নারায়ণগঞ্জ: ডুবে যাওয়া লঞ্চ এখনো তোলা যায়নি

নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদীতে ডুবে যাওয়া লঞ্চটি এখনো তোলা যায়নি। সেটি তোলার চেষ্টা চলছে।
গতকাল রাতে ঘটনাস্থলে ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা। ছবি: স্টার

নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদীতে ডুবে যাওয়া লঞ্চটি এখনো তোলা যায়নি। সেটি তোলার চেষ্টা চলছে।

আজ সোমবার সকালে নারায়াণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের উপসহকারী পরিচালক আব্দুল্লাহ আরেফিন বিষয়টি দ্য ডেইলি স্টারকে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘গতকাল রাত ১১টার দিকেই বিআইডব্লিউটিএর উদ্ধারকারী জাহাজ প্রত্যয় ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছায়। কিন্তু, গভীর রাত হওয়ায় লঞ্চটি তখন তোলা যায়নি। পরে আজ সকাল ১০টা থেকে লঞ্চটি তোলার কাজ শুরু হয়েছে। লঞ্চটির সামান্য অংশ তোলা হয়েছে। পুরোটি এখনো তোলা যায়নি। কাজ চলছে।’

ঘটনাস্থল থেকে ডেইলি স্টারের প্রতিবেদক জানান, লঞ্চের যাত্রীদের স্বজনরা সবাই ঘটনাস্থলেই আছেন। তারা প্রিয়জনের মরদেহ পাওয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন।

এর আগে, গতকাল রাতে নারায়ণগঞ্জের কয়লাঘাট এলাকায় একটি কার্গো জাহাজের ধাক্কায় যাত্রীবাহী লঞ্চটি ডুবে যায়। লঞ্চটিতে ৫০ জনেরও বেশি যাত্রী ছিলেন। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত পাঁচ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে চার জনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হলেন— সখিনা (৪৫), প্রতিমা শর্মা (৫৩), সুনিতা সাহা (৪০), সাউদা আক্তার লতা (১৮)। তাদের সবার বাড়ি মুন্সিগঞ্জে। ইতোমধ্যে তাদের মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

জেলা প্রশাসনের ঘোষণা অনুযায়ী নিহত পাঁচ জনের মরদেহ দাফনের জন্যে তাদের পরিবারকে ২৫ হাজার টাকা করে দেওয়া হয়েছে বলে জানান নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ইউএনও নাহিদা বারিক।

নারায়ণগঞ্জের বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) চন্দ্র সাহা গতকাল ডেইলি স্টারকে জানান, এ ঘটনায় নদীর পূর্ব তীর থেকে প্রায় ১৫-১৬ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে আট জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে এবং আরও তিন জন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

আরও পড়ুন:

শীতলক্ষ্যায় লঞ্চডুবি: ৫ জনের মরদেহ উদ্ধার

অর্ধশতাধিক যাত্রী নিয়ে শীতলক্ষ্যায় লঞ্চডুবি

Comments

The Daily Star  | English
national election

Human rights issues in Bangladesh: US to keep expressing concerns

The US will continue to express concerns on the fundamental human rights issues in Bangladesh including the freedom of the press and freedom of association and urge the government to uphold those, said a senior US State Department official

4h ago