কঠিন বোলারদের সামলাতে চান হৃদয়

বিসিবির প্রেসেডিন্ট’স কাপের প্রথম ম্যাচে মাহমুদউল্লাহ একাদশকে ৪ উইকেটে হারায় শান্ত একাদশ। তাতে ৬৭ বলে ৫২ রানের ইনিংস খেলে সেরা হন হৃদয়।
Touhid Hridoy
ছবি: ফিরোজ আহমেদ

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপজয়ী দলের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য ছিলেন তৌহিদ হৃদয়। যুব দলের পালা শেষ করে আসা এই তরুণ এবার বড়দের মঞ্চেও আলো ছড়াতে প্রস্তুত। প্রথম ম্যাচে দলকে জিতিয়ে ম্যাচ সেরা হয়েছেন। এবার নিজেকে আরও মেলে ধরার পণ করেছেন তিনি। কঠিন পরিস্থিতি সামলে নিজেকে প্রমাণ করতে চান ডানহাতি মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান।

বিসিবির প্রেসেডিন্ট’স কাপের প্রথম ম্যাচে মাহমুদউল্লাহ একাদশকে ৪ উইকেটে হারায় শান্ত একাদশ। তাতে ৬৭ বলে ৫২ রানের ইনিংস খেলে সেরা হন হৃদয়।

বৃহস্পতিবার তামিম একাদশের বিপক্ষে দ্বিতীয় ম্যাচে নামবে তারা। তার আগে বুধবার মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুশীলন শেষে জানান, সেদিন ব্যাট করতে নামার সময় স্নায়ুচাপে ছিলেন তিনি, ‘অনেক দিন পর মাঠে নামতে পেরেছি সেজন্য ভাল লাগছে। আর এরকম বড় টুর্নামেন্টে প্রথম ম্যাচ ভাল করলাম, সেজন্যও ভাল লাগছে। সেদিন একটু স্নায়ুচাপে ছিলাম, যেহেতু অনেকদিন পর ম্যাচ খেলার সুযোগ এসেছিল। চেষ্টা করেছি সুযোগ কাজে লাগাতে। যে পরিকল্পনায় ব্যাট করছিলাম সেটা প্রয়োগ করতে পারায় খুশি।'

যুব পর্যায়ে এক রকম বোলারদের খেলে এসেছেন। এখন তার সামনে আন্তর্জাতিক অভিজ্ঞতা সম্পন্ন বোলাররা। তবে বোলার যত কঠিন হবে ততই নাকি লাভ হৃদয়ের,  'যেখানে খেলি না কেন, আমি চাই যে কঠিন বোলারদের মোকাবেলা করি। মানসম্মত বোলারদের মোকাবেলা করতে ভাল লাগে। কারণ তাদের বিপক্ষে রান করলে অনেক আত্মবিশ্বাস পাওয়া যায়। যেহেতু এটা ভাল টুর্নামেন্ট, সব সময় চেষ্টা থাকবে নিজেকে মেলে ধরার। '

রুবেল হোসেন, ইবাদত হোসেনদের সামলানোর পর সামনে মোস্তাফিজুর রহমানদের পাচ্ছেন হৃদয়। আগের ম্যাচে ১৯৭ রান তাড়া করতে গিয়েও ৬৫ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে ফেলেছিল দল। সেখান থেকে বিপদ দূর করেন হৃদয় আর ইরফান শুক্কুর। এবার যেন একই পরিস্থিতি তৈরি না হয় সেই চাওয়া তাদের, 'প্রত্যেক ম্যাচ অনেক চ্যালেঞ্জিং হবে। এবং অনেক কঠিন হবে আশা করি। তামিম ভাইদের সঙ্গে খেলা। তাদের দল অনেক শক্ত। মোস্তাফিজ ভাই আছে, অনেক ভালো ভালো বোলার আছে। আগের ম্যাচে যে ভুলগুলো হয়েছে টপ অর্ডারে, সেগুলো কাটিয়ে উঠার চেষ্টা করব।'

Comments

The Daily Star  | English

44 lives lost to Bailey Road blaze

33 died at DMCH, 10 at the burn institute, and one at Central Police Hospital

9h ago