নিউজিল্যান্ডে পাকিস্তানের আরও এক ক্রিকেটারের করোনা শনাক্ত

নিউজিল্যান্ড সফরে যাওয়া পাকিস্তান ক্রিকেট দলের করোনাভাইরাসে আক্রান্ত খেলোয়াড়ের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে সাতে।
babar azam
ছবি: এএফপি

নিউজিল্যান্ড সফরে যাওয়া পাকিস্তান ক্রিকেট দলের করোনাভাইরাসে আক্রান্ত খেলোয়াড়ের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে সাতে। ছয় জনের করোনা শনাক্ত হওয়ার খবর জানা গিয়েছিল আগেই। নতুন করে করোনা পজিটিভ হয়েছেন আরও এক ক্রিকেটার।

শনিবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে নিউজিল্যান্ডের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, ‘আজ পাকিস্তান ক্রিকেট স্কোয়াডের আরও এক ক্রিকেটার করোনাভাইরাস পজিটিভ হয়েছেন। আগেই যে ছয় জন পজিটিভ হয়েছিলেন, তারা বাদে তৃতীয় দিনের সোয়াব পরীক্ষার পর বাকিদের ফল নেগেটিভ এসেছে।’

৫৩ সদস্যের বিশাল বহর নিয়ে নিউজিল্যান্ডে যাওয়া পাকিস্তানের সকল খেলোয়াড়-স্টাফের ফের করোনা পরীক্ষা করানো হবে আগামী সোমবার। এই সময়ের মধ্যে হোটেলে নিজেদের কক্ষে থাকতে হবে তাদেরকে। গত বৃহস্পতিবার থেকে নতুন করে কোয়ারেন্টিনের বাধ্যবাধকতা চালু করা হয়েছে তাদের জন্য। 

চার দিন আগে নিউজিল্যান্ডে অবতরণের পরপরই প্রথম দফা পরীক্ষায় পাকিস্তানের ছয় ক্রিকেটার করোনাভাইরাস পরীক্ষায় পজিটিভ হন। এরপর  জানা যায়, জৈব সুরক্ষার বলয়ের শর্তও একাধিকবার ভেঙেছেন বেশ কয়েকজন খেলোয়াড়। তাই নিউজিল্যান্ড সরকারের তরফ থেকে চূড়ান্তভাবে সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে পাকিস্তান ক্রিকেট দলকে। আবার নিয়ম ভাঙলে তাদেরকে দেশে পাঠিয়ে দেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ার করা হয়েছে।

নিউজিল্যান্ডের স্বাস্থ্য বিভাগের মহাপরিচালক ড. অ্যাশলে ব্লুমফিল্ড পাকিস্তানের ক্রিকেটারদের কর্মকাণ্ড নিয়ে গতকাল শনিবার বলেছিলেন, ‘কোয়ারেন্টিনে প্রথম তিন দিন নিজেদের কক্ষেই তাদের থাকার কথা। কিন্তু কয়েকজন কক্ষের বাইরে বারান্দায় চলাফেরা করছিলেন, কথা বলছিলেন, খাবার ভাগাভাগি করছিলেন এবং মাস্ক পরিহিত ছিলেন না।’

ফলে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) প্রধান নির্বাহী ওয়াসিম খান কড়া বার্তা পাঠান বাবর আজমের নেতৃত্বাধীন দলের উদ্দেশে। সেই সঙ্গে জানান, ফের নিয়ম অমান্য করলে না খেলেই দেশে ফিরতে হবে সবাইকে।

এমন পরিস্থিতিতে নিউজিল্যান্ড ও পাকিস্তানের আসন্ন সিরিজ নিয়ে তৈরি হয়েছে ঘোর অনিশ্চয়তা। শেষ পর্যন্ত খেলা মাঠে গড়াবে কিনা তা নিয়ে সন্দিহান অনেকে। আর করোনা আক্রান্ত খেলোয়াড়ের সংখ্যা বাড়তে থাকায় চাপও বাড়ছে পিসিবির ওপর।

উল্লেখ্য, নিউজিল্যান্ডে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে শুরু থেকেই তৎপর দেশটির সরকার। তার সুফলও মিলেছে। তাই কোভিড বিধি কঠোরভাবে প্রয়োগ করছে তারা।

Comments

The Daily Star  | English

International Mother Language Day: Languages we may lose soon

Mang Pu Mro, 78, from Kranchipara of Bandarban’s Alikadam upazila, is among the last seven speakers, all of whom are elderly, of Rengmitcha language.

11h ago