আনন্দধারা

মাইলসকে প্রাণ ভরে শুনলেন ভক্তরা

দেশের জনপ্রিয় ব্যান্ড মাইলস পার করলো চার দশক। গান নিয়ে ওয়ার্ল্ড ট্যুর শেষে জমকালো এক কনসার্টের মাধ্যমে ৪০ বছরের এই পথচলা উদযাপনের ইতি টানলো দেশের শীর্ষস্থানীয় ব্যান্ডদলটি।
Miles-1.jpg
শাফিন আহমেদ ও হামিন আহমেদ। ছবি: স্টার

দেশের জনপ্রিয় ব্যান্ড মাইলস পার করলো চার দশক। গান নিয়ে ওয়ার্ল্ড ট্যুর শেষে জমকালো এক কনসার্টের মাধ্যমে ৪০ বছরের এই পথচলা উদযাপনের ইতি টানলো দেশের শীর্ষস্থানীয় ব্যান্ডদলটি।

গতকাল (২৪ ডিসেম্বর) শীতের সন্ধ্যায় বসুন্ধরা আন্তর্জাতিক কনভেনশন সেন্টারে ব্যান্ড শিল্পীদের কণ্ঠে উপভোগ্য হয়ে উঠলো মাইলসের জনপ্রিয় সব গান। ভক্তরা প্রাণ ভরে শুনলেন মাইলসকে।

ভরপুর হল রুমে প্রথমেই মাইলসের ৪০ বছর উদযাপনে গান শুরু করে ব্যান্ড দল ভাইকিংস। তারা মাইলসকে উৎসর্গ করে গেয়ে শোনায় ‘শান্তি চাই’ গানটি। প্রথম গানে দর্শকদের করতালিতে মুখর হয়ে পড়ে পুরো হল।

এরপর উপস্থাপক আজরা মাহমুদ মঞ্চে ডেকে নেন গীতিকার লতিফুল ইসলাম শিবলীকে। তিনি মাইলসকে শুভকামনা জানান। তারপর মঞ্চে হাজির হয় ওয়ারফেজ। মাইলসকে উৎসর্গ করে তারা গেয়ে শোনায় মাইলসের ‘শেষ ঠিকানা’ গানটি।

পরে মঞ্চে আসে ব্যান্ড সোলস। ‘গুঞ্জন শুনি’ গানটি গেয়ে শোনান সোলসের নাসিম আলী। এরপর একে একে ফিডব্যাক ও দলছুট গেয়ে শোনায় মাইলসের গান। এছাড়াও, মাইলসের ‘নীলা’ গানের কনটেস্টে সেরা বিজয়ীরা মাইলসের সঙ্গেই মঞ্চে নীলা গানটি গেয়ে শোনান। দর্শক অনুরোধে পরে এই গানটি আবারও গেয়ে শোনান হামিন আহমেদ।

১৯৭৯ সালে যাত্রা করা মাইলসের সদস্য এখন পাঁচ। শাফিন আহমেদ, হামিন আহমেদ, মানাম আহমেদ, সৈয়দ জিয়াউর রহমান তূর্য ও ইকবাল আসিফ জুয়েল।

তাদের মধ্যে শাফিন, হামিন, মানাম শুরু থেকেই দলের সঙ্গে আছেন। ফরিদ রশিদের হাত ধরে মাইলসের পথচলা শুরু হয়। মঞ্চে কথা বলতে বলতে যেনো ৪০ বছর আগের দিনগুলোতে চলে যান ব্যান্ডের সদস্যরা।

Comments

The Daily Star  | English

2 MRT lines may miss deadline

The metro rail authorities are likely to miss the 2030 deadline for completing two of the six planned metro lines in Dhaka as they have not yet started carrying out feasibility studies for the two lines.

8h ago