লাইভ আপডেট: রশিদের নৈপুণ্যে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণে আফগানরা

চট্টগ্রাম টেস্টের দ্বিতীয় দিনে মুখোমুখি বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান। নিজেদের প্রথম ইনিংসে ব্যাট করছে স্বাগতিকরা।

বাংলাদেশের বিপক্ষে চট্টগ্রামে একমাত্র টেস্টের দ্বিতীয় দিন শেষে চালকের আসনে সফরকারী আফগানিস্তান। 

রশিদের নৈপুণ্যে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণে আফগানরা

আগের দিনের দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান আসগর আফগান ও আফসার জাজাইয়ের বিদায়ের পর আফগানিস্তানকে সাড়ে তিনশো ছোঁয়া সংগ্রহ পাইয়ে দেন অধিনায়ক রশিদ খান। টেস্টে নিজের প্রথম হাফসেঞ্চুরি তুলে করেন ৫১ রান। এরপর বল হাতেও তিনি অনবদ্য। বাংলাদেশের পাতা স্পিন ফাঁদের ফায়দা তুলে নিয়ে বিপদে ফেললেন সাকিব আল হাসানদেরই। নিলেন ৪ উইকেট। তার অলরাউন্ড নৈপুণ্যে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে আফগানরা।

ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় দিনের খেলা শেষ হওয়ার আগে প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের স্কোর ১৯৪/৮। অধিনায়ক সাকিব-মুশফিকুর রহিম হতাশ করেন। সেট হয়ে আউট হন সৌম্য সরকার-লিটন দাস। গড়ে ওঠেনি ভালো কোনো জুটি। আফগান স্পিনারদের ওপর দাপট দেখাতে পারেন কেবল মুমিনুল হক। তার ব্যাট থেকে আসে ৭১ বলে ৫২ রান।

উইকেটে আছেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ৭৪ বলে ৪৪ ও তাইজুল ইসলাম ৫৫ বলে ১৪ রানে। এখনও আফগানদের থেকে ১৪৮ রানে পিছিয়ে সাকিবরা। হাতে রয়েছে মাত্র ২ উইকেট। আগামীকাল তৃতীয় দিনে বিস্ময়কর কিছু না ঘটলে বেশ বড় লিড পেতে যাচ্ছে আফগানিস্তান।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: (দ্বিতীয় দিন শেষে)

আফগানিস্তান প্রথম ইনিংস: (আগের দিন ২৭১/৫) ১১৭ ওভারে ৩৪২ (ইব্রাহিম ২১, ইহসানউল্লাহ ৯, রহমত ১০২, হাসমতউল্লাহ ১৪, আসগর ৯২, নবি ০, আফসার ৪১, রশিদ ৫১, কায়েস ৯, আহমেদজাই ০, জহির ০; তাইজুল ৪/১১৬, সাকিব ২/৬৪, মিরাজ ১/৭৩, নাঈম ২/৪৩, মাহমুদউল্লাহ ১/৯, সৌম্য ০/২৬, মুমিনুল ০/৯, মোসাদ্দেক ০/১)। 

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস: ৬৭ ওভারে ১৯৪/৮ (সাদমান ০, সৌম্য ১৭, লিটন ৩৩, মুমিনুল ৫২, সাকিব ১১, মুশফিক ০, মাহমুদউল্লাহ ৭, মোসাদ্দেক ৪৪*, মিরাজ ১১, তাইজুল ১৪*; আহমেদজাই ১/২১, নবি ২/৫৩, জহির ০/৪৬, রশিদ ৪/৪৭, কাইস ১/২২)।

শেষ বিকালে মোসাদ্দেক-তাইজুলের দৃঢ়তা

দেড়শো রানের নিচে ৮ উইকেট হারিয়ে ফেলায় দ্বিতীয় দিনেই অলআউট হয়ে যাওয়ার শঙ্কায় ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু শেষ বিকালে প্রতিরোধ গড়েন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ও তাইজুল ইসলাম।

