বাংলাদেশ-পাকিস্তানের শেষ টি-টোয়েন্টি ভাসিয়ে নিল বৃষ্টি

লাহোরে অসময়ের বৃষ্টি আর থামল না। তৈরি হলো না টস করার পরিস্থিতিও। শেষ পর্যন্ত তাই পরিত্যক্তই হলো বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের তৃতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচ। টানা বৃষ্টির কারণে কাট অফ টাইমের আধঘণ্টা আগেই ম্যাচ পরিত্যক্ত ঘোষণা করেন আম্পায়াররা। প্রথম দুই ম্যাচ জিতে সিরিজ আগেই নিশ্চিত করায় নিয়মরক্ষার ম্যাচ থেকে সান্ত্বনারও কিছু পেল না বাংলাদেশ।

লাহোরে অসময়ের বৃষ্টি আর থামল না। তৈরি হলো না টস করার পরিস্থিতিও।  শেষ পর্যন্ত তাই পরিত্যক্তই হলো বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের তৃতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচ। টানা বৃষ্টির কারণে কাট অফ টাইমের আধঘণ্টা আগেই ম্যাচ পরিত্যক্ত ঘোষণা করেন আম্পায়াররা। প্রথম দুই ম্যাচ জিতে সিরিজ আগেই নিশ্চিত করায় নিয়মরক্ষার ম্যাচ থেকে সান্ত্বনারও কিছু পেল না বাংলাদেশ। 

এদিন টস হবার কিছুক্ষণ আগে বেলা সোয়া ২টার দিকে গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি নামতে থাকে। অল্প সময়ের মধ্যেই মুষলধারে বৃষ্টি নামতে শুরু করে। পরে সে বৃষ্টি না থামায় নির্ধারিত সময়ের আধা ঘণ্টা আগে বাংলাদেশ সময় বিকেল ৫টায় ম্যাচ পরিত্যাক্ত ঘোষণা করেন আম্পায়াররা। 

শেষ ম্যাচে ব্যাপক পরিবর্তনের কথা জানিয়েছিলেন বাংলাদেশ দলের কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। তাই এ ম্যাচে দেখা যেতে পারতো আগের দুই ম্যাচে একাদশের বাইরে থাকা খেলোয়াড়দের। পাকিস্তানও আগেই সিরিজ জিতে নেওয়ায় পরীক্ষা নিরীক্ষা চালাতে পারতো।

তবে এ ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ার পরও আইসিসি টি-টোয়েন্টি র‍্যাংকিংয়ের শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে পাকিস্তান। এ ম্যাচে হারলে দ্বিতীয় স্থানে নেমে যেত দলটি। শীর্ষে থাকতে এ সিরিজে অপরাজিত থাকতে হতো তাদের।

এর আগে সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচেই হেরে সিরিজ খুইয়ে বসে বাংলাদেশ। প্রথম ম্যাচে কিছুটা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারলেও দ্বিতীয় ম্যাচেও এক অর্থে উড়ে গেছে তারা। ১৪১ রানের পুঁজি নিয়ে ৫ উইকেটে হারে প্রথম ম্যাচে। দ্বিতীয় ম্যাচে পুঁজি পায় আরও কম। ১৩৭ রানের লক্ষ্য ছুঁড়ে ৯ উইকেটে হারে সফরকারীরা।

তবে দুই ম্যাচেই বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের খেলার ধরণ নিয়ে বেশ সমালোচনা হয়েছে। কারণ প্রথম ম্যাচে ওপেনিং জুটি টিকেছিল প্রায় ১১ ওভার। কিন্তু তারপরও পাওয়ার প্লেতে মিলে ৩৫ রান। ১০ ওভারে রান আসে মাত্র ৬২ রান। এরপর মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানরাও স্ট্রাইক রোটেড করতে পারেননি। ফলে মাঝারি পুঁজি নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয় তাদের।

আর দ্বিতীয় ম্যাচে অবস্থা আরও শোচনীয়। রানের গতি আরও মন্থর। তার উপর শুরু থেকেই নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারায় দলটি। ফলে সাদামাটা লক্ষ্য ছুঁড়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয় তাদের। এরপর নির্বিষ বোলিংয়ে হারতে হয় বড় ব্যবধানে। সব ভুল শোধরে পাকিস্তান থেকে কিছুটা প্রাপ্তির সুযোগ ছিল এই ম্যাচে। কিন্তু প্রতিকূল আবহাওয়ায় বাংলাদেশকে ফিরতে হচ্ছে খচখচানি নিয়ে। নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কার মধ্যে সিরিজ খেলে রাতেই ভাড়া করা বিমানে দেশে ফিরবেন মাহমুদউল্লাহরা।

Comments

The Daily Star  | English

C&F staff halt work at 4 container depots

Staffers of clearing and forwarding (C&F) agents stopped working at four leading inland container depots (ICDs) in the port city since the early hours today following a dispute with customs officials, which eventually led to a clash between C&F staff and staff of an ICD

17m ago