শীর্ষ খবর

৩ জেলায় বজ্রপাতে নিহত ৪

বরিশাল, লালমনিরহাট ও বগুড়ায় বজ্রপাতে চার জনের মৃত্যু হয়েছে।
Lightning
স্টার অনলাইন গ্রাফিক্স

বরিশাল, লালমনিরহাট ও বগুড়ায় বজ্রপাতে চার জনের মৃত্যু হয়েছে।

আমাদের স্থানীয় সংবাদদাতারা এ তথ্য জানিয়েছেন।

আমাদের বরিশাল সংবাদদাতা জানিয়েছেন, গতকাল বুধবার সকালে বরিশাল বিভাগীয় শহরে ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে নগরীর কেন্দ্রস্থলসহ বেশিরভাগ এলাকার সড়ক ডুবে যায়। নগরীর বিভিন্ন অঞ্চলে জলাভূমি, খাল, পুকুর ও নদী উপচে পানি প্রবাহিত হলে স্থানীয় বাসিন্দাদের ভোগান্তি পোহাতে হয়।

সে সময় কোথাও কোথাও বজ্রপাত হয় উল্লেখ করে তিনি আরও জানান, বজ্রপাতে বরিশালের মুলাদী উপজেলায় এক কৃষক মারা গেছেন।

মুলাদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ফয়েজ আহমেদ দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘মুলাদী উপজেলার ছবিপুর ইউনিয়নের চর ভেদুরিয়ার গ্রামের কৃষক আবুল মান্নান (৪৪) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে গরু নিয়ে মাঠে গেলে বজ্রপাতে মারা যান।’

আমাদের লালমনিরহাট সংবাদদাতা জানিয়েছেন, গতকাল বিকেলে লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলায় বজ্রপাতে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে।

উপজেলার মহিষখোচা ইউনিয়নের গোয়ালপাড়া গ্রামে নিজ বাড়িতে তিনি এ দুর্ঘটনার শিকার হন।

মৃত তমিজন নেছা (৪৮) ওই গ্রামের সামছুল হকের স্ত্রী ছিলেন।

আদিতমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘বিকেলে তমিজন নেছা বাড়ির সামনের রাস্তায় দাঁড়িয়ে ছিলেন। হঠাৎ বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান।’

আমাদের বগুড়া সংবাদদাতা জানান, বগুড়ার ধুনট উপজেলার স্থানীয় একটি বাজারে গতকাল বিকেলে বজ্রপাতে দুজন মারা গেছেন।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে পুলিশ ডেইলি স্টারকে জানায়, বুধবার  বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে উপজেলার মথুরামপুর ইউনিয়নের সাগাটিয়া বাজারে বজ্রপাতে উপজেলার হিজলী গ্রামের মসলা বিক্রেতা ফজর আলী (৪৪) ও সবজি বিক্রেতা হাফিজুর রহমান (৪৬) গুরুতর আহত হন।

আহত অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

ধুনট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কৃপা সিন্ধু বালা বলেন, ‘হাটে ব্যবসা করার সময় বজ্রপাতে দুই ব্যবসায়ীর মৃত্যু হয়েছে। ব্যবসায়ী হাফিজুর রহমান ও ফজর আলীর মরদেহ তাদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।’

Comments

The Daily Star  | English

Complete waste removal on 2nd day of Eid: DNCC

Dhaka North City Corporation has removed 100 percent of the waste generated during Eid-ul-Azha

15m ago