আফগান স্পিনারদের ঘূর্ণিজালের মায়ায় আটকা না পড়ে তারা দেখান দৃঢ়তা। দুজনের অবিচ্ছিন্ন নবম উইকেট জুটির সংগ্রহ ৯৪ বলে ৪৮ রান। এটিই বাংলাদেশের ইনিংসের সেরা জুটি। রশিদ খান-কাইস আহমেদ-জহির খানদের হতাশ করে শেষ একটি ঘণ্টা কোনো বিপদ ছাড়া পার করেন মোসাদ্দেক-তাইজুল।

আলাদা করে নজর কাড়লেন টেলএন্ডার তাইজুল। তিনি পরিচয় দেন দারুণ ধৈর্যের। তার ওপর আস্থা রাখতে পেরে বাংলাদেশের ভাণ্ডারে থাকা একমাত্র স্বীকৃত ব্যাটসম্যান মোসাদ্দেকও ধীরে ধীরে নিজের ইনিংস টেনে নিচ্ছেন।

বৃষ্টিতে খেলা বন্ধ ৫ মিনিট

মেহেদী মিরাজ আউট হওয়ার পরপরই হঠাৎ বৃষ্টির হানা। কিন্তু আম্পায়ার ও ক্রিকেটাররা মাঠ ছাড়তে না ছাড়তেই থেমেও যায় আবার। এর মধ্যেই উইকেট কাভারে ঢেকে ফেলা হয়েছিল। সেসব সরিয়ে আবার ম্যাচ শুরু করতে সময় লাগে ৫ মিনিট।

মিরাজকে ফেরালেন কাইস

মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ও মেহেদী হাসান মিরাজ মিলে বাংলাদেশকে ফলোঅনে পড়ার লজ্জা থেকে বাঁচান। তবে মিরাজকে থিতু হতে দিলেন না কাইস আহমেদ। যোগ দিলেন দলের উইকেট উৎসবে। করলেন বোল্ড। সুইপ করার চেষ্টা করেছিলেন মিরাজ। বল তার ব্যাট ফাঁকি দিয়ে শরীরের পেছন দিয়ে আঘাত করল স্টাম্পে। ১৯ বছর বয়সী আফগান রিস্ট স্পিনার কাইস পেলেন টেস্ট তথা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিজের প্রথম উইকেটের দেখা।

দলীয় ১৪৬ রানে পতন হলো বাংলাদেশের অষ্টম উইকেটের। মিরাজের ব্যাট থেকে আসে ১১ রান। শেষ হয়েছে ইনিংসের ৫২ ওভারের খেলা। উইকেটে আছেন মোসাদ্দেক ১৩ ও মাত্রই নামা তাইজুল ইসলাম ০ রানে।

ফলোঅন এড়িয়ে গেল বাংলাদেশ

আফগানিস্তানের স্পিনারদের দারুণ বোলিংয়ে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানের অসহায় আত্মসমর্পণের কারণে শঙ্কা ছিল ফলোঅনের পড়ার। তবে সে লজ্জাজনক পরিস্থিতি এড়াতে সক্ষম হয়েছে স্বাগতিকরা। ৪৯তম ওভারে দ্বিতীয় বলে রশিদ খানকে লং লেগে ঠেলে দিয়ে ডাবল নেন মোসাদ্দেক হোসেন। তাতে দলীয় সংগ্রহ বেড়ে দাঁড়ায় ৭ উইকেটে ১৪৪।

ফলোঅন এড়াতে বাংলাদেশকে করতে হতো ১৪৩ রান। আপাতত সে লক্ষ্য অর্জিত হয়েছে। উইকেটে আছেন মোসাদ্দেক ১২ ও মেহেদী হাসান মিরাজ ১০ রানে।

মুমিনুলের বিদায়ে ফলোঅনের শঙ্কায় বাংলাদেশ

কি করলেন মুমিনুল? উইকেটে দারুণ সেট হয়ে গিয়েছিলেন তিনি। বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের আসা যাওয়ার মিছিলে বেশ সাবলীল ছিলেন। নিজের হাফসেঞ্চুরিও পূরণ করেছেন আগের ওভারে। কিন্তু মোহাম্মদ নবির বলে আরও বাউন্ডারি হাঁকাতে গিয়ে মিড অনে আসগর আফগানের সহজ ক্যাচে পরিণত হলেন এ ব্যাটসম্যান। ফলে বড় বিপদে পড়েছে বাংলাদেশ। শঙ্কায় রয়েছে ফলোঅনে পড়ারও।

