আরও ৫০ লাখ মানুষের রেশন কার্ড করে দেবো: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘যেহেতু সবকিছু এখন বন্ধ, অনেক মানুষের কষ্ট হচ্ছে। বিশেষ করে যারা দিনমজুর, যারা কৃষক, শ্রমিক, মেহনতি মানুষ, যারা খেটে খাওয়া মানুষ, ছোট-খাট ব্যবসায়ী, এমনকি নিম্নবিত্ত তাদেরও কষ্ট হচ্ছে। সেটা মাথায় রেখে আমরা ইতোমধ্যে একটা প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা দিয়েছি। যেখান থেকে সব শ্রেণি-পেশার মানুষ, সবাইকে আমরা সহযোগিতা করবো। সেটা আমরা করে যাচ্ছি।’
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: পিআইডি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘যেহেতু সবকিছু এখন বন্ধ, অনেক মানুষের কষ্ট হচ্ছে। বিশেষ করে যারা দিনমজুর, যারা কৃষক, শ্রমিক, মেহনতি মানুষ, যারা খেটে খাওয়া মানুষ, ছোট-খাট ব্যবসায়ী, এমনকি নিম্নবিত্ত তাদেরও কষ্ট হচ্ছে। সেটা মাথায় রেখে আমরা ইতোমধ্যে একটা প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা দিয়েছি। যেখান থেকে সব শ্রেণি-পেশার মানুষ, সবাইকে আমরা সহযোগিতা করবো। সেটা আমরা করে যাচ্ছি।’

‘এমনকি যারা হাত পেতে খেতে পারবেনা, তাদের জন্য আমরা মাত্র ১০ টাকা কেজিতে চাল বিক্রয়ের ব্যবস্থা নিয়েছি। তবে, এটা আমরা এখন সিদ্ধান্ত নিয়েছি, আমাদের ৫০ লাখ মানুষের জন্য রেশন কার্ড করা আছে, (যারা) ১০ টাকায় চাল পান। আমরা আরও ৫০ লাখ মানুষের রেশন কার্ড করে দেবো। কারণ, এমনি দিতে গেলে অনেক সময় সমস্যা হয়ে যায়। সে ধরনের কিছু ঘটনা ঘটার ফলে আমরা এটা আপাতত স্থগিত করে তালিকা করার জন্য নির্দেশ দিয়েছি’, বলেন তিনি।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় করোনা পরিস্থিতি নিয়ে গণভবন থেকে ঢাকা বিভাগের নয়টি জেলার প্রতিনিধি ও কর্মকর্তাদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনাকালে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ইতোমধ্যে আমাদের প্রশাসন, পুলিশসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থা, আমাদের সশস্ত্র বাহিনী থেকে শুরু করে বর্ডার গার্ড, যে যেখানে আছে, প্রত্যেকে কিন্তু অত্যন্ত আন্তরিকতার সঙ্গে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। মানুষের চিকিৎসার ক্ষেত্রে আমাদের ডাক্তার, নার্সসহ সংশ্লিষ্ট সব কর্মীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চিকিৎসাসেবা দিয়ে যাচ্ছেন, কাজ করে যাচ্ছেন। আমি সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি। জাতির এই ক্রান্তিলগ্নে তারা পাশে এসে দাঁড়িয়েছে।’

‘এই ভাইরাসের কারণে অর্থনীতির ওপর বিরূপ প্রভাব পড়ছে। সারা বিশ্বে আজকে এই আশঙ্কা, জাতিসংঘ থেকে শুরু করে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা বলছে, সারা বিশ্বব্যাপী প্রচণ্ড অর্থনৈতিক মন্দা দেখা যাবে। এমনকি দুর্ভিক্ষও দেখা দিতে পারে। সেক্ষেত্রে আমাদের করণীয় আছে। আমাদের দেশের মানুষকে রক্ষা করা বা এ ধরনের দুর্ভিক্ষ বা অর্থনৈতিক মন্দা আসে, তার থেকে দেশকে কীভাবে আমরা রক্ষা করবো’, বলেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘এগুলো চিন্তা করে আমরা ইতোমধ্যে ৯২ হাজার কোটি টাকা, বলতে গেলে প্রায় ১ লাখ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ তৈরি করেছি। তা আমরা বাস্তবায়ন শুরু করেছি। যেকোনো রকম মন্দা আসলে আমরা যাতে মোকাবিলা করতে পারি। সেটা শুধু এখনবার জন্যই নয়। আগামী তিন অর্থবছরে আমরা কীভাবে দেশের মানুষকে অর্থনৈতিক মন্দা থেকে উদ্ধার করবো, সেই পরিকল্পনাও আমরা নিচ্ছি। সেভাবে আমরা প্রত্যেকটা পদক্ষেপ আগাম নিয়ে নিচ্ছি। একটু আগাম আমরা কিছু কর্মসূচি নিয়ে নিচ্ছি।’

আরও পড়ুন:

ঘরে বসে তারাবি পড়েন: প্রধানমন্ত্রী

Comments

The Daily Star  | English

Peacekeepers can face non-deployment for rights abuse: UN

The UN peacekeepers can face non-deployment and even repatriation if the allegations of human rights against them are substantiated

35m ago