করোনার টিকাদান কর্মসূচি উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন প্রদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে গণভবন থেকে তিনি ভার্চুয়ালি এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন।
দেশের ইতিহাসে প্রথম করোনা ভ্যাকসিন নিয়েছেন কুর্মিটোলা হাসপাতালের নার্স রুনু ভেরোনিকা কস্তা। ছবি: ভিডিও কনফারেন্স থেকে নেওয়া

রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন প্রদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে গণভবন থেকে তিনি ভার্চুয়ালি এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন।

প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন ঘোষণা করার পর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স রুনু ভেরোনিকা কস্তাকে দেশের ইতিহাসে প্রথম ডোজ টিকা দেওয়া হয়। রুনুর পর আরও চার সরকারি কর্মকর্তাকে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে। তারা হলেন— কুর্মিটোলা হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. আহমেদ লুৎফুল মোবেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা, মতিঝিল জোনের ট্রাফিক পুলিশ মো. দিদারুল আলম ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এম ইমরান হামিদ।

প্রথমে ভ্যাকসিন নেওয়ার বিষয়ে গতকাল রাতে দ্য ডেইলি স্টারকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে রুনু বলেছিলেন, ‘আমি ইতিহাসের অংশ হতে চেয়েছিলাম। আমি আমার (হাসপাতাল) কর্তৃপক্ষকে বলি যে, আমি প্রথমে ভ্যাকসিন নিতে চাই। আমি দীর্ঘদিন যাবৎ এ পেশায় আছি। করোনা পরিস্থিতি গুরুতর থাকাকালীন আমি আমার দায়িত্ব থেকে পিছপা হইনি। আমি যে হাসপাতালে কাজ করছি, সেটি কোভিড-১৯ এর জন্য ডেডিকেটেড হাসপাতাল। মহামারির শুরু থেকেই আমি এখানে সেবা দিয়ে যাচ্ছি। তখন আমি আমার পেশা ছেড়ে চলে যাইনি। সুতরাং, যখন ভ্যাকসিন এলো, তখন পিছপা হব কেন? এখানে তো ভয় পাওয়ার কিছু নেই।’

করোনা ভ্যাকসিন কার্যক্রম উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী। ছবি: মোহাম্মদ আল-মাসুম মোল্লা

দেশব্যাপী ২০টি সেক্টরের প্রায় এক কোটি ৬৭ লাখ মানুষ অগ্রাধিকার ভিত্তিতে করোনার ভ্যাকসিন পাবেন বলে আজ সকালে সংসদীয় অধিবেশনে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এর আগে, গত ২১ জানুয়ারি উপহার হিসেবে ভারত থেকে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ২০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন পেয়েছে বাংলাদেশ। এরপর ২৫ জানুয়ারি ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে কেনা অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিনের প্রথম চালানের ৫০ লাখ ডোজ ঢাকায় এসে পৌঁছায়।

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার উদ্ভাবিত করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন ভারতে উৎপাদন করছে সেরাম ইনস্টিটিউট অব ইন্ডিয়া। যার ভারতীয় নাম ‘কোভিশিল্ড’। দেশীয় প্রতিষ্ঠান বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের মাধ্যমে সেই ভ্যাকসিনেরই তিন কোটি ডোজ কিনেছে বাংলাদেশ। ছয় মাসে ধাপে ধাপে ভারত থেকে এই তিন কোটি ডোজ ভ্যাকসিন সরবরাহ করা হবে।

আরও পড়ুন:

ভ্যাকসিনের অনলাইন নিবন্ধন শুরু

অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ১ কোটি ৬৭ লাখ মানুষ করোনা ভ্যাকসিন পাবেন: প্রধানমন্ত্রী

ঢাকায় পৌঁছাল ৫০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন

ভ্যাকসিন নিয়ে দ্বিধা ও বিতর্ক কেন?

২০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন ঢাকায়

র‌্যাপিড অ্যান্টিবডি টেস্টের অনুমোদন দিলো সরকার

Comments

The Daily Star  | English

288 Myanmar security personnel sent back from Bangladesh

Bangladesh this morning repatriated 288 members of Myanmar's security forces, who had crossed the border to flee the conflict between Myanmar's military junta and the Arakan Army

13m ago