ঠাকুরগাঁওয়ে স্বামীর মারধরে গুরুতর আহত স্ত্রীর মৃত্যু

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার রহিমানপুর ইউনিয়নে স্বামীর বেধড়ক মারধরে আহত হওয়ার ১৩ দিন পর নববধূর মৃত্যু হয়েছে। দিনাজপুরের এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল আনুমানিক ৪টার দিকে তার মৃত্যু হয়।
ঠাকুরগাঁও
স্টার অনলাইন গ্রাফিক্স

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার রহিমানপুর ইউনিয়নে স্বামীর বেধড়ক মারধরে আহত হওয়ার ১৩ দিন পর নববধূর মৃত্যু হয়েছে। দিনাজপুরের এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল আনুমানিক ৪টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

বিষয়টি দ্য ডেইলি স্টারকে নিশ্চিত করেছেন ঠাকুরগাঁও সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তানভিরুল ইসলাম।

জানা গেছে, নিহত পারভীন আক্তার (২৪) ঠাকুরগাঁও জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার বড়বাড়ী ইউনিয়নের মালঞ্চা গ্রামের শফিকুল ইসলামের মেয়ে। আট মাস আগে রহিমানপুর ইউনিয়নের পল্লিবিদ্যুৎ এলাকার নূর ইসলামের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। মারধরের ঘটনায় গত ১৮ সেপ্টেম্বর পারভীনের বাবা শফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে ঠাকুরগাঁও সদর থানায় নূর ইসলামকে আসামি করে একটি হত্যাচেষ্টা মামলা দায়ের করেন।

মামলা দায়েরের পর ওই রাতেই পুলিশ আসামি নূর ইসলামকে গ্রেপ্তার করে। পরদিন বিকেলে তাকে আদালতে হাজির করা হলে ঠাকুরগাঁওয়ের চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্র্যাট আদালত-১’র বিচারক সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্র্যাট আরিফুল ইসলাম তাকে কারাগারে পাঠান।

মামলার বরাত দিয়ে ওসি তানভিরুল ইসলাম জানান, গত ১৮ সেপ্টেম্বর জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার মালঞ্চা গ্রামে বাবার বাড়ি থেকে সদরের রহিমানপুর ইউনিয়নের পল্লিবিদ্যুৎ এলাকায় স্বামী নূর ইসলামের বাড়িতে ফিরে আসেন গৃহবধূ পারভিন আক্তার। বাড়িতে এসে স্বামীকে মাতাল অবস্থায় দেখতে পান পারভীন। সে সময় স্বামীর কাছে যাওয়া মাত্রই নূর ইসলাম তাকে চড়-থাপ্পড় মারতে শুরু করে। একপর্যায়ে পারভীনকে জোর করে ঘরের ভেতরে ঢুকিয়ে দরজা ভেতর থেকে বন্ধ করে দেয় নূর ইসলাম। এরপর ঘরে থাকা একটি লোহার রড দিয়ে বেধড়ক মারধর করে পারভীনের দুই হাত ও দুই পাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে গুরুতর জখম করে।

পরে পরিবারের লোকজন দরজা ভেঙে আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য ওই রাতেই রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। পারভীন ছয় মাসের অন্তঃস্বত্ত্বাও ছিলেন বলে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে।

রহিমানপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান হান্নু টেলিফোনে দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘রংপুরে রোগীকে নিয়ে থাকতে অর্থ সংকটসহ বিভিন্ন জটিলতার কারণে সুস্থ হওয়ার আগেই ছাড়পত্র না নিয়ে গত বুধবার পারভীনকে বাড়িতে নিয়ে আসেন তার স্বজনরা। অবস্থার অবনতি হলে পরদিন সকালে পুনরায় ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানকার চিকিৎসকরা তাকে এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তরের পরামর্শ দেন। পরে সেখানে নিয়ে গেলে ভর্তির পরপর-ই বিকেল আনুমানিক চারটার দিকে মারা যান তিনি।’

ওসি তানভিরুল ইসলাম আরও বলেন, ‘মামলাটি হত্যাচেষ্টার অভিযোগে দায়ের করা হলেও পারভীন মারা যাওয়ায় মামলাটির চার্জশিটে সরাসরি হত্যার ধারায় স্থানান্তর করা হবে।’

Comments

The Daily Star  | English

Cyclone Remal completes crossing coast, now lies over Khulna’s Koyra

It will weaken into cyclonic storm within 2-3 hours, says BMD

1h ago