জাবিতে মধ্যরাতে ছাত্রীদের বিক্ষোভ

দীর্ঘদিন ধরে হলে অব্যবস্থাপনা, আবাসিক শিক্ষকদের অশোভন আচরণের প্রতিবাদ ও সুষ্ঠু আসন বণ্টনের দাবিতে মধ্যরাতে আন্দোলনে নেমেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের ছাত্রীরা। হলের জ্যেষ্ঠ ও কনিষ্ঠ শিক্ষার্থীরা দু-দফায় বিক্ষোভ করেন।
ju photo
২৯ জুলাই ২০১৯, হলের আসন ও ক্যান্টিন সমস্যা সমাধানসহ হল প্রাধ্যক্ষের পদত্যাগের দাবিতে হলের সামনে অবস্থান নেন শিক্ষার্থীরা। ছবি: সংগৃহীত

দীর্ঘদিন ধরে হলে অব্যবস্থাপনা, আবাসিক শিক্ষকদের অশোভন আচরণের প্রতিবাদ ও সুষ্ঠু আসন বণ্টনের দাবিতে মধ্যরাতে আন্দোলনে নেমেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের ছাত্রীরা। হলের জ্যেষ্ঠ ও কনিষ্ঠ শিক্ষার্থীরা দু-দফায় বিক্ষোভ করেন।

এর আগে, রাত সাড়ে নয়টার দিকে হলের আসন ও ক্যান্টিন সমস্যা সমাধানসহ হল প্রাধ্যক্ষের পদত্যাগের দাবিতে হলের সামনে অবস্থান নেন শিক্ষার্থীরা। এসময় তারা সাত দফা দাবি জানায়।

গতকাল (২৯ জুলাই) রাত টায় সাত-দফা দাবি নিয়ে হলের সামনে বিক্ষোভ করেন হলের জ্যেষ্ঠ শিক্ষার্থীরা। এসময় শিক্ষার্থীরা ‘অশোভন’ আচরণের জন্য হলের প্রাধ্যক্ষ ও হাউজ টিউটরদেরকে জনসম্মুখে ক্ষমা চাওয়াসহ সিট বাতিল না করা, রুমে অতিরিক্ত আসন বরাদ্দ না করা, কনিষ্ঠ শিক্ষার্থীদের সুষ্ঠু আসন বরাদ্দ ও শিক্ষার্থীবান্ধব ডাইনিং চালু করার দাবি জানান।

পরবর্তীতে হল প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক মোহা. মুজিবুর রহমান লিখিত আশ্বাস দিলে শিক্ষার্থীরা হলে ফিরে যান।

পরে হলের কনিষ্ঠ (দ্বিতীয় বর্ষ) শিক্ষার্থীরা আবারও নিজেদের আসনের দাবিতে হলের সামনে অবস্থান নেন। এসময় শিক্ষার্থীরা ‘সহপাঠীরা রুমে রুমে, আমরা কেনো গণরুমে’, ‘প্রভোস্ট ঘুমায়, আমাদের ঘুম নাই’ ইত্যাদি শ্লোগান দিতে থাকে।

এসময় প্রাধ্যক্ষ কমিটির সভাপতি অধ্যাপক বশির আহমেদ, ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর আ স ম ফিরোজ উল হাসানসহ অন্যান্য শিক্ষকরা এসে ছাত্রীদের বারবার বুঝানোর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন।

দীর্ঘ ১৮ মাস ধরে গণরুমে থেকে একটি আসন না পাওয়ায় অভিযোগ করে ঐ হলের আবাসিক শিক্ষার্থী তাপসী দে প্রাপ্তি বলেন, “একটা আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় হওয়া সত্ত্বেও আমরা দীর্ঘ ১৮ মাস ধরে গণরুমে থাকছি। বিশ্ববিদ্যালয় ও হল প্রশাসন বারবার আশ্বাস দেওয়ার পরও কোনো সমাধান করতে পারেনি। আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কোন আশ্বাসে আর বিশ্বাস করতে চাই না।”

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অর্থনীতি বিভাগের এক ছাত্রী ও হলের জ্যেষ্ঠ শিক্ষার্থী দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, “হল প্রশাসন বরাবরই আমাদের সঙ্গে উদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ করেন। আমাদের মতামতকে উপেক্ষা করে জোরপূর্বক নতুন ছাত্রীদের রুমে বরাদ্দ দিয়ে দেন। প্রতিবাদ জানালে হল থেকে বের করে দেওয়ার হুমকি দেন। এটা কোন প্রশাসনিক আচরণ হতে পারে না।”

হল প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক মোহা. মুজিবুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে মিটিংয়ে আছেন বলে পরে যোগাযোগ করার অনুরোধ জানান।

Comments

The Daily Star  | English

Have to use vast maritime resources for our progress: PM

Prime Minister Sheikh Hasina today stressed on extracting marine resources from Bangladesh's vast maritime zones maintaining friendly relations with the neighbouring countries to tap potential of the "Blue Economy" for the country's socio-economic advancement

29m ago