৪২ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৭ উইকেটে ১৩১ রান। ৮ রানে ব্যাট করছেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ফলোঅন এড়াতে এখনও প্রয়োজন ১২ রানের।

মুমিনুলের ফিফটি

তার গায়ে টেস্ট স্পেশালিষ্টের ট্যাগ লাগানো। দলের বিপদে তিনিই এগিয়ে এলেন। চাপে থাকা দলকে উদ্ধার করতে উল্টো আফগান শিবিরে আক্রমণের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। তাই বেশ হাত খুলে ব্যাট করছেন মুমিনুল হক। সঙ্গে এক প্রান্ত ধরে রেখেছেন। এরমধ্যেই নিজের হাফসেঞ্চুরি পূরণ করেছেন পকেট রকেট খ্যাত এ ব্যাটসম্যান। রশিদ খানের বলে এগিয়ে লংঅন সীমানা দিয়ে চার মেরেই ফিফটি পূরণ করেন তিনি। ৬৯ বলে এসেছে তার হাফসেঞ্চুরি।

৪১ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১২৭ রান তুলেছে বাংলাদেশ। মুমিনুল ৫১ ও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ৬ রানে ব্যাট করছেন।    

মাহমুদউল্লাহর বিদায়ে বড় বিপদে বাংলাদেশ

একশ রানের আগেই দলের অর্ধেক ব্যাটসম্যান সাজঘরে। চাপে থাকা দলটির ইনিংস মেরামত তো দূরের কথা উল্টো চাপ বাড়িয়েছেন মাহমুদউল্লাহ। রশিদ খানের বলের গুগলি ঠিকভাবে বুঝতে পারেননি তিনি। ব্যাকফুটে গিয়ে ড্রাইভ করতে গিয়ে লাইন মিস করে বোল্ড হয়ে যান এ ব্যাটসম্যান। ফলে বড় বিপদে পড়েছে বাংলাদেশ। ১৩ বলে ৭ রান এসেছে মাহমুদউল্লাহর ব্যাট থেকে।

৩৯ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ১০৪ রান। ৩৪ রানে ব্যাট করছেন মুমিনুল হক। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত।  

বাংলাদেশের দলীয় শতরান

রশিদ খানের ঘূর্ণিতে বেহাল দশা টাইগারদের। দলীয় ৮৮ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে বড় চাপে রয়েছে দলটি। তবে এরপর আর কোন বিপদ না ঘটিয়ে শতরানের কোটা পার করেছে বাংলাদেশ। এক প্রান্ত আগলে রেখেছেন মুমিনুল হক। তাকে সঙ্গ দেওয়ার চেষ্টা করছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ৩৪.৫ ওভারে এসেছে দলীয় শতরান।

৩৬ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ১০৩ রান। মুমিনুল হক ৩৩ রান ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ৭ ব্যাট করছেন।

মুশফিকের বিদায়ে বাড়ল বিপদ

দুই বল আগেই আউট হয়েছেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। দল তাকিয়ে ছিল অভিজ্ঞ উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিমের দিকে। কিন্তু হতাশ করেছেন তিনিও। দলের বিপদ আরও বাড়িয়ে আউট হন কিছুটা দুর্ভাগ্যজনকভাবে। রশিদের বলটি রক্ষণাত্মকভাবেই খেলেছিলেন। ব্যাটে লাগার পর বল বুট লেগে চলে যায় ফিল্ডার ইব্রাহিম জাদরানের হাতে। ২ বল খেলে কোন রান করতে পারেননি মুশফিক।

চার বিরতির আগে ৩৩ ওভারে ৫ উইকেটে ৮৮ রান করেছে বাংলাদেশ। ২৭ রানে ব্যাট করছেন মুমিনুল হক।

