করোনাভাইরাস

মৃত্যু ৪ লাখ ৮৯ হাজার, আক্রান্ত ৯৬ লাখের বেশি

বিশ্বব্যাপী প্রতিনিয়ত মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়ছে। ইতোমধ্যে চার লাখ ৮৯ হাজারেরও বেশি মানুষ মারা গেছেন। আক্রান্ত হয়েছেন ৯৬ লাখের বেশি। এ ছাড়া, সুস্থও হয়েছেন প্রায় সাড়ে ৪৮ লাখ মানুষ।
ব্রাজিলে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবকালীন মানুষের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছেন স্বাস্থ্যকর্মীরা। ৬ জুন ২০২০। ছবি: রয়টার্স

বিশ্বব্যাপী প্রতিনিয়ত মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়ছে। ইতোমধ্যে চার লাখ ৮৯ হাজারেরও বেশি মানুষ মারা গেছেন। আক্রান্ত হয়েছেন ৯৬ লাখের বেশি। এ ছাড়া, সুস্থও হয়েছেন প্রায় সাড়ে ৪৮ লাখ মানুষ।

আজ শুক্রবার জনস হপকিনস ইউনিভার্সিটির করোনাভাইরাস রিসোর্স সেন্টার এ তথ্য জানিয়েছে।

জনস হপকিনস ইউনিভার্সিটির সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৯৬ লাখ ৯ হাজার ৮২৯ জন এবং মারা গেছেন ৪ লাখ ৮৯ হাজার ৩১২ জন। এ ছাড়া, সুস্থ হয়েছেন ৪৮ লাখ ৩৮ হাজার ৯২১ জন।

করোনাভাইরাসে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃত্যু যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ২৪ লাখ ২২ হাজার ২৯৯ জন এবং মারা গেছেন ১ লাখ ২৪ হাজার ৪১০ জন। এ ছাড়া, সুস্থ হয়েছেন ৬ লাখ ৬৩ হাজার ৫৬২ জন।

যুক্তরাষ্ট্রের পর সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃত্যু দক্ষিণ আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে। দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ১২ লাখ ২৮ হাজার ১১৪ জন, মারা গেছেন ৫৪ হাজার ৯৭১ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৬ লাখ ৭৯ হাজার ৫২৪ জন।

মৃত্যুর সংখ্যার দিক থেকে তৃতীয়তে রয়েছে যুক্তরাজ্য। দেশটিতে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত ৪৩ হাজার ৩১৪ জন মারা গেছেন। আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লাখ ৯ হাজার ৪৫৫ জন। এ ছাড়া, সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৩৬১ জন।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ছে রাশিয়া ও পেরুতেও। রাশিয়ায় এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৬ লাখ ১৩ হাজার ১৪৮ জন এবং মারা গেছেন ৮ হাজার ৫৯৪ জন। এ ছাড়া, সুস্থ হয়েছেন ৩ লাখ ৭৪ হাজার ৫৫৭ জন। পেরুতে আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৬৮ হাজার ৬০২ জন এবং মারা গেছেন ৮ হাজার ৭৬১ জন। এ ছাড়া, সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৫১ হাজার ২২৫ জন।

প্রতিবেশী দেশ ভারতে আক্রান্ত হয়েছেন ৪ লাখ ৯০ হাজার ৪০১ জন, মারা গেছেন ১৫ হাজার ৩০১ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ২ লাখ ৮৫ হাজার ৬৩৭ জন।

ইউরোপের দেশ স্পেনে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৪৭ হাজার ৪৮৬ জন, মারা গেছেন ২৮ হাজার ৩৩০ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৫০ হাজার ৩৭৬ জন। ইতালিতে আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৩৯ হাজার ৭০৬ জন, মারা গেছেন ৩৪ হাজার ৬৭৮ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৮৬ হাজার ৭২৫ জন। ফ্রান্সে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৯৭ হাজার ৮৮৫ জন, মারা গেছেন ২৯ হাজার ৭৫৫ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৭৫ হাজার ৪৭৫ জন। জার্মানিতে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৯৩ হাজার ৩৭১ জন, মারা গেছেন ৮ হাজার ৯৪০ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৭৬ হাজার ৭৬৪ জন।

মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ইরানে আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ১৫ হাজার ৯৬ জন, মারা গেছেন ১০ হাজার ১৩০ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৭৫ হাজার ১০৩ জন। তুরস্কে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৯৩ হাজার ১১৫ জন, মারা গেছেন ৫ হাজার ৪৬ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৬৫ হাজার ৭০৬ জন।

ভাইরাসটির সংক্রমণস্থল চীনে আক্রান্ত হয়েছেন ৮৪ হাজার ৭০১ জন, মারা গেছেন ৪ হাজার ৬৪১ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৭৯ হাজার ৫৭২ জন।

উল্লেখ্য, গত ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)। প্রতিষ্ঠানটির সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, দেশে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ১ লাখ ২৬ হাজার ৬০৬ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। মারা গেছেন ১ হাজার ৬২১ জন। এ ছাড়া, সুস্থ হয়েছেন ৫১ হাজার ৪৯৫ জন।

Comments

The Daily Star  | English

Desire for mobile data trumps all else

As one strolls along Green Road or ventures into the depths of Karwan Bazar, he or she may come across a raucous circle formed by labourers, rickshaw-pullers, and street vendors.

15h ago