বাংলামোটরে করোনার কিটসহ চিকিৎসা সরঞ্জাম মজুদের অভিযোগে গ্রেপ্তার ৪

করোনাভাইরাসের টেস্টিং কিটসহ বিপুল সংখ্যক চিকিৎসা উপকরণ মজুদের অভিযোগে রাজধানীর বাংলামোটর এলাকা থেকে চার জনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশে (ডিএমপি)।
arrest logo
প্রতীকী ছবি। স্টার অনলাইন গ্রাফিক্স

করোনাভাইরাসের টেস্টিং কিটসহ বিপুল সংখ্যক চিকিৎসা উপকরণ মজুদের অভিযোগে রাজধানীর বাংলামোটর এলাকা থেকে চার জনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশে (ডিএমপি)।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন আনোয়ার হোসেন, অমিত বসাক, শোয়াইব ও শুভ।

ডিএমপির রমনা জোনের সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার এস, এম, শামীম আজ শুক্রবার দ্য ডেইলি স্টারকে জানান, তিনি তার টিমসহ গতকাল সন্ধ্যার পর মগবাজার মোড়ে চেকপোস্ট ডিউটি করছিলেন। তখন এক ব্যক্তি তার কাছে অভিযোগ করেন বাংলামোটরের এক ব্যবসায়ী ২০টি মাস্কের দাম ৩০ হাজার টাকা রেখেছেন যদিও মাস্কগুলোর প্রকৃত মূল্য ৩,৬০০ টাকা।

অভিযোগ শুনে বাংলা মোটরের জহুরা টাওয়ারে অবস্থিত এবিসি কর্পোরেশনে অভিযান পরিচালনা করে অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করেন।

তিনি বলেন, ‘সেসময় দোকান তল্লাশি করে করোনা টেস্টিং কিট পাওয়া যায় যা বেসরকারিভাবে পাওয়ার কথা নয়।’

আটককৃতদের কাছ থেকে ২৭৫ পিস করোনা টেস্টিং কিট, ৯,০৫০ পিস সাধারণ মাস্ক, ১০০ পিস এন-৯৫ মাস্ক, ১৯৮ পিস পিপিই, ৯৬০ জোড়া হ্যান্ড গ্লাভস, ২৫০ জোড়া চশমা, ৯০০টি ক্যাপ, ১,৪৪০টি শু-কাভার জব্দ করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

শামীম বলেন, ‘টেস্টিং কিট, পিপিই ও মাস্কের অভাবে ভাইরাসের চিকিৎসা সেবাদান যখন ব্যহত হচ্ছে তখন আটককৃতরা অধিক মুনাফার লোভে অতি এসব পণ্য অবৈধভাবে গুদামজাত করে রেখেছেন।’

এ বিষয়ে শাহবাগ থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

Comments

The Daily Star  | English

Peacekeepers can face non-deployment for rights abuse: UN

The UN peacekeepers can face non-deployment and even repatriation if the allegations of human rights against them are substantiated

29m ago