বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস

বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুদের জন্য অনলাইন হেল্প চালু

আজ বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস। করোনাভাইরাসের কারণে দেশব্যাপী সাধারণ ছুটির মাঝেই বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুদের সেবা দিতে আজ বৃহস্পতিবার থেকে অনলাইন হেল্প চালু করেছে ‘সিলেট আর্ট এন্ড অটিজম ফাউন্ডেশন’ এবং ‘সিলেট আর্ট এন্ড অটিস্টিক স্কুল’।

আজ বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস। করোনাভাইরাসের কারণে দেশব্যাপী সাধারণ ছুটির মাঝেই বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুদের সেবা দিতে আজ বৃহস্পতিবার থেকে অনলাইন হেল্প চালু করেছে ‘সিলেট আর্ট এন্ড অটিজম ফাউন্ডেশন’ এবং ‘সিলেট আর্ট এন্ড অটিস্টিক স্কুল’।

বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুদের সমস্যা, সমাধানে করণীয়, বিভিন্ন থেরাপি ও পরামর্শসহ নানা বিষয়ে অভিভাবকরা অনলাইন হেল্প নাম্বারে হোয়াটসঅ্যাপ থেকে কল করে সেবা নিতে পারবেন বলে জানিয়েছেন ফাউন্ডেশনের সদস্য সচিব ও স্কুলের অধ্যক্ষ ইসমাইল গনি হিমন।

তিনি বলেন, ‘আজ থেকে প্রতিদিন সকাল ১১টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত +৮৮০১৯৭৭৭৩৭৩৯৯ নম্বরে কল করে দেশের যে কোনো বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুদের অভিভাবক সেবা ও পরামর্শ নিতে পারবেন।’

আগামী রোববার থেকে সিলেট আর্ট এন্ড অটিস্টিক স্কুলের শিক্ষার্থীদের জন্য অনলাইন ক্লাস শুরু হবে বলেও জানান তিনি।

হিমন বলেন, ‘প্রতিবছর নীল বাতি জ্বালিয়ে নানা আয়োজনে দিবসটি পালন করলেও এবার বিশেষ কোনো আয়োজন করা হয়নি। অনলাইনে সেবা দেওয়ার উদ্যোগটি নেওয়া হয়েছে দেশের বিশেষ পরিস্থিতিতে বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুদের সার্বিক অবস্থা বিবেচনা করে।’

একজন বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুর অভিভাবক পলাশ পুরকায়স্থ জানান, উদ্যোগটি প্রশংসনীয় এবং এতে এই পরিস্থিতিতে কোনো সমস্যায় পরলে অভিভাবকরা উপযুক্ত পরামর্শ পাবেন।

দেশের বিশেষ শিশুদের বড় একটি অংশ সুবিধা বঞ্চিত শ্রেণীর। যারা অনলাইন সেবা বা কোনো ধরণের সরকারি সেবা থেকে বঞ্চিত। দেশের এমন অবস্থায় তাদের জন্য সরকারি উদ্যোগ নেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

দেশের এই বিশেষ অবস্থাও এখন পর্যন্ত এই শিশুদের জন্য বিশেষ সেবার উদ্যোগ গ্রহণ করেনি দায়িত্বপ্রাপ্ত কোনো সরকারি প্রতিষ্ঠান।

সিলেট জেলা প্রতিবন্ধী বিষয়ক কর্মকর্তা চন্দন কুমার পাল বলেন, ‘সিলেট আর্ট এন্ড অটিজম ফাউন্ডেশনের উদ্যোগ নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়। তবে কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা না থাকায় এ পরিস্থিতিতে জেলা প্রতিবন্ধী সেবা ও সাহায্য কেন্দ্রে এই শিশুদের জন্য বিশেষ কোন সেবা এখন পর্যন্ত চালু করা হয়নি।’

সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অবস্থিত শিশু বিকাশ কেন্দ্রের চাইল্ড হেলথ ফিজিশিয়ান ডা. শ্যাম জয় দাস বলেন, ‘দেশের এ পরিস্থিতিতেও শিশু বিকাশ কেন্দ্রের স্বাভাবিক কার্যক্রম চলছে এবং কেন্দ্র নির্ধারিত সময়ে খোলা আছে। তবে কেন্দ্রে না এসে বাসায় থেকে ফোনে সেবা নেওয়ার কোনো উদ্যোগ এখন পর্যন্ত নেওয়া হয়নি।’

২০০৭ সাল থেকে জাতিসংঘ প্রতিবছর ২ এপ্রিল বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস পালন করে আসছে। বাংলাদেশেও দিবসটি উপলক্ষে প্রতিবছর নানা কর্মসূচি নেওয়া হয়। তবে এবার করোনাভাইরাসের কারণে দেশের সব ধরনের অনুষ্ঠান আয়োজন বাতিল করা হয়েছে।

Comments

The Daily Star  | English

Lifts at public hospitals: Where Horror Abounds

Shipon Mia (not his real name) fears for his life throughout the hours he works as a liftman at a building of Sir Salimullah Medical College, commonly known as Mitford hospital, in the capital.

10h ago