শায়েস্তাগঞ্জ পৌর নির্বাচন নিয়ে ‘৫ ভাগে’ বিভক্ত উপজেলা আ. লীগ

পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে উপজেলা আওয়ামী লীগ পাঁচ ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে বলে মনে করছেন শায়েস্তাগঞ্জবাসী। কেন্দ্র মনোনীত প্রার্থীর বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নিয়েছেন চার বিদ্রোহী প্রার্থী। তাদের দাবি, দলের নেতাকর্মীদের সমর্থন নিয়েই তারা মাঠে আছেন।
Habiganj_AL_27Dec20.jpg
মাসুদউজ্জমান মাসুক, ফরিদ আহমেদ, ছালেক মিয়া, আবুল কাশেম শিবলু ও ফজল উদ্দিন তালুকদার (বাম থেকে)। ছবি: সংগৃহীত

পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে উপজেলা আওয়ামী লীগ পাঁচ ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে বলে মনে করছেন শায়েস্তাগঞ্জবাসী। কেন্দ্র মনোনীত প্রার্থীর বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নিয়েছেন চার বিদ্রোহী প্রার্থী। তাদের দাবি, দলের নেতাকর্মীদের সমর্থন নিয়েই তারা মাঠে আছেন।

হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে মাসুদউজ্জামান মাসুককে মনোনয়ন দিয়েছে আওয়ামী লীগ। তার সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সদ্য বিদায়ী মেয়র মো. ছালেক মিয়া। তার নির্বাচনি প্রতীক নারকেল গাছ। চামচ প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন আরেক বিদ্রোহী প্রার্থী ফজল উদ্দিন তালুকদার। এ ছাড়া, জগ প্রতীক নিয়ে আবুল কাশেম শিবলু এবং মোবাইল ফোন প্রতীক নিয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সদস্য ইমদাদুল ইসলাম শীতল নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

মনোনয়নপত্রে ভুল থাকায় গত ৩ ডিসেম্বর আরেক বিদ্রোহী প্রার্থী আতাউর রহমান মাসুকের প্রার্থিতা বাতিল হয়। ৬ ডিসেম্বর আপিল করেও তিনি বৈধতা পাননি।

সূত্র জানায়, গত ৫ ডিসেম্বর বিদ্রোহী প্রার্থীদের নিয়ে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। তাদের নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াতে বলা হলেও কেউ কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত মানেননি।

পৌর এলাকাবাসী মনে করছেন, আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী মাসুদউজ্জামান মাসুকের সঙ্গে মূলত সদ্য বিদায়ী মেয়র ছালেক মিয়ার প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক ফজল উদ্দিন তালুকদার, ছাত্রলীগ নেতা ইমদাদুল ইসলাম শীতল ও আওয়ামী লীগ নেতা আবুল কাশেম শিবলু তেমন প্রভাব ফেলতে না পারলেও তাদের কারণে মাসুকের ভোট কমবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মাসুদউজ্জামান মাসুদ দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘যারা আওয়ামী লীগ ও নৌকার শত্রু তারাই বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন। বিদ্রোহীরা কোনো ক্ষতি করতে পারবেন না।’

ছালেক মিয়া বলেন, ‘দলীয় মনোনয়ন না পেলেও আমি বিদ্রোহী না। স্থানীয় নেতাকর্মীরা মূলত আমার সঙ্গেই আছেন।’

বিদ্রোহী প্রার্থীদের নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই জানিয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুর রশিদ তালুকদার বলেন, ‘বিদ্রোহীদের দল থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। তারা সুবিধা করতে পারবেন না।’

আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দল ভোটের মাঠে এগিয়ে দেবে বলে মনে করছেন বিএনপি প্রার্থী ফরিদ আহমেদ। তিনি দ্য ডেইলি স্টারকে আরও বলেন, ‘সুষ্ঠু ভোট হলে আমি জয়ী হবো।’

আগামীকাল শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নয়টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত প্রথম শ্রেণির এ পৌরসভার আয়তন ১০ দশমিক ৪০ বর্গকিলোমিটার। মোট ভোটার সংখ্যা ১৭ হাজার ৯৬১ জন।

আরও পড়ুন

শায়েস্তাগঞ্জ পৌর নির্বাচন: ৫ বছরে মেয়র প্রার্থীর সম্পদ বেড়ে ২০ গুণ

Comments

The Daily Star  | English

Remal likely to make landfall between 6pm and 10pm

Rain with gusty winds hit coastal areas as a peripheral effect of the severe cyclone

4h ago