প্রস্তুতি ঘাটতি নিয়ে মোস্তাফিজের হতাশা

করোনাভাইরাসের কারণে আইপিএল মাঝপথে বন্ধ হয়ে যাওয়ার আগে ২ মে সর্বশেষ ম্যাচ খেলেছিলেন মোস্তাফিজ। এরপর হোটেল রুমেই কেটেছে বাঁহাতি পেসারের সময়।
Mustafizur Rahman
ছবি: বিসিবি

শেষ ২৫ দিনে একটি ম্যাচ আর এক সেশনের অনুশীলন। বাদ বাকি সময় শুয়ে বসে ফিটনেস নিয়ে হালকা কাজ। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের আগে নিজের প্রস্তুতির বর্ণনা দিতে গিয়ে মোস্তাফিজুর রহমানের কণ্ঠে ঝরে পড়ল হতাশা।

করোনাভাইরাসের কারণে আইপিএল মাঝপথে বন্ধ হয়ে যাওয়ার আগে ২ মে সর্বশেষ ম্যাচ খেলেছিলেন মোস্তাফিজ। এরপর হোটেল রুমেই কেটেছে বাঁহাতি পেসারের সময়।

৬ মে বাংলাদেশ ফেরার পর হোটেলে কড়া কোয়ারেন্টিনে ছিলেন আরও ১২ দিন। মঙ্গলবার কোয়ারেন্টিন মুক্ত হয়ে মাঠে ফিরেও অনুশীলন করতে পারেননি বৃষ্টির কারণে। বুধবারই তাই লম্বা সময় পর বল করতে পেরেছেন তিনি।

এদিন মূল মাঠে প্রথমে ফিল্ডিং দিয়ে শুরু হয় মোস্তাফিজের প্রস্তুতি। পরে ইনডোরে বল করেছেন কয়েক ওভার। তবে লম্বা সময় পর প্রথম দিনের অনুশীলনে বাড়তি চাপ নেননি।

অনুশীলন সেরে গণমাধ্যমে কথা বলতে এসেই প্রকাশ করলেন নিজের মনের ভেতরের খচখচানি,  ‘আইপিএলে থাকাকালীন আর আমাদের দেশে রুম কোয়ারেন্টিন দিয়ে প্রায় ২৫ দিনে একটা অনুশীলন (সেশন) আর একটা ম্যাচ খেলেছি। এখন জানি না (এইটুকুতে কী হবে), আমি আর সাকিব ভাই দুজনেই ওরকম ছিলাম। কালকে তো অনুশীলন করতে পারি নাই (বৃষ্টির কারণে), আজকে করলাম। আরও দুই দিন সময় পাব। আল্লাহর ওপরে ছেড়ে দিলাম। দেখি চেষ্টা করে কি হয়।’

প্রস্তুতি ঘাটতি কি তাহলে অনেক? ছোট কথায় জবাব, ‘অনেক।’

এবার আইপিএলে তাকে ‘ব্যাক অব দ্য হ্যান্ড’ ডেলিভারি দিতে দেখা গেছে কয়েকবার। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষেও এটি হওয়ার কথা বড় অস্ত্র। কিন্তু অনুশীলনের ঘাটতির কারণে নতুন অস্ত্রে তেমন শাণ দেওয়া যায়নি বলেও জানিয়েছেন, ‘এদিকে ১৪ ওদিকে ৫। (ভারত ও বাংলাদেশ মিলিয়ে) টানা উনিশ দিন যদি কিছু না করি, রুমের ভেতর থাকি। টুকটাক যেগুলা করা যায় ওগুলা করে যদি প্রথম দিনেই কিছু ভাবি তাহলে তো হওয়ার কথা না। আমি চেষ্টা করছি, আজকে প্রথম সুযোগ পেলাম।’

Comments

The Daily Star  | English

Small businesses, daily earners scorched by heatwave

After parking his motorcycle and removing his helmet, a young biker opened a red umbrella and stood on the footpath.

1h ago