শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী রুটে এবার লঞ্চ চলাচলও বন্ধ

শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে নাব্যতা সংকটের কারণে এবার বন্ধ হলো লঞ্চ চলাচল। আজ সোমবার ভোর থেকে সকাল ৯টা পর্যন্ত লঞ্চ চলাচল এক দফা বন্ধ থাকে। পরে কিছুক্ষণের জন্য চালু হলেও আবার বন্ধ হয়ে যায় লঞ্চ চলাচল। এই রুটে চ্যানেলে নাব্যতা সংকটের কারণে পঞ্চম দিনের মতো ফেরি চলাচলও বন্ধ আছে। বর্তমানে লঞ্চ চলাচলও বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন সাধারণ যাত্রীরা।
শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী রুটে লঞ্চ চলাচলও বন্ধ। ছবি: স্টার

শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে নাব্যতা সংকটের কারণে এবার বন্ধ হলো লঞ্চ চলাচল। আজ সোমবার ভোর থেকে সকাল ৯টা পর্যন্ত লঞ্চ চলাচল এক দফা বন্ধ থাকে। পরে কিছুক্ষণের জন্য চালু হলেও আবার বন্ধ হয়ে যায় লঞ্চ চলাচল। এই রুটে চ্যানেলে নাব্যতা সংকটের কারণে পঞ্চম দিনের মতো ফেরি চলাচলও বন্ধ আছে। বর্তমানে লঞ্চ চলাচলও বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন সাধারণ যাত্রীরা।

শিমুলিয়া ঘাটের বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) সহকারী পরিচালক সাহাদাত হোসেন দ্য ডেইলি স্টারকে জানান, নাব্যতা সংকটের কারণে সকাল ৯টা পর্যন্ত কোনো লঞ্চ চলেনি। পরে নদীতে জোয়ার এলে কিছু লঞ্চ ঘাট ছেড়ে যায়। কিন্তু, চ্যানেলের মুখে গিয়ে নাব্যতা সংকটে পড়ে কমপক্ষে পাঁচটি লঞ্চ আটকে যায়। এর মধ্যে দুইটি লঞ্চ বেশ কষ্ট করে গন্তব্যে পৌঁছাতে পেরেছে। এখনো আটকে আছে এমভি ফাহিম জাহিম এক্সপ্রেস, এমভি তপন এক্সপ্রেস ও এমভি শাওন এক্সপ্রেস।

তিনি আরও জানান, এই রুটের ৮৭টি লঞ্চের মধ্যে গতকালও ৮০টি লঞ্চ চলেছে। যদিও বেশ কিছুদিন যাবৎ নাব্যতা সংকটের কারণে চলাচল করতে লঞ্চগুলোকে বেশ সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। চ্যানেলে দুইটি ড্রেজার মেশিন দিয়ে ড্রেজিং করা হচ্ছে। নাব্যতা ফিরে এলে আবার লঞ্চ চলবে। এ ছাড়া, পঞ্চম দিনের মতো এই রুটে ফেরি চলাচল বন্ধ আছে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) শিমুলিয়া ঘাটের উপ-মহাব্যবস্থাপক মো. শফিকুল ইসলাম দ্য ডেইলি স্টারকে জানান, গত ১৫ অক্টোবর বিকেল চারটা থেকে নাব্যতা সংকটের কারণে ফেরি চলাচল পুরোপুরি বন্ধ আছে। বিআইডব্লিউটিএ’র ড্রেজিং বিভাগ থেকে আমাদের জানানো হয়েছে, ড্রেজিং করে চ্যানেলে নাব্যতা ফেরাতে কমপক্ষে আরও তিন দিন সময় লাগবে।

Comments