জালে ওঠেনি ইলিশ, শূন্য হাতে ফিরলেন জেলেরা

চাঁদপুরে পদ্মা ও মেঘনা নদীতে ইলিশ না পাওয়ায় শূন্য হাতে ফিরতে হয়েছে জেলেদের। তাদের দাবি, লকডাউনের সুযোগ নিয়ে নিষেধাজ্ঞার ভেতরেও এক শ্রেণির জেলে মাছ শিকার করেছে। যে কারণে জালে ইলিশ ওঠেনি।
Chandpur_Hilsha
জালে ইলিশ না ওঠায় চাঁদপুরের প্রধান মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র বড় স্টেশন মাছঘাটে অলস সময় কাটাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। ছবি: স্টার

চাঁদপুরে পদ্মা ও মেঘনা নদীতে ইলিশ না পাওয়ায় শূন্য হাতে ফিরতে হয়েছে জেলেদের। তাদের দাবি, লকডাউনের সুযোগ নিয়ে নিষেধাজ্ঞার ভেতরেও এক শ্রেণির জেলে মাছ শিকার করেছে। যে কারণে জালে ইলিশ ওঠেনি।

আজ শুক্রবার সকাল থেকেই চাঁদপুরের প্রধান মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র বড় স্টেশন মাছঘাট ছিল প্রায় ইলিশ শূন্য। মাছের আড়তে ব্যবসায়ী ও শ্রমিকদের অলস সময় কাটাতে দেখা গেছে।

চাঁদপুর মৎস্য ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আব্দুল খালেক মাল বলেন, ‘করোনার সুযোগে আগেই চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনার সব মাছ তুলে নিয়েছে এক শ্রেণির জেলে। যে কারণে এই প্রথম বাজার শুধু ইলিশ নয়— মাছ শূন্য। তবে করোনা দুর্যোগ কেটে গেলে জেলেরা সাগরে গিয়ে মাছ ধরে আনবে।’

চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক মো. মাজেদুর রহমান খান বলেন, ‘মাছ ধরার নিষেধাজ্ঞা শেষ হলেও জেলেরা সেভাবে নদীতে নামতে পারছে না। কারণ নদীতে এখনো লকডাউন আছে। তাই অন্য জেলা থেকে জেলেরা যেমন মাছ ধরতে চাঁদপুরে আসতে পারবে না, তেমন চাঁদপুরের জেলেরাও অন্য জেলায় যেতে পারবে না। লকডাউন নিশ্চিত করতে প্রশাসন কঠোর অবস্থানে আছে। কেউ নিয়ম ভাঙার চেষ্টা করলে কোস্টগার্ড ও নৌ-পুলিশ আইনি ব্যবস্থা নেবে।’

জাটকা ইলিশ রক্ষায় গত ১ মার্চ থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনা নদীর ৭০ কিলোমিটার এলাকায় মাছ ধরা নিষিদ্ধ ঘোষণা করে সরকার। এই সময়ে মাছ ধরা, পরিবহন, বিক্রি ও মজুদ সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ ছিল।

Comments

The Daily Star  | English

Step up efforts to prevent fire incidents: health minister

Health Minister Samanta Lal Sen today urged all the authorities concerned of the government to stay alert and strengthen monitoring and conduct regular drives to reduce fire incidents

11m ago