স্বাধীনতা স্তম্ভ প্রকল্প: মূল পরিকল্পনায় গাছ কাটা ছিল না

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বাধীনতা স্তম্ভ নির্মাণের (তৃতীয় পর্যায়) প্রাথমিক নকশায় গাছ কেটে ফেলার কোনো পরিকল্পনা ছিল না, তারপরেও হাঁটার পথ তৈরি করার জন্য অনেকগুলো গাছ কেটে ফেলা হয়েছে। এ প্রকল্পের সঙ্গে জড়িত স্থপতিরা বলেছেন, হাঁটার পথ তৈরি করার অংশটি পরিকল্পনায় পরে যুক্ত করা হয়েছে।
স্টার ফাইল ফটো

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বাধীনতা স্তম্ভ নির্মাণের (তৃতীয় পর্যায়) প্রাথমিক নকশায় গাছ কেটে ফেলার কোনো পরিকল্পনা ছিল না, তারপরেও হাঁটার পথ তৈরি করার জন্য অনেকগুলো গাছ কেটে ফেলা হয়েছে। এ প্রকল্পের সঙ্গে জড়িত স্থপতিরা বলেছেন, হাঁটার পথ তৈরি করার অংশটি পরিকল্পনায় পরে যুক্ত করা হয়েছে।

তারা বলেন, ভূ-গর্ভস্থ গাড়ি পার্কিং, খাবারের দোকান, গণশৌচাগার, হাঁটার পথসহ নতুন অনেক কিছু তৃতীয় পর্যায়ের নকশায় সংযুক্ত করা হয়েছে, যা মূল নকশার পরিপন্থী। এ ব্যাপারে মূল নকশা প্রণেতাদের অভিমতও নেওয়া হয়নি বলে জানিয়েছেন স্থপতিরা।

সম্প্রতি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের গাছ কেটে ফেলার খবর পত্রিকায় আসার পর পরিবেশ আন্দোলন কর্মী এবং বিভিন্ন সামাজিক সংস্থাগুলো বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে এ ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়েছে।

প্রকল্পটির তৃতীয় পর্যায়ের সাথে জড়িত স্থাপত্য বিভাগের একজন স্থপতি স্বীকার করেছেন যে প্রাথমিক নকশায় গাছ কাটার কোনো পরিকল্পনা ছিল না।

মূল নকশাবিদদের একজন, স্থপতি মেরিনা তাবাসসুম জানিয়েছেন, তার প্রতিষ্ঠানটি প্রকল্পের প্রথম ও দ্বিতীয় পর্যায়ের সাথে ১৯৯৭ সাল থেকে কাজ করে আসছেন।

তিনি বলেন, মূল প্রকল্পের একটি বড় অংশ জুড়ে ছিল ভূপ্রকৃতি বিন্যাস (ল্যান্ডস্কেপিং)। প্রয়াত স্থপতি মাজহারুল ইসলাম ও প্রয়াত প্রকৃতিবিদ দ্বিজেন শর্মার তত্ত্বাবধানে ল্যান্ডস্কেপিংয়ের নকশাটি তৈরি করেছিলেন, জানান তিনি।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের বেশিরভাগ গাছই হচ্ছে মেহগনি, শিশু ও আকাশমনি জাতের। মেরিনা বলেন, মূল নকশায় গাছ কাটার কোনো পরিকল্পনাই রাখা ছিল না, বরং তারা উপদেশ দিয়েছিলেন আরও বেশি বিভিন্ন মৌসুমী ফুল ও ফলের গাছ লাগাতে।

নতুনভাবে লাগানো গাছগুলো বড় হলেই কেবল সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ পুরোনো গাছ কাটতে পারে। কিন্তু সে কাজটিও একাধিক পর্যায়ে করতে হবে, জানান তিনি।

তিনি বলেন, হাঁটার পথ তৈরি করার জন্য কিংবা ভূপ্রকৃতি বিন্যাসের উন্নয়ন ঘটানোর জন্য গাছ কাটার ব্যাপারটি গ্রহণযোগ্য নয়, কারণ চাইলে গাছ না কেটেও এ কাজগুলো করা সম্ভব।

মেরিনা জানান, যদিও তার প্রতিষ্ঠানটি প্রকল্পের প্রথম দুই পর্যায়ের সাথে কাজ করেছে, তারপরেও তৃতীয় পর্যায়ের ক্ষেত্রে তাদের অভিমত চাওয়া হয়নি, এবং কর্তৃপক্ষ মূল নকশাটিও অনুসরণ করছে না।