সাকিবের বিদায়ে বাড়ল বিপদ

হতাশ করে ফিরলেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসানও। রশিদ খানের স্বাভাবিক লেগ স্পিনকে হয়তো গুগলি ভেবে ঠিকভাবে ব্যাট চালাতে পারেননি তিনি। ভুল লাইনে ব্যাট চালানর খেসারৎ দিতে হয় তাকে। বল আঘাত হানে তার প্যাডে। বোলার-ফিল্ডারদের আবেদনে সাড়া দেন আম্পায়ার। রিভিউ নিয়েছিলেন কিন্তু লাভ হয়নি। ২০ বলে ১টি চারের সাহায্যে ১১ রান করেন অধিনায়ক।

হতাশ করলেন লিটনও

সাদমান ইসলাম শুরুতে ফিরলেও উইকেটে সেট হয়েই ফিরেছেন সৌম্য সরকার। এবার সৌম্যর দেখানো পথেই হাঁটলেন লিটন কুমার দাস। ইনিংস লম্বা করতে পারলেন না তিনিও। রশিদ খানের বলটি খুব একটা স্পিন করেনি। পেছনের পায়ে ভর দিয়ে খেলতে গিয়ে লেংথ মিস করেছেন লিটন। ফলে বোল্ড হয়ে যান তিনি। ৬৬ বলে ৩টি চার ও ১টি ছক্কায় ৩৩ রান করেছেন এ ব্যাটসম্যান।

২৬ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ৫৪ রান। ৫ রানে ব্যাট করছেন মুমিনুল হক। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান।

আশা জাগিয়ে ফিরে গেলেন সৌম্য

উইকেটে দারুণ সেট হয়ে গিয়েছিলেন ওপেনার সৌম্য সরকার। কিন্তু ইনিংস লম্বা করতে পারলেন তিনি। মোহাম্মদ নবির স্লাইডার রক্ষণাত্মক ভাবে খেলতে গিয়েও মিস করেন এ ওপেনার। এলবিডাব্লিউর ফাঁদে পড়ে আউট হলেন ব্যক্তিগত ১৭ রানে। আর সৌম্যর বিদায়ের বেশ চাপে পড়েছে বাংলাদেশ।

২০ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২ উইকেটে ৩৮ রান। ২১ রানে ব্যাট করছেন লিটন কুমার দাস। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন মুমিনুল হক।  

সফল রিভিউতে বাঁচলেন লিটন

মোহাম্মদ নবির জোরালো আবেদনে সাড়া দিয়েছিলেন আম্পায়ার নাইজেল লং। পা সামনে এগিয়ে রক্ষণাত্মক ঢঙে খেলতে গিয়েছিলেন লিটন। বল ব্যাট মিস করে লাগে প্যাডে। রিপ্লেতে দেখা যায় বল বাঁক খেয়ে লেগ স্টাম্পের অনেক বাইরে দিয়ে যাচ্ছিল বল। ফলে এ যাত্রা বেঁচে যান লিটন। এ সময় ১ রানে ব্যাট করছিলেন তিনি।

৬ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ১ উইকেটে ৩ রান। লিটন ১ ও সৌম্য ২ রানে ব্যাট করছেন।  

লাঞ্চের আগে স্কোরবোর্ডে ১ রান জমা করেছে বাংলাদেশ

ইনিংসের প্রথম ওভারেই ফিরে গেছেন ওপেনার সাদমান ইসলাম। এরপর আরও তিনটি ওভার খেলেছে বাংলাদেশ। এরপর আর কোন বিপদ হয়নি। সাবধানতার সঙ্গে ব্যাট করে কাটিয়ে ওভারগুলো।

৪ ওভার শেষে ১ উইকেটে ১ রান করেছে বাংলাদেশ। সে রানটি এসেছে লিটন কুমার দাসের ব্যাট থেকে। ওপেনার সৌম্য সরকার এখনও কোন রান করতে পারেননি।  

