেন মুশফিক-মিঠুনরা।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

শ্রীলঙ্কা বোর্ড প্রেসিডেন্ট একাদশ: ৫০ ওভারে ২৮২/৮ (ডিকভেলা ০, গুনাথিলেকা ২৬, ফার্নেন্দো ২, রাজাপাকসা ৩২, জয়াসুরিয়া ৫৬, পেরেরা ৭, দাসুন ৮৬*,  ডি সিকভা ২৮, ধনঞ্জয়া ৯, আপনসো ১৩*; রুবেল ২/৩২, তাসকিন ১/৫৭, মোস্তাফিজ ১/২৯,  মোসাদ্দেক ০/২৫, মিরাজ ০/২৫, মাহমুদউল্লাহ ০/১৫, সৌম্য ২/২৯, তাইজুল ০/৪২, ফরহাদ ১/২২)

বাংলাদেশ: ৪৮.১ ওভারে ২৮৫/৫ (তামিম ৩৭, সৌম্য ১৩, মিঠুন ৯১, মুশফিক ৫০, মাহমুদউল্লাহ ৩৩, সাব্বির ৩১* , মোসাদ্দেক ১৫* ; ফার্নেন্দো ০/২৫, রাজিতা ১/৫৭, গুনাথিলেকা ০/১৫, কুমারা ২/২৬, ধনঞ্জয়া ১/৪৭, আপনসো ০/৪৩ , হাসারাঙ্গা ১/৩৯, পেরেরা ০/১৭, দাসুন ০/১৪)

ফল: বাংলাদেশ ৫ উইকেটে জয়ী।

Comments

The Daily Star  | English

Lifting curfew depends on this Friday

The government may decide to reopen the educational institutions and lift the curfew in most places after Friday as the last weekend saw large-scale violence over the quota-reform protest.

10h ago