ব্রহ্মপুত্র-তিস্তাপাড়ের বানভাসিদের এক বেলার খাবার দিচ্ছে ‘স্বপ্নবুনি’

কুড়িগ্রাম ও লালমনিরহাটের ব্রহ্মপুত্র, তিস্তা ও ধরলাপাড়ের পানিবন্দি বানভাসি ও ভাঙ্গন কবলিত পরিবারের হাতে একবেলার খাবার তুলে দিচ্ছে কুড়িগ্রামের স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘স্বপ্নবুনি’।
Swapnabuni
কুড়িগ্রাম ও লালমনিরহাটের ব্রহ্মপুত্র, তিস্তা ও ধরলাপাড়ের পানিবন্দি বানভাসি ও ভাঙ্গন কবলিত পরিবারদের খাবার দিচ্ছে কুড়িগ্রামের স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘স্বপ্নবুনি’। ছবি: স্টার

কুড়িগ্রাম ও লালমনিরহাটের ব্রহ্মপুত্র, তিস্তা ও ধরলাপাড়ের পানিবন্দি বানভাসি ও ভাঙ্গন কবলিত পরিবারের হাতে একবেলার খাবার তুলে দিচ্ছে কুড়িগ্রামের স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘স্বপ্নবুনি’।

নদীপাড়ে বানভাসি অসহায় মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে জনপ্রতি এক প্যাকেট খিচুড়ি পৌঁছে দিচ্ছেন সংগঠনটির সদস্যরা।

সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক সাংবাদিক ইউসুফ আলমগীর দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘বন্যা পরিস্থিতি দেখা দেওয়ার পর থেকে কুড়িগ্রাম ও লালমনিরহাটের ব্রহ্মপুত্র, তিস্তা ও ধরলাপাড়ের বিভিন্ন চর ও নদী তীরবর্তী এলাকাগুলোতে এক বেলার খাবার বিতরণ করা হচ্ছে।’

‘দুর্যোগে দুর্ভোগে সাথে আছি আমরা’ এই শ্লোগানে সংগঠনটির সদস্যরা এ অঞ্চলে যে কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগে মানুষের পাশে গিয়ে দাঁড়াচ্ছেন বলেও জানান তিনি।

আমেরিকা প্রবাসি প্রকৌ্শলী মোর্শেদা খাতুন এ সংগঠনটিকে আর্থিকভাবে সহায়তা করে আসছেন উল্লেখ করে তিনি আরও জানান, এছাড়াও, স্থানীয় ও বিভিন্ন স্থান থেকে মানুষজন তাদের সাধ্যমতো সহায়তা করে আসছেন।

সংগঠেনের সদস্যরা নিজেদের অর্থ দিয়ে সংগঠনটির কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন বলেও তিনি জানান।

সংগঠনটির সদস্য লালমনিরহাট সদর উপজেলার তিস্তাপাড়ের গ্রাম গুড়িয়াদহের পরেশ চন্দ্র রায় ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘দুর্যোগকালে মানুষের পাশে থাকা একটি ভালো কাজ। এক প্যাকেট খিচুড়ি হয়তো একজন মানুষের কাছে কিছু নয়। কিন্তু, দুর্যোগকালে তিস্তাপাড়ের মানুষের কাছে এর মূল্য অনেক।’

লালমনিরহাট সদর উপজেলার তিস্তাপাড়ের রাজপুর গ্রামের বানভাসি আবেদ আলী (৫৬) ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘রান্নার চুলা পানির নিচে ডুবে গেছে। শুকনো খাবার খেয়ে থাকতে হয়। “স্বপ্নবুনি” সংগঠনের এক বেলার খাবার খিচুড়ি অনেক উপকারে আসে।’

Comments

The Daily Star  | English

Remal likely to make landfall between 6pm and 10pm

Rain with gusty winds hit coastal areas as a peripheral effect of the severe cyclone

4h ago