শুরুতেই ফিরে গেলেন সাদমান

নিজেদের প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ধাক্কা খেয়েছে বাংলাদেশ। স্কোর বোর্ডে কোন রান যোগ না করতেই খালি হাতে ফিরেছেন সাদমান ইসলাম। ইয়ামিন আহমেদজাইয়ের অফস্টাম্পের অনেক বাইরে রাখা বলে খোঁচা মারতে গিয়ে সর্বনাশ করেন তিনি। ঝাঁপিয়ে পড়ে দারুণ ক্যাচ লুফে নিয়েছেন উইকেটরক্ষক আফসার জাজাই। ফলে শুরুতে চাপে বাংলাদেশ।

১ ওভার শেষে কোন রান তুলতে পারেনি বাংলাদেশ। সৌম্য সরকার ও লিটন কুমার দাস ব্যাট করছেন।  

প্রথম ইনিংসে ৩৪২ রান তুলেছে আফগানিস্তান

অবশেষে রশিদ খানকে বিদায় করতে পেরেছে বাংলাদেশ। মেহেদী হাসান মিরাজের বলে এগিয়ে এসে চিপ করতে চেয়েছিলেন। ব্যাটে বলে ঠিকভাবে সংযোগ করতে পারেননি। ফলশ্রুতিতে ক্যাচ ধরেছেন বোলার নিজেই। ঝাঁপিয়ে দারুণ ক্যাচ লুফে নিয়েছেন তিনি। তবে এর আগেই কাজের কাজটি করে নিয়েছেন রশিদ। নিজেদের ইনিংসকে পৌঁছে দিয়েছেন প্রায় সাড়ে তিনশ রানের কাছাকাছি। নিজেও করেছেন টেস্ট ক্যারিয়ারের প্রথম ফিফটি। ৬১ বলে ২টি চার ও ৩টি ছক্কায় ৫১ রান আসে তার ব্যাট থেকে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

আফগানিস্তান প্রথম ইনিংস: ১১৭ ওভারে ৩৪২ (ইব্রাহিম ২১, ইহসানউল্লাহ ৯, রহমত ১০২, হাসমতউল্লাহ ১৪, আসগর ৯২, নবি ০, আফসার ৪১, রশিদ ৫১, কায়েস ৯, আহমেদজাই ০, জহির ০; তাইজুল ৪/১১৬, সাকিব ২/৬৪, মিরাজ ১/৭৩, নাঈম ২/৪৩, মাহমুদউল্লাহ ১/৯, সৌম্য ০/২৬, মুমিনুল ০/৯, মোসাদ্দেক ০/১)।   

ঝড়ো ব্যাটিংয়ে রশিদ খানের ফিফটি

উইকেটে নেমেই পুরোদুস্তর ব্যাটসম্যানের মতো বাংলাদেশের কোন বোলারকে তোয়াক্কা না করে হাত খুলে ব্যাট করতে থাকেন রশিদ খান। সাকিব আল হাসান, তাইজুল ইসলাম কিংবা মেহেদী হাসান মিরাজ কাউকেই ছাড় দেননি। আফগানিস্তানের ইনিংসকে লম্বা করছেন তিনি। এর মধ্যে তুলে নিয়েছেন নিজের হাফসেঞ্চুরি। মাত্র ৫০ বলে ফিফটি স্পর্শ করেছেন। তাতে মেরেছেন ২টি চার ও ৩টি ছক্কার মার।

১১৬ ওভার শেষে আফগানিস্তানের সংগ্রহ ৯ উইকেটে ৩৪২ রান। রশিদ ৫১ ও জহির ০ রানে ব্যাট করছেন।   

সফল রিভিউতে আহমেদজাইকে ফেরালেন সাকিব

সাকিব আল হাসানের বলে ইয়ামিন আহমেদজাইয়ের ব্যাটের কানায় লেগে চলে গিয়েছিল স্লিপে দাঁড়ানো সৌম্য সরকারের কাছে। সৌম্যও ক্যাচটি ধরতে কোন ভুল করেননি। কিন্তু আম্পায়ার ছিলেন অনড়। পরে রিভিউ নিয়ে তাকে ফেরান অধিনায়ক। ৭ বল খেলে কোন রান করতে পারেননি আহমেদজাই।

১১৩ ওভার শেষে ৯ উইকেটে ৩২৭ রান করেছে আফগানিস্তান। ৩৬ রানে ব্যাট করছেন রশিদ। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন জহির খান।