প্রকল্পের তৃতীয় পর্যায়ের সাথে কাজ করছেন এমন একজন স্থপতি জানিয়েছেন যে শিশু পার্কের কাছ থেকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে প্রবেশ করার জন্য একটি প্রবেশপথ তৈরি করা হবে। এছাড়াও, ছয়টি গণ শৌচাগার ও ছয়টি ছোট খাবারের দোকানও নির্মাণ করা হবে। যারা শৌচাগারটি পরিচালনা করবেন, তাদের জন্য একটি সুনির্দিষ্ট জায়গা থাকবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এই স্থপতি জানান, ভূগর্ভস্থ পানির স্তরকে বিঘ্নিত না করে ৫০০ গাড়ি ধারণক্ষমতা সম্পন্ন একটি পার্কিং লট বানানো হবে। শাহবাগের পুলিশ বক্সটিকে অন্য কোথাও সরিয়ে নেয়া হবে এবং এখনকার ফুলের বাজারটিকে সরিয়ে সেখানে ৫০টি ফুলের দোকান নির্মাণ করা হবে।

শুরুতে, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় এ প্রকল্পের সঙ্গে জড়িত ছিল। তবে বর্তমানে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় এককভাবে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের দায়িত্ব নিয়েছে, জানান তিনি।

স্থাপত্য বিভাগের প্রধান স্থপতি মীর মনজুরুর রহমান বলেন, তৃতীয় পর্যায়ের প্রাথমিক নকশায় বড় গাছ কাটার কোনো পরিকল্পনা ছিল না।

তিনি বলেন, যদি গাছ কাটার প্রয়োজন দেখা দেয়, তবে শুধুমাত্র ছোট গাছগুলো কাটা যেতে পারে এবং ল্যান্ডস্কেপিং এর জন্য আরও বেশি করে গাছ লাগাতে হবে।

স্থাপত্য বিভাগের সুপারিন্টেনডেন্ট স্থপতি আসিফুর রহমান ভুঁইয়া দাবি করেছেন তারা তৃতীয় পর্যায়ের প্রাথমিক নকশায় কোনও পরিবর্তন আনেননি, তারা শুধু এর সাথে হাঁটার পথ নির্মাণের পরিকল্পনাটি সংযুক্ত করেছেন।

তিনি বলেন, সবুজ গাছগাছালি রক্ষা করার জন্য হাঁটার পথ প্রয়োজন, যাতে মানুষ শুধুমাত্র পথ দিয়েই হাঁটে।

আসিফুর বলেন, তারা হাঁটার পথের কাছে চলে আসা বড় গাছগুলোকে বাঁচানোর চেষ্টা করছেন। তিনি আরও বলেন, বিশেষজ্ঞদের উপদেশ অনুযায়ী সুপরিকল্পিতভাবে আরও গাছ লাগাবেন।

প্রকল্পের ২৬৫ কোটি ৪৪ লাখ টাকার তৃতীয় পর্যায়ের বাস্তবায়ন ২০১৮ সালের জানুয়ারি থেকে শুরু হয়েছে।

বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অফ প্ল্যানার্স এর সাধারণ সম্পাদক আদিল মোহাম্মদ খান বলেন, কর্তৃপক্ষ তৃতীয় পর্যায়ের পরিকল্পনা চূড়ান্ত করার আগে বিশেষজ্ঞদের অভিমত নেয়নি।

তিনি বলেন, চূড়ান্ত করার আগে এ ধরনের পরিকল্পনা জনগণের সামনে উন্মোচিত করার কাজটি বিশ্বজুড়ে প্রচলিত, কিন্তু তারা এটি অনুসরণ করেননি।

আদিল বলেন, কর্তৃপক্ষের উচিত ছিল স্থপতি, শহর পরিকল্পনাকারী, উদ্ভিদবিদ ও সামাজিক কর্মীদের মতও নেওয়া।

প্রতিবেদনটি ইংরেজি থেকে অনুবাদ করেছেন মোহাম্মদ ইশতিয়াক খান

Comments

The Daily Star  | English

All animal waste cleared in Dhaka south in 10 hrs: DSCC

Dhaka South City Corporation (DSCC) has claimed that 100 percent sacrificial animal waste has been disposed of within approximately 10 hours

1h ago