সাকিবের বিকল্প হিসেবে মাহমুদউল্লাহকে নিতে বলেছিলেন বোর্ড প্রধান

ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে হেরে যাওয়ার পর এই নির্বাচন নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বিসিবি সভাপতি।
Mahmudullah

সাকিব আল হাসান চোটে পড়ে ছিটকে যাওয়ার পর তার জায়গায় মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে প্রথম পছন্দ হিসেবে দলে নিতে বলেছিলেন বোর্ড প্রধান নাজমুল হাসান। কিন্তু টিম ম্যানেজমেন্ট চেয়ে নেয় সৌম্য সরকারকে। তার কাছ থেকে আসেনি পারফরম্যান্স। ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে হেরে যাওয়ার পর এই নির্বাচন নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বিসিবি সভাপতি।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দুই টেস্টের জন্য ১৮ জনের বিশাল স্কোয়াড দেন নির্বাচকরা। কেউ চোটে পড়লেও বাইরে থেকে না নেওয়ার কথা তখন বলেছিলেন তারা। লাল বলের চুক্তিতে না থাকা সৌম্য ও মাহমুদউল্লাহ কেউই ২০ জনের প্রাথমিক স্কোয়াডেই জায়গা পাননি।

মিরপুর টেস্টের দিন চারেক আগের সৌম্য অনুশীলন করছিলেন সাদা বলে। সাদা বলের অনুশীলন চালিয়ে যাচ্ছেন মাহমুদউল্লাহও।

টেস্ট খেলার কোন প্রস্তুতি না থাকলেও আচমকাই ডাক পড়ে সৌম্যের। প্রাথমিক দলের বাইরে থেকে একদম ঢুকে যান একাদশে। সাদমান ইসলামও চোটে ছিটকে যাওয়ায় ওপেনিং হয় তার ঠিকানা। অথচ মূল স্কোয়াডে থাকা ব্যাকআপ ওপেনার সাইফ হাসান থেকে যান উপেক্ষিত।

১৮ জনের বড় দলেও কেন বদলি নেওয়ার প্রয়োজন হলো তা নিয়ে কোন প্রশ্ন নেই বোর্ড প্রধানের। তিনি বরং তার চাহিদামতো বিকল্প না মেলায় হয়েছেন অবাক এবং ক্ষুব্ধ , ‘যখন শুনলাম সাকিব ইনজুরিতে, তখন একটা বদলি লাগবে। এক এক করে অনেক নাম বলা হয়েছে। ওখানে আমার সামনে আকরাম ছিল, নান্নু (মিনহাজুল আবেদিন) ছিল, সুজন (নিজামউদ্দিন চৌধুরী) ছিল, সুমন (হাবিবুল বাশার) ছিল। আমি ওদেরকে অপশন দিয়েছিলাম চারটা না পাঁচটা। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এক নম্বরে, তারপর মোসাদ্দেক, শেখ মেহেদী, এবং চার নম্বর বিকল্প ছিল সৌম্য। তারা সৌম্যকে বাছাই করেছে।’

'আমি ব্যক্তিগতভাবে মাহমুদউল্লাহকে ফোন করলাম। সে বলল তার পীঠে ব্যাথা। তারপর বললাম মোসাদ্দেকের খোঁজ কর। ওরা বলল সে ঢাকাতেই নেই।' 

প্রথম ইনিংসে বাঁহাতি সৌম্য ০ রানে আউট হয়েছিলেন। দ্বিতীয় ইনিংসে তিনি করেন ১৩। এই টেস্টের দেড় বছর আগে আরেকটি টেস্ট খেলেছিলেন সৌম্য। আফগানিস্তানের বিপক্ষে সেই টেস্টে এক ইনিংসে তাকে নামানো হয় ওপেনে, আরেক ইনিংসে আট নম্বরে। তারও আগে নিউজিল্যান্ডে গিয়ে টেস্ট ম্যাচে সাত নম্বরে নেমে ১৪৯ রান করেছিলেন তিনি।

ব্যাটসম্যান সৌম্যকে সাকিবের বদলি হিসেবে কেন বিবেচনা করেছেন তার ব্যাখ্যায় অধিনায়ক মুমিনুল যুক্তি দেন সৌম্যর মিডিয়াম পেস সামর্থ্যের,  ‘আগেও বলেছি, সাকিব ভাই চলে যাওয়াতে আমাদের দলের সমন্বয় একটু ওলটপালট হয়ে গিয়েছিল। আমার একজন মিডিয়াম পেস যিনি ব্যাটিং করেন, এমন কাউকে দরকার ছিল। আর সৌম্য অভিজ্ঞও ছিল। সম্প্রতি ওয়ানডেও খেলেছে। কিন্তু আপনি যখন হারবেন তখন অবশ্যই চোখ পড়বে।’

Comments

The Daily Star  | English
Public universities protests quota reformation

PM's comment ignites protests across campuses

Hundreds of students from several public universities, including Dhaka University, took to the streets around midnight to protest what they said was a "disparaging comment" by Prime Minister Sheikh Hasina earlier in the evening

9h ago