কায়েসকে ফিরিয়ে সাকিবের প্রথম উইকেট

দলের সেরা বোলার তিনি। তবে আফগানদের বিপক্ষে আগের দিনটা হতাশারই কেটেছে তার। তবে দ্বিতীয় দিনে উইকেটের দেখা পেয়েছেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। কায়েস আহমেদকে ফিরিয়েছেন তিনি। তার বলে রক্ষণাত্মক ভাবে খেলতে গেলে ব্যাটের কানায় লেগে প্যাডে লেগে চলে যায় সিলি পয়েন্টে দাঁড়ানো মুমিনুল হকের হাতে। ১৫ বলে ১টি চারের সাহায্যে ৯ রান করেছেন কায়েস।

১০৯ ওভার শেষে ৮ উইকেটে ৩২২ রান করেছে আফগানিস্তান। রশিদ ৩২ রানে ব্যাট করছেন। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন ইয়ামিন আহমেদজাই।

আফগানদের দলীয় তিনশ

বাংলাদেশের বিপক্ষে বড় স্কোর গড়ার পথে রয়েছে আফগানিস্তান। এরমধ্যেই তিনশত রানের কোটা পার করেছে দলটি। হাতে রয়েছে আরও তিনটি উইকেট। উইকেটে নেমেই বেশ হাত খুলে ব্যাট করছেন অধিনায়ক রশিদ খান। সাকিব আল হাসানের বলে এগিয়ে এসে খেলতে গিয়ে ব্যাটের কানায় লেগে বল ফাইন লেগে গেলে দৌড়ে তিন রান নিয়ে দলের তিনশত পূরণ করেন রশিদ। ১০৬.৪ ওভারে শেষে দলের তিনশত রান।

১০৭ ওভার শেষে আফগানিস্তানের সংগ্রহ ৭ উইকেটে ৩০২ রান। রশিদ ২১ ও কায়েস ও রানে ব্যাট করছেন।  

আফসারকে ফেরালেন তাইজুল

আসগর আফগানকে আগেই ফিরিয়ে জুটি ভেঙ্গেছিলেন তাইজুল ইসলাম। এবার আরেক অপরাজিত ব্যাটসম্যান আফসার জাজাইকে ফেরালেন তিনি। জাদুকরী এক ডেলিভারিতে তাকে সরাসরি বোল্ড করে দিয়েছেন স্পিনার। লেগ ও মিডল স্টাম্পের মাঝে পড়া বলটি রক্ষণাত্মক ঢঙেই খেলতে চেয়েছিলেন আফসার। তবে বাঁক খেয়ে বল আঘাত হানে স্টাম্পে। ৪১ রান করেছেন এ আফগান উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান। ১১৫ বলে ৪টি চার ও ১টি ছক্কায় এ রান করেছেন তিনি।

১০৬ ওভার শেষে আফগানিস্তানের সংগ্রহ ৭ উইকেটে ২৯৯ রান। ১৮ রানে ব্যাট করছেন অধিনায়ক রশিদ খান। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন কায়েস আহমেদ।  

আসগরকে ফিরিয়ে জুটি ভাঙলেন তাইজুল

মাইলফলকের সামনে দাঁড়িয়ে ছিলে সাবেক অধিনায়ক আসগর আফগান। আফগানদের পক্ষে দ্বিতীয় টেস্ট সেঞ্চুরি করার দ্বারপ্রান্তে ছিলেন। কিন্তু ধৈর্যটা শেষ দিকে ধরে রাখতে পারলেন না। শিকার হয়েছেন নার্ভাস নাইন্টিজের। ভাঙে ৮১ রানের জুটি। তাইজুল ইসলামের বলে স্লগ সুইপ করতে গিয়ে আকাশে তুলে দেন। আর সে ক্যাচ সহজেই লুফে নিয়েছেন উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহিম। ৯২ রান করেছেন এ ব্যাটসম্যান। ১৭৪ বলে ৩টি চার ও ২টি ছক্কায় এ রান করেছেন তিনি।

