খেলা

নতুন বিতর্কে স্মিথ, পেইন দিলেন ব্যাখ্যা

সিডনিতে টেস্টে তখন চরম নাটকীয় অবস্থায়। বিশাল রান তাড়ায় ব্যাকফুটে থাকা ভারত কিপার ব্যাটসম্যান পান্তের আগ্রাসী ব্যাটিংয়ে তখন বেশ ঘুরে দাঁড়িয়েছে
ছবি: টিভি গ্র্যাভ

বল টেম্পারিং কেলেঙ্কারিতে এমনিতেই স্টিভ স্মিথের গায়ে আছে একটা আঁচড়। প্রতিপক্ষ সুযোগ পেলেই তাকে ‘প্রতারক’ বলতে দ্বিধা করে না। এবার ভারতের বিপক্ষে সিডনি টেস্টে আগ্রাসী ব্যাট করতে থাকা রিশভ পন্তের ব্যাটিং গার্ড জুতা দিয়ে ঘষে নষ্ট করার অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে। যদিও অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক টিম পেইন দলের সেরা ক্রিকেটারের আচরণের ব্যাখ্যা দিয়েছেন।

সিডনিতে টেস্টে তখন চরম নাটকীয় অবস্থায়। বিশাল রান তাড়ায় ব্যাকফুটে থাকা ভারত কিপার ব্যাটসম্যান পান্তের আগ্রাসী ব্যাটিংয়ে তখন বেশ ঘুরে দাঁড়িয়েছে। এমনকি ম্যাচ জেতারও অসম্ভব সম্ভাবনা জেগেছে।

এমন সময় স্টাম্প ক্যামেরার ধরা পড়ে এক দৃশ্য। পানি পানের বিরতির ফাঁকে স্মিথ চলে আসেন ক্রিজে। তার চেহারা না দেখা গেলেও জার্সি নম্বর ‘৪৯’ ধরা পড়ে ক্যামেরায়। পা দিয়ে পান্তের উইকেটের গার্ড ঘষতে দেখা যায় তাকে।

এই ভিভিও ছড়িয়ে পড়ে সোশ্যাল মিডিয়ায়। বীরেন্দ্রর শেবাগ ভিডিওটি শেয়ার করে লিখেন, ‘সব ধরণের কৌশল নেওয়া হচ্ছে। স্মিথ পান্তের গার্ড নষ্ট করার চেষ্টা করছে।’ ভারতীয় ভক্তরা সেখানে মন্তব্য করে স্মিথকে প্রতারক আখ্যা দেন। ডেভিড লয়েড বলেন, স্মিথ বোকার মত আচরণ করেছেন। মাইকেল ভন বলেন, এটা উচিত হয়নি।

বিতর্কের মুখে অজি অধিনায়ক ব্যাখ্যা করেন বলেন স্মিথ করেছেন স্বাভাবিক আচরণই,  ‘আমি স্মিথের সঙ্গে কথা বলেছি। বিষয়টি যেভাবে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে এতে সে খুবই হতাশ। আপনারা যদি স্টিভ স্মিথের খেলা দেখে থাকেন প্রতি খেলায় সে এটা পাঁচ-ছয়বার করে।’

‘সে ব্যাটিং ক্রিজে দাঁড়ায়। শ্যাডো করে। সে নিজের ব্যাটিংয়ের চিন্তা থেকেই এসবের মধ্যে ডুবে থাকে।’

সিডনিতে শেষ দিনে হনুমা বিহারি-রবীচন্দ্রন অশ্বিনের বীরত্বে ম্যাচ বাঁচিয়ে ফেলে ভারত। এর আগে চেতশ্বর পূজারা দলকে রাখেন পথে। আর পান্ত নেমে ১১৮ বলে ৯৭ রানের ইনিংসে উলটো চাপে ফেলে দেন অস্ট্রেলিয়াকে।

১-১ সমতায় নিয়ে ১৫ জানুয়ারি দুদল ব্রিসবেনে শেষ টেস্ট খেলতে নামবে।

Comments

The Daily Star  | English

2 MRT lines may miss deadline

The metro rail authorities are likely to miss the 2030 deadline for completing two of the six planned metro lines in Dhaka as they have not yet started carrying out feasibility studies for the two lines.

4h ago