মেসি বার্সেলোনাতে ক্যারিয়ার শেষ করবে, চাওয়া গার্দিওলার

কাতালান ক্লাবটির সঙ্গে তার নিজের দীর্ঘদিনের সম্পর্কের কারণে এমন প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন ম্যানচেস্টার সিটির কোচ।

লিওনেল মেসিকে বার্সেলোনাতে ক্যারিয়ার শেষ করতে দেখতে চান পেপ গার্দিওলা। কাতালান ক্লাবটির সঙ্গে তার নিজের দীর্ঘদিনের সম্পর্কের কারণে এমন প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন ম্যানচেস্টার সিটির কোচ।

সফল খেলোয়াড় ও পরবর্তীতে সবচেয়ে সফল ম্যানেজার হিসেবে বার্সার সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে গার্দিওলার নাম। স্প্যানিশ পরাশক্তিদের হয়ে সম্ভাব্য সবকিছুই জেতার স্বাদ পেয়েছেন তিনি। খেলোয়াড়ি জীবনের ১১টি মৌসুম ন্যু ক্যাম্পে কাটিয়ে তিনি জিতেছিলেন ১৫টি শিরোপা। কোচ থাকাকালে তার অধীনে মাত্র চার মৌসুমে (২০০৮-২০১২) ১৪টি শিরোপা ঘরে তুলেছিল বার্সা। সেসময় আর্জেন্টাইন তারকা মেসির উত্থান দেখেছিল গোটা বিশ্ব।

ঠিকানা বদলে গার্দিওলা ম্যান সিটিতে থিতু হয়েছেন ২০১৬ সালে। গত সপ্তাহে ইংলিশ ক্লাবটির সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ তিনি বাড়িয়েছেন আরও দুই বছর। আগামী ২০২৩ সালের গ্রীষ্ম পর্যন্ত সিটিজেনদের সঙ্গে থাকছেন তিনি। আর এতে পুরনো গুঞ্জন ফের হয়েছে সরগরম। বার্সেলোনায় স্বস্তিতে না থাকা মেসিকে কি তাহলে সিটিতে নিয়ে আসবেন গার্দিওলা?

শুক্রবার সংবাদ সম্মেলনে ৪৯ বছর বয়সী সাবেক তারকা ফুটবলার জবাব দিয়েছেন, ‘লিওনেল মেসি বার্সেলোনার একজন খেলোয়াড়। যদি আপনারা আমার কাছে মতামত জানতে চান, তাহলে আমি বলব, আমি এমন একজন ব্যক্তি যে বার্সেলোনার কাছে কৃতজ্ঞ। কেবল খেলোয়াড় হিসেবে নয়। তারা আমাকে সবকিছু দিয়েছে। একদম শুরু থেকে, যখন আমি একাডেমিতে ছিলাম।’

‘তাই আমি চাই, সে সেখানে ক্যারিয়ার শেষ করুক। এটাই আমি চাই। বার্সেলোনার একজন ভক্ত হিসেবে আমি চাই, লিও সেখানে তার ক্যারিয়ার শেষ করুক।’

গত মৌসুমের শেষে বার্সা ছাড়তে চেয়েছিলেন রেকর্ড ছয়বারের ব্যালন ডি’অর জয়ী মেসি। তার সম্ভাব্য নতুন ঠিকানা হিসেবে জোরেশোরে উচ্চারিত হয়েছিল ম্যান সিটির নাম। কিন্তু রিলিজ ক্লজ ইস্যুতে বাধ্য হয়ে বার্সাতে থেকে গেছেন তিনি। তবে চুক্তি নবায়নের বিষয়ে কোনো অগ্রগতির খবর নেই। আগামী বছরের জুনে শেষ হয়ে যাচ্ছে দুপক্ষের মধ্যকার চুক্তির মেয়াদ। গার্দিওলারও তা অজানা নয়। তাই নিজের ইচ্ছার কথা জানানোর পাশাপাশি ভবিষ্যতের কাছেও তুলে রাখছেন কিছু উত্তর।

ম্যান সিটিকে দুবার প্রিমিয়ার লিগ জেতানো গার্দিওলা বলেছেন, ‘চলতি মৌসুমে তার চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়ে যাচ্ছে। আমরা জানি না কী ঘটতে যাচ্ছে কিংবা তার মনের ভেতরে কী আছে।’

‘এখন সে বার্সেলোনার খেলোয়াড় এবং দলবদলের বাজার আগামী জুন-জুলাইয়ের আগে খুলবে না। সেসবের আগে আমাদের অনেক ম্যাচ আছে, অনেক কিছু অর্জন করার আছে। এই মুহূর্তে আমি কিছু বলতে পারছি না।’

Comments

The Daily Star  | English

JS passes Speedy Trial Bill amid opposition protest

With the passing of the bill, the law becomes permanent; JP MPs say it may become a tool to oppress the opposition

1h ago