১০০ ওভার শেষে আফগানিস্তানের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ২৭৮ রান। ৩৮ রানে ব্যাট করছেন আফসার জাজাই। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন অধিনায়ক রশিদ খান।

আফগানিস্তান দ্রুত গুটিয়ে দেওয়ার আশায় বাংলাদেশ

আগের দিনই ২৭১ রান সংগ্রহ করেছে। প্রথম দিনের প্রথম সেশনে যে পরিমাণ টার্ন দেখা গিয়েছে তাতে এ স্কোর নিঃসন্দেহে দারুণ। তবে বাংলাদেশের স্পিনার তাইজুল মনে করছেন খুব বেশি রান করতে পারেনি তারা, ‘আমার মনে হয় রানটা কমই হয়েছে। বোলাররা ভালো বল করেছে। আসলে উইকেটটা মুখস্থ হয়ে গেছে। যদি দেখা যেত মাঝে মাঝে টার্ন, মাঝে মাঝে সোজা যেত-এরকম হলে উইকেটের সংখ্যাটা বেশি থাকত। কিন্তু উইকেটের যে অবস্থা, বলটা একই রকম হচ্ছে। ওরাও মুখস্থ মতোই খেলছে।’

দ্বিতীয় দিনের বড় স্কোরেই চোখ আফগানদের। তবে বাংলাদেশ চাইছে অল্প রানেই গুটিয়ে দিতে। তাইজুলের ভাবনায় মিরাকলের মতো কিছু হয়েও যেতে পারে, '১০ রানের মধ্যেও আসতে পারে বাকি ৫ উইকেট!'

প্রথম দিনটা আফগানদেরই

বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম দিনটা ভালোই কাটিয়েছে আফগানিস্তান। প্রথম সেশনের তিনটি উইকেট নিয়েছিল টাইগাররা। তবে দ্বিতীয় সেশনে দারুণ ব্যাট করে আফগানরা। কোন উইকেট না হারিয়ে রান তোলে ১১৪ রান। তৃতীয় সেশনের শুরুতেই জোড়া ধাক্কা দেন নাঈম হাসান। সে ধাক্কা সামলে নিয়েছেন সাবেক অধিনায়ক আসগর আফগান ও উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান আফসার জাজাই। এখন পর্যন্ত ৭৪ রানের জুটি গড়ে অবিচ্ছন্ন রয়েছেন তারা। ফলে দিন শেষে ৫ উইকেটে ২৭১ রান তুলেছে দলটি।

ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি তুলে ইতিহাস গড়েছেন রহমত শাহ। আফগানিস্তানের হয়ে এটা প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি। ১০২ রানের ঝকঝকে এক ইনিংস খেলেছেন তিনি। বাংলাদেশকে হতাশ করে সেঞ্চুরির দিকে এগিয়ে যাচ্ছেন সাবেক অধিনায়ক আসগর আফগানও। ৮৮ রানে অপরাজিত রয়েছেন তিনি। এছাড়া তরুণ আফসারও ভুগিয়েছেন টাইগার বোলারদের। ৩৫ রানে ব্যাট করছেন তিনি। আগামীকাল আবার ব্যাট করতে নামবেন এ দুই ব্যাটসম্যান। বাংলাদেশের পক্ষে ২টি করে উইকেট নিয়েছেন নাঈম ও তাইজুল।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: (প্রথম দিন শেষে)

আফগানিস্তান: ৯৬ ওভারে ২৭১/৫ (ইব্রাহিম ২১, ইহসানউল্লাহ ৯, রহমত ১০২, হাসমতউল্লাহ ১৪, আসগর ৮৮*, নবি ০, আফসার ৩৫*; তাইজুল ২/৭৩, সাকিব ০/৫০, মিরাজ ০/৫৯, নাঈম ২/৪৩, মাহমুদউল্লাহ ১/৯, সৌম্য ০/২৬, মুমিনুল ০/৯, মোসাদ্দেক ০/১)। 

Comments

The Daily Star  | English

Hefty power bill to weigh on consumers

The government has decided to increase electricity prices by Tk 0.34 and Tk 0.70 a unit from March, which according to experts will have a domino effect on the prices of essentials ahead of Ramadan.

8h ago