মাদারীপুরে বানর হত্যার দায়ে কারাগারে ১

মাদারীপুরে খাবারে বিষ মিশিয়ে বানর হত্যার অভিযোগে এক নারীকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। আজ রবিবার বিকালে চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক তাকে কারাগারের পাঠানোর নির্দেশ দেন।

মাদারীপুরে খাবারে বিষ মিশিয়ে বানর হত্যার অভিযোগে এক নারীকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। আজ রবিবার বিকালে চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক তাকে কারাগারের পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এর আগে, আজ সকালে শহরের মধ্য খাগদী এলাকা থেকে ওই নারী ও তার দেবরকে আটক করে পুলিশ। তবে, পুলিশ ওই নারীকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে পাঠালেও তার দেবরকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

মাদারীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) বদরুল আলম মোল্লা বলেন, ‘আমরা দুজনকে আটক করলেও একজন প্রকৃত অপরাধী। তিনি প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে বানরকে ওই দিন খাবার খাওয়ানোর কথা স্বীকার করেছেন। তিনি এর আগেও খাবারে বিষ দিয়ে আরও ৭-৮ টি বানর মেরেছেন বলেও জানা গেছে। তাকে আদালতে হাজির করা হলে আদালত তাকে কারাগারে পাঠায়। এ ঘটনায় আরও অনেকে জড়িত থাকতে পারে বলেও আমরা সন্দেহ করছি। আমরা তদন্ত করছি পাশাপাশি খাবারে বিষ কীভাবে এলো তা খুঁজে বের করা হচ্ছে।’

প্রসঙ্গত, গত ৫ মে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মাদারীপুর পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের মধ্য খাগদী এলাকায় বিষ মেশানো খাবার খেয়ে ১৩টি বানরের মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটে। এই বানরগুলোর মধ্যে ৮ টিকে মধ্য খাদগী এলাকার একটি খাল পাড়ে মাটি চাপা দেওয়া হয়। এবং মৃত ৫টি বানরের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ঢাকায় জেলা প্রাণী সম্পদ অফিসে পাঠানো হয়।

এ ঘটনায় মাদারীপুর বন বিভাগ গত বৃহস্পতিবার সদর মডেল থানায় ফৌজদারি এবং চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা আইনে আলাদা দুটি মামলা দায়ের করে। এছাড়াও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। এরপর থেকেই পুলিশ ওই এলাকায় গিয়ে বানর হত্যায় জড়িতদের ধরতে তদন্ত শুরু করে। ঘটনার পাঁচ দিন পরে মধ্যখাগদী থেকে ওই নারী ও তার দেবরকে জিজ্ঞাসাবের জন্য আটক করে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশের কাছে আটক নারী তার অপরাধ স্বীকার করে। পরে পুলিশ তাকে আদালতে পাঠায় ও তার দেবরকে ছেড়ে দেয়।

Comments

The Daily Star  | English

4 killed in clash between police and quota protesters in Uttara

Over 50 injured were rushed to Kuwait Bangladesh Friendship Government Hospital, and four among them were declared dead

50m ago