হেডিংলি টেস্টে খেলা হচ্ছে না স্মিথের

লর্ডস টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার প্রথম ইনিংসে জোফরা আর্চারের বাউন্সারে পাওয়া আঘাতটাই বাধা হয়ে দাঁড়াল স্টিভ স্মিথের জন্য। ওই আঘাত থেকে এখনও পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠতে পারেননি এই তারকা ব্যাটসম্যান। ফলে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অ্যাশেজ সিরিজের তৃতীয় টেস্টে খেলা হচ্ছে না তার।
steve smith
জোফরা আর্চারের বলে মাথায় আঘাত পেয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন স্মিথ। ফাইল ছবি: এএফপি

লর্ডস টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার প্রথম ইনিংসে জোফরা আর্চারের বাউন্সারে পাওয়া আঘাতটাই বাধা হয়ে দাঁড়াল স্টিভ স্মিথের জন্য। ওই আঘাত থেকে এখনও পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠতে পারেননি এই তারকা ব্যাটসম্যান। ফলে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অ্যাশেজ সিরিজের তৃতীয় টেস্টে খেলা হচ্ছে না তার।

দুই টেস্টের মধ্যে ব্যবধান মাত্র তিনদিনের। ফলে স্মিথের ফিট হয়ে ওঠা নিয়ে শঙ্কা ছিলই। সেই শঙ্কাই শেষ পর্যন্ত সত্যি হয়েছে। মঙ্গলবার (২০ অগাস্ট) অস্ট্রেলিয়ার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, স্মিথ এখনও তৈরি নন। ফলে হেডিংলি টেস্ট থেকে ছিটকে গেছেন তিনি।

অ্যাশেজের প্রথম দুটি টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার সেরা ব্যাটিং বিজ্ঞাপন ছিলেন স্মিথ। এজবাস্টনে হাঁকিয়েছিলেন জোড়া সেঞ্চুরি। লর্ডসেও হেসেছে তার ব্যাট। চোখ ধাঁধানো পারফরম্যান্স দিয়ে আইসিসি টেস্ট ব্যাটসম্যানদের র‍্যাঙ্কিংয়ে দ্বিতীয় স্থান দখল করেছেন তিনি। ফলে তাকে ছাড়া ইংলিশদের শক্তিশালী বোলিং আক্রমণের বিপক্ষে কঠিন পরীক্ষাই দিতে হবে সফরকারীদের।

লর্ডস টেস্টের চতুর্থ দিনে আর্চারের বলে কাঁধে আঘাত পাওয়ার পর মাঠ ছেড়ে যেতে হয়েছিল স্মিথকে। তবে সাজঘরে ফিরে প্রাথমিক কনকাশন টেস্টে উত্তীর্ণ হয়েছিলেন তিনি। পরে নেমেছিলেন ব্যাটিংয়েও। জাগিয়েছিলেন সেঞ্চুরির আশাও। কিন্তু তাকে ফিরতে হয়েছিল ব্যক্তিগত ৯২ রানে। পরদিন সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর স্মিথ বুঝতে পারেন তার অবস্থার অবনতি ঘটেছে। তিনি মাথায় ব্যথা ও ঝিমঝিম অনুভব করতে থাকেন। ফলে পঞ্চম দিনে আর ব্যাটিংয়ে নামেননি তিনি।

স্মিথের কনকাশন (মাথায় আঘাত পাওয়া) বদলি হিসেবে লর্ডসে দ্বিতীয় ইনিংসে মাঠে নেমেছিলেন মারনাস লেবুশানে। ইতিহাস গড়েছিলেন টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম বদলি খেলোয়াড় হয়ে। খেলেছিলেন ৫৯ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস। সেই লেবুশানেই হেডিংলিতে অসিদের মূল একাদশে স্মিথের শূন্যস্থান পূরণ করবেন।

আগের দিন অসি টেস্ট দলের সহ-অধিনায়ক ট্রাভিস হেড অবশ্য গণমাধ্যমের কাছে আশা প্রকাশ করে বলেছিলেন, স্মিথ তৃতীয় টেস্টের আগে ফিট হয়ে উঠবেন। কিন্তু তাকে নিয়ে কোনো ঝুঁকি নিতে রাজি নয় অস্ট্রেলিয়া। এদিন মাঠের অনুশীলনে থাকলেও তার ভূমিকা ছিল মূলত দর্শকের। সেখানে কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গার ও দলের চিকিৎসক রিচার্ড শয়ের সঙ্গে কথা বলতে দেখা যায় তাকে। এরপর স্মিথ তার 'মেন্টর', সাবেক অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার ও বর্তমান ধারাভাষ্যকার মার্ক টেইলরের সঙ্গেও বেশ লম্বা সময় ধরে কথা বলেন।

টেইলরের সঙ্গে মাঠে থাকা অবস্থায়ই স্মিথকে জানিয়ে দেওয়া আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্ত- তিনি খেলতে পারবেন না হেডিংলিতে। সেই সঙ্গে সুস্থ হয়ে ২২ গজে ফিরতে প্রস্তুতি নেওয়ার জন্য তাকে দুই সপ্তাহ সময়ও দেওয়া হয়েছে।

Comments

The Daily Star  | English

Lifting curfew depends on this Friday

The government may decide to reopen the educational institutions and lift the curfew in most places after Friday as the last weekend saw large-scale violence over the quota-reform protest.

11h ago