গুজব সরকারকে বিপদে ফেলার ষড়যন্ত্র কী-না, খতিয়ে দেখা হচ্ছে: কাদের

ছেলেধরা বিষয়ে সম্প্রতি সৃষ্টি গুজবগুলো সরকারকে বিপদে ফেলার চক্রান্ত কী-না, তা গভীরভাবে খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।
obaidul qader
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি

ছেলেধরা বিষয়ে সম্প্রতি সৃষ্টি গুজবগুলো সরকারকে বিপদে ফেলার চক্রান্ত কী-না, তা গভীরভাবে খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, “গুজব ছড়িয়ে দেশে অস্থিতিশীল, অস্বাভাবিক পরিস্থিতি সৃষ্টির চক্রান্ত কী-না, তার সঙ্গে কারো কোন যোগসাজশ আছে কী-না এবং সরকারকে বিপদে ফেলার চক্রান্ত কী-না, তা গভীরভাবে খতিয়ে ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে।”

আজ (২৪ জুলাই) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে সরকারের সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এ সব কথা বলেন।

কাদের বলেন, “আমরা দলীয়ভাবেও নির্দেশ দিয়েছি, দলের নেতারা যেন সতর্কতামূলক সভা ও সমাবেশ করে। গুজব থেকে গণপিটুনির মতো দুঃখজনক ঘটনাগুলো যেন না ঘটতে পারে সেজন্য দলীয়ভাবে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। এমপিরাও যার যার এলাকায় গিয়ে সভা সমাবেশ করবেন। চিফ হুইপের মাধ্যমে এ সংক্রান্ত নির্দেশও দেওয়া হয়েছে।”

“যারা গুজব সৃষ্টি করবে তাদের বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে” উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, “আইন হাতে নেওয়ার অধিকার কারও নেই। এটি অপরাধ-অপকর্ম।”

গুজবে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহ্বান জানিয়ে কাদের বলেন, “আপনারা কেউ আইন নিজের হাতে তুলে নেবেন না, গুজব ছড়াবেন না এবং অপপ্রচারে বিভ্রান্ত হবেন না। আইন অনুযায়ী যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অপরাধীরা যেই হোক প্রত্যেককে আইনের আওতায় আসতে হবে।”

ঢাকাসহ সারা দেশে ডেঙ্গুর ভয়াবহতা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে মন্ত্রী বলেন, “আমি এ বিষয়ে দুই মেয়রের সঙ্গে কথা বলেছি। তারা বলেছেন সচেতনতামূলক কাজ করছেন। দক্ষিণের মেয়র বলেছেন, ডেঙ্গুর ওষুধ কার্যকরী না। পরে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি। উনি বলেছেন, দ্রুততম সময়ের মধ্যে কার্যকরী ওষুধ দিবেন। প্রয়োজনে পার্শ্ববর্তী দেশ থেকে ওষুধ আনতে বলা হয়েছে।”

Comments

The Daily Star  | English

Quota protesters need to move the court, not the govt: PM

Hasina says protesters have to move the court, not the govt to resolve the issue, warns them against destructive activities

30m ago