শীর্ষ খবর

মুজাক্কির হত্যা: সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচারের দাবি পরিবারের

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে গুলিতে নিহত দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার ও বার্তা বাজার’২৪ এর সাংবাদিক বোরহান উদ্দিন মুজাক্কির হত্যার ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার দাবি করেছে তার পরিবার।
নোয়াখালীতে সাংবাদিক বোরহান উদ্দিন মুজাক্কির হত্যার বিচার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে পরিবার। ছবি: সংগৃহীত

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে গুলিতে নিহত দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার ও বার্তা বাজার’২৪ এর সাংবাদিক বোরহান উদ্দিন মুজাক্কির হত্যার ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার দাবি করেছে তার পরিবার।

বৃহস্পতিবার সকালে নোয়াখালী প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব দাবি জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মুজাক্কিরের বড় ভাই নুর উদ্দিন।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন মুজাক্কিরের বাবা, মা, ভাই, বোন ও পরিবারের অন্যান্যরা।

মুজাক্কিরের বড় ভাই নুর উদ্দিন বলেন, ‘মুজাক্কির কোন রাজনৈতিক মতাদর্শের অনুসারী ছিলেন না। লেখাপড়ার পাশাপাশি সে সাংবাদিকতা পেশায় যুক্ত ছিল। এছাড়াও বিভিন্ন সামাজিক কার্যক্রমের সঙ্গে জড়িত ছিল মুজাক্কির। আত্মীয়- স্বজন, পাড়া প্রতিবেশি ও অন্যান্য মানুষের চিকিৎসার জন্য বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করত। রোগীদের জীবন বাঁচাতে বহুবার রক্তদান করেছে। পড়াশোনাতেও মেধাবী ছিল মুজাক্কির। স্কুলে কোনোদিন দ্বিতীয় হয়নি। নোয়াখালী সরকারি কলেজের দর্শন বিভাগের ছাত্র ছিল। স্নাতক সম্মান শ্রেণিতে ১ম স্থান অধিকার করে চলতি বছর স্নাতোকত্তোর পরীক্ষার্থী ছিল মুজাক্কির।’

মুজাক্কিরের ভাই বলেন, হত্যা মামলাটি বুধবার পিবিআইয়ের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। আমরা আশাবাদী সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে দ্রুত অপরাধীদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় এনে সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা হবে।

মুজাক্কির হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে নোয়াখালী প্রেস ক্লাব, চাটখিল, কোম্পানীগঞ্জ, হাতিয়া, সুবর্ণচর, সেনবাগ, সোনাইমুড়ী, বেগমগঞ্জ প্রেস ক্লাবসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সাংবাদিকরা মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছেন।

আরও পড়ুন-

কোম্পানীগঞ্জে গুলিবিদ্ধ সাংবাদিক মুজাক্কির মারা গেছেন

কার গুলিতে মারা গেলেন সাংবাদিক মুজাক্কির?



 

 

Comments

The Daily Star  | English

Extreme heat sears the nation

The scorching heat continues to disrupt lives in different parts of the country, forcing the authorities to close down all schools and colleges till April 27.

3h ago