সংসদ থেকে বেরিয়ে আসুন: বিএনপির এমপিদের গয়েশ্বর

জাতীয় সংসদ অধিবেশনে অংশ নিলেও দলের প্রয়োজনে কথা বলতে না পারায়, সংসদ থেকে বিএনপির সংসদ সদস্যদের বেরিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।
gayeshwar.jpg
গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। ফাইল ছবি

জাতীয় সংসদ অধিবেশনে অংশ নিলেও দলের প্রয়োজনে কথা বলতে না পারায়, সংসদ থেকে বিএনপির সংসদ সদস্যদের বেরিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।

আজ (১৫ নভেম্বর) দুপুরে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে বিএনপির সদ্য প্রয়াত ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকার স্মরণে আয়োজিত আলোচনা অনুষ্ঠানে তিনি এ আহ্বান জানান।

গয়েশ্বর বলেন, “পার্লামেন্টে আওয়ামী লীগ তাদের বিরুদ্ধে কথা বলতে দেবে কেনো? এই পার্লামেন্ট তাদের, এই পার্লামেন্ট তো জনগণের না। পার্লামেন্টে যাওয়ার নিয়ম আছে, পার্লামেন্টের বাইরে আসারও তো নিয়ম আছে। আমাদের যারা পার্লামেন্টে গেছেন, কথা যখন বলতে পারেন না, তখন সেখানে যাওয়ার দরকারটা কী? বেরিয়ে আসুন।”

তিনি বলেন, “আপনারা ৬-৭ জন থেকে কী করবেন? কিছুই করতে পারবেন না। তার থেকে দেশের কথা একবার ভাবুন।”

গয়েশ্বর বলেন, “আপনারা বলেছেন, ঘরে-বাইরে আন্দোলন। ঘরে বা পার্লামেন্টে আমাদের সেই অবস্থা নেই, সেই শক্তিও আমাদের নেই। তাই ঘরের আন্দোলন বাদ দিন, আসুন আমরা রাস্তার আন্দোলন করি।”

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে তিনি বলেন, “একজন রাজনৈতিক নেতা ও নেত্রীর মুক্তি কখনও আদালত নির্ভর হয় না। রাজনীতির মাধ্যমেই রাজনৈতিক নেতার মুক্তি হয়। তাই আদালতের উপর নির্ভর করা বাতুলতা। কারণ আদালত আদালতের জায়গায় নেই। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, বিচারবিভাগ সরকারের আওতামুক্ত। কথা সত্য। কিন্তু শেখ হাসিনার হাতের মুঠোর বাইরে না। সরকারের অধীনে না, তবে শেখ হাসিনার অধীনে। এটি প্রতিদিন প্রতিটি রায়ের মধ্যে দিয়ে আমরা উপলব্ধি করতে পারি। সুতরাং সরকারের ইচ্ছার বাইরে খালেদা জিয়ার মুক্তি আদালতের মাধ্যমে হবে না।”

তিনি আরও বলেন, “আমাদের নেতাদের কথার মধ্যে যদি গড়মিল হয়, আমাদের নেতাদের মুখে যদি খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি সুস্পষ্ট না হয়, তাহলে কর্মীরা কার দিকে তাকিয়ে মাঠে নামবে?”

দেশে পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধি ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটদের কারসাজি বলেও অভিযোগও করেন তিনি।

Comments

The Daily Star  | English

Lifts at public hospitals: Where Horror Abounds

Shipon Mia (not his real name) fears for his life throughout the hours he works as a liftman at a building of Sir Salimullah Medical College, commonly known as Mitford hospital, in the capital.

5h ago