কৌশলে ফিলিস্তিনিদের ইসরাইলি হিসেবে তালিকাভুক্ত করছে অ্যামাজন

পশ্চিম তীর দখল করে ইসরাইলি যে বসতি গড়ে তুলেছে সেই অবৈধ বসতিতে বিনা খরচে পণ্য পরিবহন অফার দিচ্ছে ই-কমার্স জায়ান্ট অ্যামাজন। সেখানকার ফিলিস্তিনিরাও চাইলে এই অফার নিতে পারবেন। তবে, ফিলিস্তিনিদের ক্ষেত্রে ভিন্ন কৌশল নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।
Amazon
ছবি: সংগৃহীত

পশ্চিম তীর দখল করে ইসরাইলি যে বসতি গড়ে তুলেছে সেই অবৈধ বসতিতে বিনা খরচে পণ্য পরিবহন অফার দিচ্ছে ই-কমার্স জায়ান্ট অ্যামাজন। সেখানকার ফিলিস্তিনিরাও চাইলে এই অফার নিতে পারবেন। তবে, ফিলিস্তিনিদের ক্ষেত্রে ভিন্ন কৌশল নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

ওই কৌশলের মাধ্যমে ফিলিস্তিনিদের ইসরাইলি নাগরিক হিসেব নথিভুক্ত করছে অ্যামাজন। কারণ, প্রতিষ্ঠানটির শর্ত অনুযায়ী ফিলিস্তিনিরা যদি নিজেদের ইসরাইলি হিসেবে পরিচয় দেন তাহলেই এই সুযোগ নিতে পারবেন। সম্প্রতি ফিন্যান্সিয়াল টাইমসের এক তদন্তে এ তথ্য বেরিয়ে এসেছে।

তদন্ত প্রতিবেদনটি তৈরি করেছে ফিন্যান্সিয়াল টাইমসের দুই সংবাদকর্মী ইলাম বিন জিয়ান এবং ম্যাক্স হারলো। সম্প্রতি, সংবাদমাধ্যমটির অনলাইন সংস্করণে এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত বছরের নভেম্বর ইসরাইলে ব্যবসা শুরু করে অ্যামাজন এবং তারা ৪৯ মার্কিন ডলার পর্যন্ত ফ্রি পণ্য পরিবহনের সুযোগ দিচ্ছে।

অ্যামাজনের এই অফারটি ইসরাইলের দখলকৃত অঞ্চল ছাড়াও ফিলিস্তিনি অঞ্চল পর্যন্ত বিস্তৃত বলে উল্লেখ করেছেন ফিন্যান্সিয়াল টাইমসের সংবাদকর্মীরা। কিন্তু, ফিলিস্তিনের যেসব ক্রেতা নিজেদের ফিলিস্তিনি হিসেবে উল্লেখ করেছে, তাদের কাছ থেকে ২৪ ডলারের বেশি শিপিং খরচ আদায় করছে প্রতিষ্ঠানটি।

অ্যামাজনের মুখপাত্র নিক ক্যাপলিন বলেছেন, “যদি ফিলিস্তিনি অঞ্চলের কোনও ক্রেতা তাদের ওয়েবে প্রবেশ করে নিজের দেশ হিসেবে ইসরাইলকে নির্বাচন করে, তাহলে তারা এই অফারের আওতায় ফ্রি পণ্য পরিবহনের সুযোগ নিতে পারবেন।”

বর্তমানে পশ্চিম তীরে ইসরাইলের অবৈধ বসতিতে প্রায় ৪ লাখ ৬০ হাজার ইসরাইলি বাস করছেন। এ বসতিগুলো আন্তর্জাতিকভাবে অবৈধ হিসেবে স্বীকৃত।

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনজীবী মাইকেল সাফার্ড অ্যামাজনের এই নীতিকে ‘নির্মম বৈষম্য’ হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

ওই অঞ্চলে কাজ করা সংস্থা পিস নাউ বলেছে, অ্যামাজনের এমন বেআইনি ও অনৈতিক নীতির কারণে ইসরাইলের নাগরিকের সুযোগ-সুবিধা ভোগ করার সামগ্রিক চিত্র ফুটে উঠেছে। যেসব সুবিধা থেকে একই অঞ্চলে বাস করা ফিলিস্তিনিরা বঞ্চিত।

আন্তর্জাতিক আইনে এসব বসতি অবৈধ হলেও কিছু বড় বড় কোম্পানি এখানকার বাসিন্দার সঙ্গে লেনদেন ও ব্যবসা করছে।

উল্লেখ্য, জাতিসংঘ ইসরাইলের অবৈধ বসতিতে ব্যবসা চালিয়ে যাওয়া ১১২ প্রতিষ্ঠানের তালিকা প্রকাশ করেছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে- এয়ারবিএনবি, এক্সপিডিয়া, ওপোডো এবং মটোরোলা। তবে ওই তালিকায় অ্যামাজনের নাম ছিল না।

Comments

The Daily Star  | English

New School Curriculum: Implementation limps along

One and a half years after it was launched, implementation of the new curriculum at schools is still in a shambles as the authorities are yet to finalise a method of evaluating the students.

1h ago