২০২৪ সালের নির্বাচনেও ট্রাম্পকে পছন্দ রিপাবলিকানদের: জরিপ

যুক্তরাষ্ট্রে ২০২৪ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান পার্টি থেকে কে মনোনয়ন পাবেন, সেটি যদি আজকে নির্ধারণ করা হতো, তাহলে হয়তো নিশ্চিতভাবেই মনোনীত হতেন সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। পলিটিকো-মর্নিং কনসাল্টের এক জরিপে এ তথ্য উঠে এসেছে।
TRUMP.jpg
ডোনাল্ড ট্রাম্প। ছবি: রয়টার্স

যুক্তরাষ্ট্রে ২০২৪ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান পার্টি থেকে কে মনোনয়ন পাবেন, সেটি যদি আজকে নির্ধারণ করা হতো, তাহলে হয়তো নিশ্চিতভাবেই মনোনীত হতেন সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। পলিটিকো-মর্নিং কনসাল্টের এক জরিপে এ তথ্য উঠে এসেছে।

গতকাল মঙ্গলবার গার্ডিয়ান জানায়, ৬ জানুয়ারি মার্কিন ক্যাপিটল ভবনে হামলার ঘটনায় প্ররোচনার অভিযোগে দ্বিতীয় অভিশংসন থেকে রেহাইয়ের পর ট্রাম্পের প্রতি রিপাবলিকানদের সমর্থন বেড়েছে।

রিপাবলিকান ভোটারদের মধ্যে ৫৯ শতাংশ জানিয়েছেন, ট্রাম্পকে তারা দলের গুরুত্বপূর্ণ পদে দেখতে চান। ৫৪ শতাংশ রিপাবলিকান ভোটার বলেছেন, আগামী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী মনোনয়নের ক্ষেত্রে তারা প্রাথমিকভাবে ট্রাম্পকেই সমর্থন করবেন।

২০২৪ সালে ৪৫তম প্রেসিডেন্ট ধনকুবের ডোনাল্ড ট্রাম্পের বয়স হবে ৭৮ বছর।

পলিটিকো-মর্নিং কনসাল্টের জরিপে, আগামী নির্বাচনে প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে রিপাবলিকানদের দ্বিতীয় পছন্দ সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স। তার পক্ষে ভোট দিয়েছেন ১২ শতাংশ মানুষ।

ক্যাপিটলের দাঙ্গায় রীতিমতো প্রাণনাশের হুমকিতে ছিলেন পেন্স। কারণ ভাইস প্রেসিডেন্ট থাকাকালীন ইলেক্টোরাল কলেজ ভোটে জো বাইডেনের কাছে ট্রাম্পের পরাজয়ের সার্টিফিকেশন তার হাতেই হয়েছিল।

জরিপে তৃতীয় স্থানে আছেন ট্রাম্পপুত্র ডোনাল্ড ট্রাম্প জুনিয়র ও দক্ষিণ ক্যারোলিনার সাবেক গভর্নর নিকি হ্যালি। সাবেক গভর্নর ও জাতিসংঘের রাষ্ট্রদূত নিকি হ্যালি ক্যাপিটল দাঙ্গার পর ট্রাম্পের কাছ থেকে দূরত্ব বজায় রেখেছেন।

চতুর্থ অবস্থানে আছেন উটাহ অঙ্গরাজ্যের সিনেটর মিট রমনি। ২০১২ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে রিপাবলিকানদের অন্যতম পছন্দ ছিলেন তিনি। ট্রাম্পের অভিশংসনের বিচারে তিনি ট্রাম্পকে দোষী সাব্যস্ত করার পক্ষে ভোট দেন। ২০২৪ সালের নির্বাচনে বর্তমান উটাহ সিনেটরকে লড়াইয়ে দেখতে চান চার শতাংশ ভোটার।

এ ছাড়াও, গত নভেম্বরের নির্বাচনে ট্রাম্পের পরাজয়ের ফল পাল্টে দেওয়ার চেষ্টায় সমর্থন জানানো টেক্সাসের টেড ক্রুজের পক্ষে সমর্থন জানিয়েছেন তিন শতাংশ রিপাবলিকান।

নির্বাচনের ফলাফল নিয়ে আপত্তি জানানো মিসৌরির জশ হাওলিও ভোটারদের বিবেচনায় আছেন।

গত ৬ জানুয়ারি ক্যাপিটলে হামলার পরে কয়েক হাজার রিপাবলিকান দল ছেড়ে চলে যায়। রিপাবলিকান দলে বিভক্তি আরও ব্যাপক হয়ে ওঠে। অনেকেই গণমাধ্যমে জানিয়েছেন, তারা চান রাজনীতি থেকে ট্রাম্পকে নিষিদ্ধ করা হোক।

সিনেটের শুনানিতে ট্রাম্পকে ‘দোষী’ বলে মত দিয়েছেন ৫৭ জন সিনেটর। এর বিপক্ষে ভোট পড়েছে ৪৩টি। একশ সদস্যের সিনেটে ৬৭ ভোট পেলেই দোষী সাব্যস্ত হতেন ট্রাম্প। ৫০ জন ডেমোক্রেটের পাশাপাশি সাত জন রিপাবলিকান ট্রাম্পকে ‘দোষী’ বলে ভোট দিলেও বাকিরা সবাই এর বিপক্ষে থেকেছেন।

Comments

The Daily Star  | English

Lifts at public hospitals: Horror abounds

Shipon Mia (not his real name) fears for his life throughout the hours he works as a liftman at a building of Sir Salimullah Medical College, commonly known as Mitford hospital, in the capital

2h ago