‘যারা আত্মসমর্পণ করেনি তাদের পরিণাম ভালো হবে না’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “খুন ও ধর্ষণ ছাড়া এই আত্মসমর্পণকারীদের বাকি সব মামলা তুলে নেওয়া হবে। স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে সরকারের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দেওয়া হবে। কিন্তু যারা এখনও আত্মসমর্পণ করেননি, তাদের পরিণাম ভাল হবে না।”
home-minister-1_1_1.jpg
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। স্টার ফাইল ছবি

কক্সবাজারের মহেশখালীতে ৯৬ জন জলদস্যু ও অস্ত্রের কারিগর আত্মসমর্পণ করেছেন। শনিবার দুপুরে এক অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের হাতে তারা অস্ত্র ও গোলাবারুদ জমা দেন।

কালারমারছড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে ওই অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “খুন ও ধর্ষণ ছাড়া এই আত্মসমর্পণকারীদের বাকি সব মামলা তুলে নেওয়া হবে। স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে সরকারের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দেওয়া হবে। কিন্তু যারা এখনও আত্মসমর্পণ করেননি, তাদের পরিণাম ভাল হবে না। এখনও সময় আছে দ্রুত আত্মসমর্পণ করুন। না হলে আইনের ভয়াবহ পরিণতি ভোগ করতে হবে।”

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, যারা দস্যুবৃত্তি, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে যুক্ত রয়েছে তাদের প্রত্যেকের নাম পরিচয় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে চলে এসেছে। একই সঙ্গে তাদের সহায়তাকারী প্রভাবশালী গডফাদারদের তালিকাও তৈরি করা হয়েছে। সন্ত্রাসী ও গডফাদার কেউ আইনের হাত থেকে রেহাই পাবে না।

আত্মসমর্পণকারী প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকার আর্থিক অনুদান দেওয়া হয়েছে। অনুষ্ঠানের পর অস্ত্র আইনের মামলায় তাদের গ্রেপ্তার দেখিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

আত্মসমর্পণকারীরা ১৩টি ৩০৩ রাইফেল, একটি দেশীয় তৈরি দোনলা বন্দুক, ১৪১টি একনলা বন্দুক, ২৮টি ৩০৩ রাইফেলের গুলি ও ২৫৫টি কার্তুজ জমা দিয়েছে।

২০১৮ সালের ২০ অক্টোবর র‌্যাবের মাধ্যমে মহেশখালী-কুতুবদিয়ার ৪৩ জন জলদস্যু আত্মসমর্পণ করেছিলেন।

Comments