মুশফিককে কিপিং ছাড়ানোর কথা এক মুহূর্তও ভাবে না দল: তামিম

ম্যাচের গুরুত্বপূর্ণ পরিস্থিতিতে উইকেটের পেছনে মুশফিকুর রহিমের বড় ভুল করার ঘটনা আছে অনেকবার। নিউজিল্যান্ডে সর্বশেষ ওয়ানডে সিরিজেও তার ভুলে জেতার সম্ভাবনার মতো পরিস্থিতি থেকে সরে যায় বাংলাদেশ।
Mushfiqur Rahim & Liton Das

ম্যাচের গুরুত্বপূর্ণ পরিস্থিতিতে উইকেটের পেছনে মুশফিকুর রহিমের বড় ভুল করার ঘটনা আছে অনেকবার। নিউজিল্যান্ডে সর্বশেষ ওয়ানডে সিরিজেও তার ভুলে জেতার সম্ভাবনার মতো পরিস্থিতি থেকে সরে যায় বাংলাদেশ। তবে অভিজ্ঞ এই ক্রিকেটারকে এক মুহূর্তের জন্যও উইকেট-কিপিং থেকে সরানোর কথা ভাবেন না তামিম ইকবাল। তার কিপিংয়ে দলের সবাই খুবই খুশি বলে জানালেন ওয়ানডে অধিনায়ক।

কিপিং নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় টেস্টে মুশফিককে বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলানো শুরু করেছিলেন সাবেক কোচ চণ্ডিকা হাথুরুসিংহে। তিনি চলে যাওয়ার পর মাঝে আবার কিপিংয়ে ফিরেছিলেন মুশি। তবে অনেক আলোচনার পর তিনি টেস্টে এখন খেলেন বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যান হিসেবেই। সীমিত ওভারের ক্রিকেটে অবশ্য তিনিই দাঁড়ান উইকেটের পেছনে। তবে সেখানেও প্রশ্ন উঠছে নিয়মিতই। 

ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই কিপিংয়ে কখনই খুব সড়গড় দেখা যায়নি তাকে। তার স্টাম্পিং মিস, ক্যাচ মিসের ঘটনা ঘটে প্রায়শ। যখন গুরুত্বপূর্ণ সময়ে ভুল হয়, তখন আলোচনার পারদ ওঠে তুঙ্গে। তরতাজা উদাহরণও আছে সামনে।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ক্রাইস্টচার্চে দ্বিতীয় ওয়ানডেতে জেতার জন্য সুবিধাজনক অবস্থায় চলে গিয়েছিল বাংলাদেশ। কিন্তু সে ম্যাচে তাসকিন আহমেদের বলে জিমি নিশামের সহজ ক্যাচ ফেলে দেন মুশফিক। সেই নিশামই পরে ম্যাচ থেকে সরিয়ে দেন বাংলাদেশকে।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে গত বিশ্বকাপেও মুশফিকের ভুলের মাশুল দিতে হয় বাংলাদেশকে। ওভালে ২৪৪ রানের পুঁজি নিয়ে কিউইদের চেপে ধরে শুরুতেই দারুণ অবস্থায় চলে গিয়েছিল বাংলাদেশ।  কিন্তু  কেইন উইলিয়াসনকে সহজ রান আউটের সুযোগ হাতছাড়া করেন মুশফিক। করেন ব্যাখ্যাতীত এক মৌলিক ভুল। ফিল্ডারে থ্রোতে বল যাচ্ছিল সোজা স্টাম্পের দিকেই। মুশফিক স্টাম্পের সামনে হাত বাড়িয়ে তা ধরে লাগাতে গিয়ে বাঁচিয়ে দেন উইলিয়ামসনকে। তিনিই পরে গুরুত্বপূর্ণ ৪০ রানে গড়ে দেন ব্যবধান।

টেস্টে কিপিং করা লিটন দাস ওয়ানডেতেও নিয়মিত খেলছেন। কিপিং দক্ষতায় মুশফিকের থেকে তাকে এগিয়ে রাখা হয়। মোহাম্মদ মিঠুনও কিপার হিসেবে ঘরোয়া ক্রিকেটে খেলেন।

কিপিংয়ে মুশফিকের বিকল্প তাই আছেই। তবে শ্রীলঙ্কা সিরিজ সামনে রেখে  শুক্রবার ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক তামিম জানালেন, বদলের প্রশ্নই আসে না। কারণ, মুশফিকের কিপিং নিয়ে তারা খুবই খুশি, ‘ওর কিপিং নিয়ে আমি খুবই খুশি। ক্যাচ মিস বা সুযোগ মিস- এগুলো খেলার অংশ। সত্যি কথা বলতে, আমি জানি, সে কতটা কঠোর পরিশ্রম করে। আর আমাদের টিম ম্যানেজমেন্ট বা সবার একটা মুহূর্তের জন্যও মনে হয় না যে, মুশফিক কিপিং করবে না। সে অবশ্যই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডে শুধু না, পুরো সিরিজেই কিপিং করবে।’

গত এক যুগের বেশি সময় ধরে কিপিং করা মুশফিকের ভুল নয়, ইতিবাচক দিক দেখতেও বললেন তামিম, ‘ক্যাচ মিসের কথা বলছেন, কিন্তু সে কিছু দুর্দান্ত কাজও করেছে। ১৩-১৪ বছর ধরে একজন কিপার ক্যাচ ফেলতে পারে। আবার এই সময়ে সে কিছু অবিশ্বাস্য ক্যাচও ধরেছে। আমার মুশফিকের ওপর পূর্ণ আস্থা আছে এবং সে কিপিং করবে।’

Comments