শিমুলিয়ায় ফেরি বেড়েছে, ভিড়ও বেড়েছে, পারের অপেক্ষায় ৪ শতাধিক গাড়ি

মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ও মাদারীপুরের বাংলাবাজার নৌপথে ফেরির সংখ্যা বাড়ানো হলেও কমেনি ঘরমুখী মানুষের ভিড়। আজ মঙ্গলবার দুপুর পৌনে ১টা পর্যন্ত চার শতাধিক যানবাহন পারের অপেক্ষায় থাকতে দেখা গেছে।
শিমুলিয়া ঘাট। ১১ মে ২০২১। ছবি: স্টার

মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ও মাদারীপুরের বাংলাবাজার নৌপথে ফেরির সংখ্যা বাড়ানো হলেও কমেনি ঘরমুখী মানুষের ভিড়। আজ মঙ্গলবার দুপুর পৌনে ১টা পর্যন্ত চার শতাধিক যানবাহন পারের অপেক্ষায় থাকতে দেখা গেছে।

বাংলাদেশ নৌপরিবহন সংস্থার (বিআইডব্লিউটিসি) শিমুলিয়া ঘাট কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, মানুষের ভিড় সামলাতে ফেরির সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। আজ শিমুলিয়া-বাংলাবাজার রুটে ১৪টি ফেরি চলাচল করছে। মরদেহবাহী ফ্রিজিং ভ্যান, অ্যাম্বুলেন্স, পণ্যবাহী যানবাহনের পাশাপাশি যাত্রীদেরও পার করা হচ্ছে।

করোনা সংক্রমণ রোধে বিধিনিষেধ রয়েছে, সবাই যেন নিজ নিজ কর্মস্থলে অবস্থান করে। ঘাটে প্রবেশের আগেই চেকপোস্টে সুনির্দিষ্ট কারণ জানতে চাওয়ার পরে ব্যক্তিগত গাড়ি ছাড়া হচ্ছে। তারপরও ভিড় কমেনি। আজ সকাল সোয়া ১০টার পর্যন্ত শতাধিক গাড়ি পারের অপেক্ষায় রয়েছে— জানায় ঘাট কর্তৃপক্ষ।

শিমুলিয়া ও বাংলাবাজার নৌপথে ফেরির সংখ্যা বাড়ানো হলেও কমেনি ঘরমুখী মানুষের ভিড়। ছবিটি আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে তোলা। ছবি: স্টার

বিআইডব্লিউটিসি শিমুলিয়া ঘাটের সহকারী ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মো. ফয়সাল দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘গতকালও সারাদিন ছয়টি ফেরি চলাচল করেছে। আজ নদীতে ১৪টি ফেরি চলাচল করছে। আমরা অ্যাম্বুলেন্স, মরদেহবাহী গাড়ি, পণ্যবাহী যান অগ্রাধিকারভিত্তিতে পার করছি। যাত্রী পরিবহরে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও ফেরি আসলে তারা জোর করে উঠে যাচ্ছেন।’

মাওয়া ট্রাফিক পুলিশের ইন্সপেক্টর মো. হেলাল উদ্দীন ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘মাওয়া ঘাট এলাকায় বর্তমানে চার শতাধিক গাড়ি পারের অপেক্ষায় আছে। এর মধ্যে পণ্যবাহী গাড়িই বেশি। আমরা অগ্রাধিকার ভিত্তিকে গাড়িগুলো পার করছি।’

Comments

The Daily Star  | English