ওয়ার্নার টেস্টে বেশি ভালো খেলবেন, ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন শেহওয়াগ

ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই ডেভিড ওয়ার্নারের পরিচিতি ছিল আগ্রাসী ব্যাটসম্যান হিসেবে। টি-টোয়েন্টি ঘরানার ক্রিকেটের সঙ্গে তার ব্যাটিংয়ের ধরনটা বরাবরই মানানসই। কিন্তু টেস্ট ক্রিকেটে স্থায়ী আসন গেঁড়ে নিতে পারবেন কিনা তা নিয়ে ওয়ার্নার নিজেও ছিলেন সন্দিহান। তবে ভারতের সাবেক তারকা ব্যাটসম্যান বিরেন্দর শেহওয়াগ অনেক আগেই ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন, টি-টোয়েন্টি সংস্করণের চেয়ে টেস্টে বেশি ভালো ব্যাটসম্যান হওয়ার যোগ্যতা রাখেন বাঁহাতি অজি তারকা।
warner
ডেভিড ওয়ার্নার। ছবি: টুইটার

ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই ডেভিড ওয়ার্নারের পরিচিতি ছিল আগ্রাসী ব্যাটসম্যান হিসেবে। টি-টোয়েন্টি ঘরানার ক্রিকেটের সঙ্গে তার ব্যাটিংয়ের ধরনটা বরাবরই মানানসই। কিন্তু টেস্ট ক্রিকেটে স্থায়ী আসন গেঁড়ে নিতে পারবেন কিনা তা নিয়ে ওয়ার্নার নিজেও ছিলেন সন্দিহান। তবে ভারতের সাবেক তারকা ব্যাটসম্যান বিরেন্দর শেহওয়াগ অনেক আগেই ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন, টি-টোয়েন্টি সংস্করণের চেয়ে টেস্টে বেশি ভালো ব্যাটসম্যান হওয়ার যোগ্যতা রাখেন বাঁহাতি অজি তারকা।

শনিবার (৩০ নভেম্বর) অ্যাডিলেডে দিবা-রাত্রির টেস্টে পাকিস্তানের বিপক্ষে অপরাজিত ৩৩৫ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলেন ওয়ার্নার। এটি তার ক্যারিয়ারের প্রথম ট্রিপল সেঞ্চুরি। এই ইনিংস খেলে তিনি ছাড়িয়ে গেছেন ডন ব্র্যাডম্যানকেও। ওয়ার্নারের স্বদেশী কিংবদন্তি তারকার ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ টেস্ট ইনিংসটি ছিল ৩৩৪ রানের।

অসামান্য অর্জনের পর ওয়ার্নার নিজেই জানিয়েছেন তার সঙ্গে শেহওয়াগের কয়েক বছর আগে হওয়া কথোপকথনের বিষয়টি। তখন ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) দিল্লি ডেয়ারডেভিলসের (বর্তমানে বিলুপ্ত) হয়ে একইসঙ্গে খেলছিলেন দুজনে।

‘দিল্লির হয়ে খেলার সময় শেহওয়াগের সঙ্গে যখন আমার দেখা হয়েছিল, তিনি আমার পাশে বসে বলেছিলেন যে আমি টি-টোয়েন্টির চেয়ে বরং টেস্টে বেশি ভালো খেলোয়াড় হতে পারব। আমি তখন তাকে বলেছিলাম যে তিনি সম্ভবত প্রলাপ বকছেন কারণ খুব বেশি প্রথম শ্রেণির ম্যাচও আমি খেলিনি।’

শেহওয়াগ তার বক্তব্যের পেছনে বেশ কিছু যুক্তি দিয়েছিলেন এবং ওয়ার্নার কীভাবে খেললে রান করতে পারবেন সে পরামর্শও দিয়েছিলেন, ‘তিনি আরও বলেছিলেন যে (টেস্টের চিরায়ত ফিল্ডিং সাজানোর কৌশল অনুসারে) প্রতিপক্ষ স্লিপ ও গালি রাখবে, কভার ফাঁকা থাকবে, মিড-উইকেট থাকবে। মিড-অন ও মিড-অফ এগিয়ে থাকবে। তাই যদি আমি উড়ন্ত সূচনা করতে পারি এবং টিকে থাকতে পারি, তাহলে আমি সুযোগ নিতে পারব।’

‘কথাগুলো আমার মাথায় গেঁথে আছে। আর যখন আমরা আলোচনা করছিলাম, তখন বিষয়টা খুব সহজ মনে হয়েছিল।’

টি-টোয়েন্টি অভিষেকের প্রায় তিন বছর পর টেস্ট অভিষেক হয়েছিল ওয়ার্নারের। এর পরের গল্পটা সবার জানা। ক্ষুদ্র সংস্করণে দাপট দেখানোর পাশাপাশি দীর্ঘ সংস্করণের ক্রিকেটেও নিজের সামর্থ্যের প্রমাণ রেখে এখন পর্যন্ত ৪৮.৫৮ গড়ে ৬ হাজার ৯৪৭ রান করেছেন এই বাঁহাতি। সাদা পোশাকে ওয়ার্নারের সেঞ্চুরি সংখ্যা ২৩টি।

Comments