বাবরি মসজিদ মামলার রায়ে পক্ষ-বিপক্ষের প্রতিক্রিয়া

ভারতের অযোধ্যার আলোচিত বাবরি মসজিদ-রাম জন্মভূমি মামলার রায় নিয়ে দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেছেন, অযোধ্যা রায় মানুষের মধ্যে বিচার বিভাগের ওপর আবারও আস্থা আনবে।
babri_mosque-photo-1.jpg
১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বর উগ্রবাদী হিন্দু কর সেবকরা বাবরি মসজিদ ভেঙে ফেলেন। ছবি: সংগৃহীত

ভারতের অযোধ্যার আলোচিত বাবরি মসজিদ-রাম জন্মভূমি মামলার রায় নিয়ে দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেছেন, অযোধ্যা রায় মানুষের মধ্যে বিচার বিভাগের ওপর আবারও আস্থা আনবে।

আজ (৯ নভেম্বর) দুপুরে এক টুইটবার্তায় মোদি বলেন, “অযোধ্যা মামলায় রায় দিয়েছে মাননীয় সুপ্রিম কোর্ট। এই রায় কোনো পক্ষের জয় বা পরাজয় হিসেবে দেখা উচিত নয়। সে রাম ভক্তি হোক, বা রহিম ভক্তি, আমাদের একান্ত প্রয়োজন রাষ্ট্রীয় ভক্তির ওপর জোর দেওয়া। শান্তি ও সম্প্রীতি রক্ষিত হোক।”

দেশটির সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকার ও হিন্দুত্ববাদী সংগঠনের শীর্ষ ব্যক্তিরা রায়কে সাধুবাদ জানালেও, সন্তুষ্ট হতে পারেনি মুসলিম সম্প্রদায়।

সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডের আইনজীবী জাফরইয়াব জিলানি বলেছেন, “আমরা রায়কে সম্মান জানাই। কিন্তু, এতে আমরা সন্তুষ্ট নই। আমরা পরবর্তী পদক্ষেপ নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করবো।”

তবে এ নিয়ে কোনো বিক্ষোভ বা প্রতিবাদ করবেন না বলে জানিয়েছেন তিনি।

বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ সুপ্রিম কোর্টের এই রায়কে স্বাগত জানিয়ে বলেছেন, “এই রায় কয়েক দশকের পুরনো বিরোধের ইতি টানবে এবং ন্যায়ের পক্ষে সার্বজনীন গ্রহণযোগ্যতা দেবে।”

প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং বলেন, “এটি একটি ঐতিহাসিক রায়। জনসাধারণকে শান্তি বজায় রাখার আবেদন করছি।”

অযোধ্যা মামলার অন্যতম পক্ষ নির্মোহী আখড়ার মুখপাত্র কার্তিক চোপড়া বলেন, “শেষ ১৫০ বছর ধরে আমরা যে লড়াই চালাচ্ছি তাকে স্বীকৃতি দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। তাতে নির্মোহী আখড়া কৃতজ্ঞ। কেন্দ্র সরকার শ্রী রাম জন্মস্থান মন্দির নির্মাণের জন্য যে ট্রাস্ট গঠন করবে তাতে নির্মোহী আখড়ার প্রতিনিধি থাকবে।”

আরও পড়ুন:

বিতর্কিত জমিতে মন্দির, মসজিদের জন্য বিকল্প জায়গা

Comments