প্যারিস থেকে ব্যর্থ হয়ে ফিরলেন বার্সা-কর্তারা

বেশ কিছু অফার নিয়ে প্যারিসে গিয়েছিল বার্সেলোনা কর্মকর্তারা। কিন্তু দিনভর চেষ্টা করেও শেষ পর্যন্ত খালি হাতে ফিরতে হয়েছে তাদের। কোন অফারেই মন গলেনি প্যারিস সেইন্ত জার্মেই (পিএসজি) কর্মকর্তাদের। নেইমারকে পেতে হলে নগদ অর্থের বিকল্প কোন কিছুই শুনতে চান না তারা। এমন সংবাদই প্রকাশ করেছেন স্প্যানিশ সংবাদ মাধ্যমগুলো।

বেশ কিছু অফার নিয়ে প্যারিসে গিয়েছিল বার্সেলোনা কর্মকর্তারা। কিন্তু দিনভর চেষ্টা করেও শেষ পর্যন্ত খালি হাতে ফিরতে হয়েছে তাদের। কোন অফারেই মন গলেনি প্যারিস সেইন্ত জার্মেই (পিএসজি) কর্মকর্তাদের। নেইমারকে পেতে হলে নগদ অর্থের বিকল্প কোন কিছুই শুনতে চান না তারা। এমন সংবাদই প্রকাশ করেছেন স্প্যানিশ সংবাদ মাধ্যমগুলো।

বার্সেলোনার পক্ষ থেকে স্পোর্টিং ডিরেক্টর এরিক আবিদাল, তার সহকারী হ্যাভিয়ার বোরদাস এবং ক্লাবের ব্রাজিলের প্রতিনিধি আন্দ্রে কারিকে পাঠিয়েছিলেন ক্লাব সভাপতি জোসেপ মারিয়া বার্তেমিউ। পিএসজির হয়ে উপস্থিত ছিলেন স্পোর্টিং ডিরেক্টর লিওনার্দো ও তার সহকারী অ্যাঞ্জেলো কাসতেয়াজ্জি। দুই পক্ষ মঙ্গলবার প্রায় দিনভর আলোচনা করে। কিন্তু কোন সুরাহা হয়নি।

১০০ মিলিয়ন ইউরো, সঙ্গে ফিলিপ কৌতিনহো ও ইভান রাকিতিচের মতো খেলোয়াড়কে দিতে চেয়েছে বার্সেলোনা। তাতে রাজী নয় পিএসজি। পরে নেলসন সেমেদো ও স্যামুয়েল উমতিতির মতো খেলোয়াড়দেরও ঘুরিয়ে ফিরিয়ে প্রস্তাব রেখেছে। কিন্তু কোন কিছুতেই মন গলেনি ফরাসী ক্লাব কর্মকর্তাদের। যে দামে কিনেছে তার কাছাকাছি অর্থ ছাড়া নেইমারকে ছাড়তে এক ছাড় রাজী নয় ক্লাবটি।

কিন্তু সে পরিমাণ অর্থ বার্সেলোনার ভান্ডারে নেই। আতোঁয়া গ্রিজমান, ফ্রাঙ্কি ডি ইয়ং, জুনিয়র ফিরপোদের কিনে ব্যয় করার মতো অর্থ নেই দলটির। ম্যালকমকে বিক্রি করে কিছু অর্থ যদিও পেয়েছে দলটি। কিন্তু তা যথেষ্ট নয়। তার উপর ঝামেলা রয়েছে আরও একটি। গ্রিজমানকে কিনতে ১২০ মিলিয়ন খরচ করেছে। কিন্তু অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদ দাবি করছে আরও। রিলিজ ক্লজ কমানোর আগেই গ্রিজমানের সঙ্গে বার্সেলোনা যোগাযোগ করেছে বলে জানিয়েছে তারা। মামলাও হয়েছে। এ অবস্থায় নেইমারকে পেতে খেলোয়াড় বিনিময় ছাড়া বিকল্প উপায় নেই বার্সেলোনার।

নেইমারকে বেচতে চাইলেও বার্সেলোনার কাছে বিক্রি করার খুব একটা ইচ্ছা নেই পিএসজির মালিক নাসের আল খেলাইফির। তাই ভিন্ন কোন প্রস্তাবেই রাজী হয়নি ক্লাবটি। মূলত বেশ কিছু কারণেই দুই ক্লাব চির প্রতিদ্বন্দ্বীতে পরিণত হয়েছে।  তাই বার্সেলোনার চেয়ে রিয়ালে বিক্রি করতে বেশি আগ্রহী খেলাইফি।

আর ফরাসী ক্লাবের এমন ব্যবহারে নেইমারকে ফেরানোর ব্যাপারে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছে বার্সেলোনা। অন্যদিকে নেইমারকে পেতে আগ্রহী রিয়াল মাদ্রিদও। নেইমারও এ গুঞ্জনে নতুন মাত্রা যোগ দিয়েছেন। গত সপ্তাহে রিয়াল কোচ জিনেদিন জিদানের সঙ্গে নিজের ছবি সামাজিক মাধ্যমে পোস্ট করেন। তবে বার্সেলোনাকে নিয়েও এর আগে ছবি পোস্ট করেছিলেন তিনি। ক্যাপশনে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে পিএসজিকে হারানো জীবনের স্মরণীয় জয় বলে উল্লেখও করেছিলেন তিনি।

২০১৭ সালের গ্রীষ্মের দলবদলে রেকর্ড ২২২ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে বার্সেলোনা ছেড়ে পিএসজিতে নাম লেখান নেইমার। মূলত মেসির ছায়া থেকে মুক্তি পেতে চেয়েছিলেন। কিন্তু সেখানে উল্টো তরুণ এমবাপের ছায়ায় ঢাকা পড়েছেন এ ব্রাজিলিয়ান। তার উপর গত মৌসুমে একের পর এক কাণ্ডে হয়েছেন সমালোচিত। যার জন্য তার উপর ক্লাবটির কোচ-কর্মকর্তারাও অসন্তুষ্ট। ক্লাবটির মালিক নাসের আল-খেলাইফির তো চক্ষুশূলে পরিণত হয়েছেন।

Comments

The Daily Star  | English
remittances received in February

Remittance hits eight-month high

In February, migrants sent home $2.16 billion, up 39% year-on-year

4h ago