সবুজ কৃষি ও খায়রুল-দিলরুবা দম্পতি

বরিশালে সবুজ কৃষি ছড়িয়ে দিতে খায়রুল-দিলরুবা দম্পতি ভিন্ন রকমের উদ্যোগ নিয়েছেন। তারা নিজেদের বাগানের ও সংগ্রহ করা বিরল প্রজাতির চারা তারা বিতরণ করছেন আগ্রহীদের মাঝে।
শনিবার সকালে এই দম্পতি ৪০ জন নারী-পুরুষের মাঝে ড্রাগন ফলের কাটিং বিতরণ করেন। ছবি: স্টার

বরিশালে সবুজ কৃষি ছড়িয়ে দিতে খায়রুল-দিলরুবা দম্পতি ভিন্ন রকমের উদ্যোগ নিয়েছেন। তারা নিজেদের বাগানের ও সংগ্রহ করা বিরল প্রজাতির চারা তারা বিতরণ করছেন আগ্রহীদের মাঝে।

আজ শনিবার সকালে এই দম্পতি ৪০ জন নারী-পুরুষের মাঝে ড্রাগন ফলের কাটিং ও বিরল প্রজাতির আখের চারা বিতরণ করেন।

এ নিয়ে গত এক সপ্তাহে তারা দেড়শতাধিক ভিয়েতনামি জাতের ড্রাগন ফলের চারা বিতরণ করলেন। এ ছাড়াও, গত এক মাসে অন্তত ৩২ হাজার টাকার ৬৪ কেজি ড্রাগন ফল বিতরণ করেছেন তারা।

বিরল প্রজাতির ফলের চারা বিতরণ অনুষ্ঠানে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের উপপুলিশ কমিশনার মো. খাইরুল ইসলাম জানান, সবুজ কৃষি ছড়িয়ে দিতেই তিনি ও তার স্ত্রী দিলরুবা বেগম তাদের উৎপাদিত ফল ও গাছের কাটিং প্রতিবেশী ও উৎসাহীদের মাঝে বিতরণ করছেন। ফলে, অনেকেই এসব বিরল প্রজাতির ফলের গাছ চাষে আগ্রহী হচ্ছে। এ থেকে যেমন ভিটামিনের চাহিদা মিটবে, তেমনি দেশকে সবুজ কৃষিতে ভরিয়ে দেওয়ার আন্দোলনও ছড়িয়ে পড়বে।

তিনি জানান, ২০১৮ সালের মে মাসে বরিশালে আসেন ট্রাফিক বিভাগের উপপুলিশ কমিশনার পদে। তখন থেকেই তিনি ড্রাগন ফলের চাষ শুরু করেন। বর্তমানে তার দুই হাজার বর্গফুট ছাদ বাগানে প্রায় ৭০ প্রজাতির ফলের গাছ ও ৪০ প্রজাতির ফুলের গাছসহ অন্তত ৩শ ফল ও ফুল গাছের চারা আছে। ফলের মধ্যে আঙুর ৪ প্রকার, ড্রাগন ফল তিন প্রকার, আনার আছে পাঁচ প্রকার। এ ছাড়া, বিদেশি সবেদা, পেয়ারা, আমেরিকান পার্লমার আম, বিভিন্ন জাতের কমলাসহ অনেক প্রকার সাইট্রাস জাতের গাছ আছে।

‘যখনই সময় পাই, গাছের সঙ্গে সময় কাটাই। করোনার সময়ে মনে করলাম মানুষকে আরও বেশি কৃষিঘনিষ্ঠ করার একটি সুযোগ। তাই সিদ্ধান্ত নিলাম বিভিন্ন প্রকার ফল ও ফুল প্রতিবেশী ও বাগানপ্রিয় মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দিব। এ কারণেই গাছের চারা বিতরণের সিদ্ধান্ত নিয়েছি,’ বলেন মো. খাইরুল ইসলাম।

ভাড়া বাড়িতেও থেকে কেন এই কাজ করছেন জানতে চাইলে দিলরুবা বেগম বলেন, ‘বদলি হলে আমরা হয়তো সব গাছের চারা নিয়ে যেতে পারব না। তবে, অনেকেরই হয়তো এগুলো কাজে লাগবে।’

সম্প্রতি বরিশালে সবুজ কৃষি ছড়িয়ে দিতে ক্যাম্পেইন শুরু হয়েছে। সবুজ কৃষি বরিশাল ক্যাম্পেইন সাড়া ফেলেছে সবার মাঝে। ইতোমধ্যে ‘সবুজ কৃষি বরিশাল’ নামে ফেসবুক গ্রুপের সদস্য হয়েছে প্রায় সাড়ে তিন হাজার।

‘করোনাকালে প্রকৃতি সচেতনতা বৃদ্ধি পেয়েছে। আবার নিজের বাগানে বিষমুক্ত সবজি ও ফল চাষের আগ্রহও বেড়েছে অনেকের মাঝে,’ বলেন সবুজ কৃষি বরিশাল গ্রুপের মডারেটর বরকত হাসান।

তিনি জানান, দিলরুবা দম্পতির মতো অনেকেই সবুজ কৃষি ছড়িয়ে দিতে এগিয়ে আসছেন।

Comments

The Daily Star  | English

No electricity at JU halls, protesters fear police crackdown

Electricity supply was cut off at Jahangirnagar University halls this night spreading fear of a crackdown among students

1h ago